১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাল্টে গেছে গৃহযুদ্ধের চিত্র

  • সিরিয়ায় রুশ হস্তক্ষেপে মার্কিন প্রশাসনের ওপর চাপ বাড়ছে

সিরিয়ায় রাশিয়ার সামরিক হস্তক্ষেপ দেশটির গৃহযুদ্ধের গতিপ্রকৃতির আমূল পরিবর্তন ঘটিয়েছে। এটি প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে ঘুরে দাঁড়ানোর মতো শক্তি যুগিয়েছে। এটি ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে (আইএস) মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসনের বিমান অভিযান সম্প্রসারণের পরিকল্পনাকে জটিল করে তুলতে পারে। এদিকে, সিরিয়ায় আইএসের ওপর রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর রাশিয়ার সমর্থন নিয়ে সিরীয়রা বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে স্থল অভিযান শুরু করেছে। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট ও নিউইয়র্ক টাইমসের।

এখন পর্যন্ত মার্কিন প্রশাসন এর দু’দফা কৌশল থেকে সরে যায়নি। একটি হলো আইএসের ওপর সরাসরি হামলা চালানো এবং এ জঙ্গী দলের বিরুদ্ধে লড়াইরত বাহিনীগুলোকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে সহায়তা দেয়া এবং সিরীয় গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটানোর জন্য আলোচনার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া। প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তারা স্বীকার করেন যে, রাশিয়া গৃহযুদ্ধে এরই মধ্যে কিছু কৌশলগত সাফল্য অর্জন করেছে। কিন্তু তারা জোর দিয়ে বলেন, প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে তাদের ভাষায় এক গুরুতর ভুলের জন্য শেষ পর্যন্ত খেসারত দিতে হবে: বিশ্বে তার মর্যাদা ক্ষুণœ হবে এবং জঙ্গীদের বিস্তার ঘটবে। এক উর্ধতন কর্মকর্তা বলেন, যদি মনোযোগ আকর্ষণ করাই পুতিনের লক্ষ্য হয় তা হলে সেটি চমৎকার। যদি সিরিয়ায় লড়াই বন্ধ করা তার লক্ষ্য হয়ে থাকে, তা হলে সেটি এক গুরুতর ভুল বলে আমরা মনে করি। একই সময়ে ঐ কর্মকর্তা বলেন, রাশিয়াকে এখন সুন্নি বিরোধী বলে দেখা হবে এবং চরমপন্থী দলগুলোর ক্রোধ রাশিয়ার ওপরই পড়বে। কিন্তু প্রশাসনের অন্যরা ও বাইরের অনেক বিশেষজ্ঞ ক্রমশই উদ্বিগ্ন যে, যদি প্রেসিডেন্ট ওবামা উত্তর-পশ্চিম সিরিয়া ও তুর্কী সীমান্তের আকাশসীমায় দাবি প্রতিষ্ঠা করার মতো চূড়ান্ত পদক্ষেপ না নেন, তা হলে যুক্তরাষ্ট্রের খ্যাতি এবং এর পররাষ্ট্র নীতি ও সন্ত্রাসবিরোধী লক্ষ্য উভয়ই গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ঐ আকাশসীমায় রুশ জেটগুলো এরই মধ্যে তৎপরতা চালাচ্ছে। রাশিয়া ও সিরিয়া বিদ্রোহী দলগুলোর কাছে হারানো ভূখ- পুনরুদ্ধারের চেষ্টায় বুধবার স্থল, আকাশ ও সমুদ্রপথে সমন্বিত অভিযান শুরু করে। বিদ্রোহীরা প্রেসিডেন্ট আসাদের ক্ষমতার গুরুত্বপূর্ণ উৎস সিরীয় উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছিল। রাশিয়া প্রায় ৯৩০ মাইল দূরবর্তী কাস্পিয়ান সাগরে এর যুদ্ধ জাহাজ থেকে আইএসকে লক্ষ্য করে রকেট নিক্ষেপ করে। রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শেইসু জানান, চারটি যুদ্ধজাহাজ থেকে ১১টি লক্ষ্যবস্তুর ওপর ২৬টি সমুদ্রভিত্তিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে লক্ষ্যবস্তুগুলো ধ্বংস করা হয়। সিরীয় স্থল সৈন্যরা রুশ বিমানের সহায়তা নিয়ে এক অভিযান শুরু করেছে বলে সিরীয় কর্মকর্তারা জানান। রাশিয়া আইএস নয় এমন বিদ্রোহী বাহিনীগুলোর ওপরই প্রধানত বিমান হামলা চালায় এমন দাবি অস্বীকার করছে।

সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস হামা ও ইদলিব প্রদেশে কয়েক মাসের মধ্যে এবার প্রচ-তম লড়াই হওয়ার খবর জানায়। এ লড়াইয়ের আগে একই এলাকাতে রুশ বিমান হামলা চলে। ৩০ সেপ্টেম্বর রুশ বিমান হামলা শুরু হওয়ার পর এটিই প্রথম রুশ-সিরীয় সমন্বিত অভিযান বলে মনে হয়। রাশিয়া আসাদের দৃঢ় সমর্থক। রাশিয়া ‘সব সন্ত্রাসীদের’ ওপর হামলা চালাচ্ছে বলে দাবি করে। কিন্তু এর অন্তত কোন কোন বিমান বেসামরিক লোকজন ও পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহীদের ওপর আঘাত হানে বলে জানা যায়।

নির্বাচিত সংবাদ