১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আরও উন্নত কৃত্রিম কিডনি

পরীক্ষাগারে তৈরি কিডনি একাধিক প্রাণীর শরীরে সংযোজন করে আশাব্যঞ্জক ফল পেয়েছেন জাপানের একদল বিজ্ঞানী। তাঁদের এই সাফল্যে মানুষের শরীরেও একই ধরনের কিডনি প্রতিস্থাপনের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপনের ফলে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় তাদের ইউরিন নির্গত হচ্ছে। তবে আগের নমুনাগুলোতে ঠিকভাবে ইউরিন নির্গত হওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা ছিল। শেষ পর্যন্ত জাপানের একদল গবেষক বেড়ে ওঠে এমন অতিরিক্ত ব্লাডার ব্যবস্থা যুক্ত করার পর এ প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে ওঠে। এর মানে আরও উন্নত হয়েছে এবারের তৈরি কৃত্রিম কিডনি।

টোকিওর জিকেই ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিনের গবেষক তাকাশি ইয়াকু ও তাঁর সহযোগীরা স্টেম সেল পদ্ধতির সাহায্যে নির্দিষ্ট প্রাণীর কিডনির সহায়ক বাড়তি নিষ্কাশন নল তৈরি করেন। এতে প্রস্রাব সংগ্রহ ও ধারণের জন্য একটি থলি বা ব্লাডার সংযুক্ত রয়েছে। যখন তারা প্রাণীগুলোর নিজেদের ব্লাডারের সঙ্গে এই পদ্ধতি সংযুক্ত করে তখনই পুরো কৃত্রিম প্রক্রিয়াটি সফলভাবে কাজ শুরু করেছে। প্রতিস্থাপনের ৮ সপ্তাহ পরও পরীক্ষা করে দেখা গেছে, প্রক্রিয়াটি সফলভাবে কাজ করছে। তারপর তারা পুরো প্রক্রিয়াটি একটি বড় শূকরের ওপর প্রয়োগ করে একই ফলাফল পান।

প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল এ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস সাময়িকীতে প্রকাশিত ওই গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, কিডনির অকার্যকারিতা দূর করতে জাপানি গবেষকরা বাড়তি ব্লাডার জুড়ে দেয়ার পদ্ধতি প্রয়োগ করে ইতিবাচক ফল পেয়েছেন। মানুষের ওপর এ পদ্ধতি প্রয়োগ করতে আরও কয়েক বছর লাগবে। তবু এ গবেষণা মানুষের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ তৈরির একটি লক্ষ্য সুনির্দিষ্ট করে দিয়েছে। বিশ্বে প্রতিবছর বহু মানুষ কিডনি রোগে মারা যায়। কিডনি প্রতিস্থাপন করে তাদের বাঁচানোর সুযোগ রয়েছে। মানবদেহের স্টেম সেল থেকে পরীক্ষাগারে কার্যকর কিডনি তৈরি করা সম্ভব হলে এ ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে।

যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের (ইউসিএল) স্টেম সেল ও ওষুধ বিশেষজ্ঞ ক্রিস ম্যাসন জাপানিদের ওই গবেষণা প্রসঙ্গে বলেন, এটা চমৎকার অগ্রগতি। তবে এটা মানুষের ক্ষেত্রে ঠিকঠাক কাজ করবে কি না, এখনই নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে ডায়ালাইসিসের রোগীদের কিডনির সঙ্গে বাড়তি নল জুড়ে দিয়ে সমস্যা সমাধানের একটা জোরালো সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

সূত্র : এবিসি সায়েন্স