২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আলোর মুখ দেখছে ব্রেট লি-তানিষ্ঠার ‘আন ইন্ডিয়ান’

আলোর মুখ দেখছে ব্রেট লি-তানিষ্ঠার ‘আন ইন্ডিয়ান’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ চলতি বছর জানুয়ারির পর আর কোন ক্রিকেট খেলেননি ব্রেট লি। আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেই গত তিন বছর ধরেই। সাবেক এ অস্ট্রেলিয়ান পেসার এখন অভিনয় জগতে তার অভিযান শুরু করেছেন। ইতোমধ্যেই নিজের জন্মস্থান নিউ সাউথ ওয়েলসে তার প্রথম অভিনীত ছবি ‘আন ইন্ডিয়ান’ এর প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৫ অক্টোবর ছবিটি মুক্তি পাবে। ভারতীয় পরিচালক অনুপম শর্মার পরিচালনায় নির্মিত এ ছবিটি ভারত-অস্ট্রেলিয়ার যৌথ প্রযোজনায় সিডনিতে চিত্রায়িত হয়েছে। ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পরই আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রিকেটার ব্রেট লি বড় পর্দার অভিনেতা হিসেবে স্বীকৃত হবেন। এ ছবিতে তিনি একজন শিক্ষকের ভূমিকায় থাকবেন এবং এ ফিল্মের মূল চরিত্রে আছেন তানিষ্ঠা চ্যাটার্জি।

অস্ট্রেলিয়া-ইন্ডিয়া ফিল্ম ফান্ডের অধীনে রোমান্টিক-কমেডি ধাঁচের ‘আন ইন্ডিয়ান’ চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করা হয়েছে। এ ছবিতে অভিবাসী ছাত্র-ছাত্রীদের অস্ট্রেলিয়ার মৌলিক ভাষা শিক্ষা এবং অসি সংস্কৃতি ও কৃষ্টির বিষয়ে শিক্ষাদান করেছেন শিক্ষক চরিত্রে থাকা ব্রেট লি। বুধবার নিউ সাউথ ওয়েলসে ছবিটির প্রথম প্রিমিয়ার অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার পুরো অস্ট্রেলিয়াতে ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে। ৩৮ বছর বয়সী ব্রেট লি এ বিষয়ে বলেন, ‘আমার ধারণা যে চরিত্রে আমাকে নেয়া হয়েছে সেটা খুবই সহজ ছিল। প্রথমে মনে হয়েছিল এটা খুব কঠিন হবে আমার জন্য। যখন ছবিটিতে অভিনয় শুরু করেছিলাম কঠিনতম কাজটা ছিল ডায়ালগ দেয়াটা। সবমিলিয়ে আমার প্রায় ১১৯টি সিন রয়েছে এবং পৃষ্ঠার পর পৃষ্ঠা ডায়ালগ আমাকে রপ্ত করতে হয়েছে। প্রচেষ্টা শুরুর পর এবং সেটা স্মরণ করে আমার মনে হচ্ছিল আমার কোন সুযোগ নেই ভালভাবে এটা করার। তবে অভিনয়ের চরিত্রটা বেশ সহজই ছিল। অবশ্য অভিনয় শেষের পর ডায়ালগগুলোও সহজ হয়ে গেছে। যখন অনেকবার কোন বিষয় পড়া হয় তখন সেটা সহজতর হয়ে যায়।’

এ মুভিতে তানিষ্ঠার সঙ্গে লি’র প্রেমের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে। ৪.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে মুভিটি। ব্রেট লি যখন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) খেলার জন্য ভারতে অবস্থান করেছেন সে সময়ই তিনি ভারতীয় সংস্কৃতির অনুরাগী হয়ে ওঠেন। তবে ব্রেট লি জানিয়েছেন ভারতীয় সংস্কৃতির প্রতি এ টানটা তার শুরু হয়েছিল ২০ বছর আগে প্রথমবার ভারত সফরের সময়ই। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ’১৯৯৪ সালে যখন প্রথম আমি ভারত সফরে গেছি তখন থেকেই এটা শুরু হয়েছিল। তখন আমার বয়স মাত্র ১৭ ছিল। অসুস্থ হয়ে পড়েছিলাম এবং উইকেটে বোলিং করাটা খুবই অপছন্দনীয় হয়ে পড়েছিল। দুই মাস পর আমি দেশে ফিরে যাই এবং চিন্তা করে দেখলাম সত্যিই সফরটা আমার খুব ভাল লেগেছে। ভারতে এমন কিছু ছিল যা আমার মনের মধ্যে গেঁথে গিয়েছিল। বছরের পর বছর ভারতের প্রতি ভালবাসাটা বেড়েছে। শুধু সংস্কৃতিই নয় বরং দেশটির মানুষের প্রতি।

আমি বেশ কয়েকটি বলিউড ফিল্মে কাজ করার প্রস্তাবও পাই। কিন্তু আমি আসলে সেটার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত ছিলাম না। তখনও আমি ক্রিকেট খেলছিলাম মনোযোগ দিয়ে। এরপর অস্ট্রেলিয়ান এ মুভিটি আমার সামনে চলে আসলো। আমি স্ক্রিপ্ট দেখে খুবই পছন্দ করলাম। আমি চিন্তা করে দেখলাম প্রথম কোন মুভি করার এটাই সবচেয়ে বড় সুযোগ।’ ব্রেট লি’র স্বপ্ন পূরণ হয়ে গেছে ইতোমধ্যে প্রিমিয়ার শো হওয়ার মাধ্যমে। এবার সাবেক এ অসি পেসারের বিশ্বের সাধারণ দর্শকদের সামনে বড় পর্দায় অভিনেতা হিসেবে দেখা দেয়ার অপেক্ষা।