২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফিফায় তিন মাস নিষিদ্ধ ব্লাটার-প্লাতিনি

  • ফুটবলের সমস্ত কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দুই শীর্ষ কর্তার ;###;ফিফা প্রধানের সাময়িক দায়িত্বে আফ্রিকার ইসা হায়াতু ;###;আইন ভঙ্গ করার দাবি ব্লাটারের আইনজীবীর

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নিজের পক্ষে অনেক সাফাই গেয়েছেন সেপ ব্লাটার। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। গুঞ্জনের ইতি ঘটিয়ে শেষ পর্যন্ত ফিফা সভাপতি পদ থেকে বরখাস্ত হয়েছেন সুইজারল্যান্ডের এই ফুটবল কর্তা। সুইজারল্যান্ডের একটি ফৌজদারি মামলায় নাম জড়িয়ে পড়ায় বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রধানকে বৃহস্পতিবার বহিষ্কারাদেশ দিয়েছে ফিফার এথিকস কমিটি। ফিফার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এথিকস কমিটির তদন্তের স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

নিষিদ্ধ হওয়ার কারণে ফিফা সভাপতির পদ থেকে ৯০ দিনের জন্য সরে যেতে হচ্ছে ব্লাটারকে। মামলায় জড়িত থাকায় উয়েফা সভাপতি মিশেল প্লতিনিকেও একই মেয়াদে সরে যেতে হচ্ছে ফুটবলের সব কর্মকা- থেকে। অর্থাৎ আগামী তিন মাস ফুটবল সংক্রান্ত সব ধরনের কার্যক্রম থেকে নিষিদ্ধ থাকবেন তারা। ব্লাটার, প্লাতিনি ছাড়াও ফিফার সাবেক সহ-সভাপতি চু মং জুনকে ছয় বছরের জন্য নিষিদ্ধ এবং ৬৭ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়েছে। প্লাতিনির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে ২০১১ সালে তিনি ব্লাটারের কাছ থেকে বড় অঙ্কের অর্থ ঘুষ হিসেবে নিয়েছিলেন। আগামী ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে প্লাতিনির অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী দক্ষিণ কোরীয় ধনকুবের চুং মোং-জুনের বিরুদ্ধেও রায় দিয়েছে ফিফার এথিকস কমিটি। তাকে আগামী ছয় বছরের জন্য সংস্থাটির সভাপতি পদে নির্বাচন করার ক্ষেত্রে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়েছে। ফিফার সহ-সভাপতি জেরমে ভাল্কে, যার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের টিকেট কেলেঙ্কারির অভিযোগে তাকেও বহিষ্কার করা হয়েছে ৯০ দিনের জন্য।

ফিফার স্বাধীন এথিকস কমিটি সোমবার থেকে বৈঠক করে আসছে। বুধবার রাতেই এই সিদ্ধান্তের আভাস মিলেছিল আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবরে। তবে তা স্পষ্ট ছিল না। অবশেষে বৃহস্পতিবার ব্লাটার ও প্লাতিনিকে বরখাস্তের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফিফার এথিকস কমিটি। অবশ্য ব্লাটারের আইনজীবী জানিয়েছেন, ফিফা কমিটি আইন ভঙ্গ করে অন্যায়ভাবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ব্লাটারকে সরিয়ে দেয়ার পর সাময়িকভাবে ফিফা সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্বে থাকা ইসা হায়াতুকে। ৬৯ বছর বয়সী ইসা বর্তমানে কনফেডারেশন অফ আফ্রিকান ফুটবলের (সিএএফ) প্রধান। আফ্রিকান এই ফুটবল কর্তা আগামী বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী ফিফা সভাপতি নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন বলে জানা গেছে।

সুইস কর্তৃপক্ষ ব্লাটারের বিরুদ্ধে সেপ্টেম্বর মাসে ফৌজদারি তদন্ত শুরু করার পর ফিফার এথিকস কমিটি জুরিখে চলতি সপ্তাহে বৈঠকে বসে। বুধবার কমিটির তদন্ত উইং বর্ষীয়ান ফুটবল সংগঠক ব্লাটারকে সাময়িক বরখাস্ত করার সুপারিশ করেছিল। একদিন পর সেটিই কার্যকর করা হয়েছে। সুইস কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, ৭৯ বছর বয়সী ব্লাটার ‘ফিফার জন্য নেতিবাচক’ এমন চুক্তি করেছেন এবং ইউরোপিয়ান ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মিশেল প্লাতিনিকে ‘অবৈধ উপায়ে অর্থ’ দিয়েছেন। ১৯৯৮ সাল থেকে ফিফা প্রধানের দায়িত্বে থাকা ব্লাটার অবশ্য প্রথম থেকেই কোন ধরনের অপরাধ করার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন। ব্লাটারের উত্তরসূরি হতে চাওয়া প্লাতিনিও দুর্নীতির অভিযোগ উড়িয়ে দেন। বুধবার বৈঠকের আগেও ব্লাটার বলেছিলেন, তিনি একদিন আগেও দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াবেন না। কিন্তু গায়ের জোরে যে সবকিছু হয় না, সে প্রমাণ পেয়েছেন অভিযুক্ত ব্লাটার।

বুধবার বৈঠকের পরই চারদিকে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে, বরখাস্ত হতে যাচ্ছেন ব্লাটার। এই আভাস পাওয়ার পর তার আইনজীবীরা বলেছিলেন, তাদের মক্কেলের বিরুদ্ধে যে কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে ফিফার এথিকস কমিটি যেন তার সঙ্গে আলোচনায় বসেন এবং তার কথা শোনেন। হাওয়ার ওপরে সিদ্ধান্ত না নিয়ে দালিলিক বিষয়গুলোকে যেন তারা আমলে নেন। কিন্তু ব্লাটারের আইনজীবীদের আবদার রাখা হয়নি। তদন্তের স্বার্থে তাকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে ফুটবলের সব কার্যক্রম থেকে।

গত মে মাসে ফিফা কংগ্রেসের সময় দুর্নীতির অভিযোগে সুইস পুলিশ আটক করে ফিফার কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তাকে। তার দু’দিন পর সভাপতি পদে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে পঞ্চমবারের মতো ফিফার সভাপতি নির্বাচিত হন ব্লাটার। কিন্তু বিভিন্ন আর্থিক কেলেঙ্কারি তাকে এতটাই বিতর্কিত করে তুলেছিল যে নির্বাচিত হওয়ার মাত্র চারদিন পর তিনি ফিফার সভাপতি পদ থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন। তবে ব্লাটার জানিয়েছেন, আগামী নির্বাচনের আগ পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো মিথ্যা প্রমাণের জন্য সম্ভাব্য সবকিছু করবেন তিনি।