১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সন্ত্রাসী সুব্রত বাইনের সহযোগী ছাত্রদল নেতা নয়ন গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর মগবাজারের একটি হোটেল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় শীর্ষ সন্ত্রাসী সুব্রত বাইনের সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতের নাম রবিউল ইসলাম নয়ন (২৬)। এ সময় তার কাছ থেকে পাঁচ রাউন্ড গুলিভর্তি একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মগবাজারের বৈকালী হোটেলের চতুর্থ তলার ৩০৪ নম্বর কক্ষ থেকে তাকে আটক করা হয়।

রমনা থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে দুই সহকর্মীকে নিয়ে তিনি বৈকালী হোটেলে অবস্থান নেন। হোটেলের ম্যানেজার তাদের জানান, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে দু’জন হোটেলে অবস্থান করছে। সেই খবর পেয়ে পুলিশ দল হোটেলের চতুর্থ তলার ৩০৪ নম্বর কক্ষে অবস্থান নেয়। অনেকক্ষণ কড়া নাড়ার পর হাতে পিস্তল তাক করে নয়ন দরজা খুলে। এ সময় পাল্টাপাল্টি গুলি বিনিময় হলে নয়ন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়। তাকে গ্রেফতারের সময় তার কাছ থেকে একটি পিস্তল ও পাঁচ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পরে আহত নয়নকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হোটেলের ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার (সিসিটিভি) ফুটেজে দেখা যায় সেখানে নয়নের সঙ্গে আরেক জন ছিল। রমনা থানার ওসি মশিউর জানান, পুলিশ তাদেরকে শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে। নয়ন মোহাম্মদপুরের মোহাম্মদপুর থানা ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক। তার বিরুদ্ধে কলাবাগান, রমনা ও মাগুরা থানায় ভাংচুর, চাঁদাবাজি ও নাশকতার একাধিক মামলা রয়েছে। সম্প্রতি টানা অবরোধে রাজধানী বাংলামোটর ও মালিবাগসহ বিভিন্ন এলাকায় পেট্রোল বোমা নিক্ষেপসহ বহু সহিংসতার মামলার আসামি। তিনি মাগুরা ও বাংলামোটর এলাকায় হত্যাসহ বহু মামলার আসামি।

ডাকাতের গুলিতে নৈশপ্রহরী গুলিবিদ্ধ ॥ রাজধানীর মিরপুরে ডাকাতের গুলিতে জয়নাল আবেদীন (৪০) নামে এক নৈশপ্রহরী আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে মিরপুরের দক্ষিণ মণিপুরে এ ঘটনা ঘটে। পরে তাকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহতের ছেলে জুয়েল ও অপর নৈশপ্রহরী হারেস মিয়া জানান, জয়নাল আবেদীন দক্ষিণ মণিপুরের ১০৪ নম্বর বাসায় থাকেন। তিনি ওই এলাকার সড়কের নৈশপ্রহরী। তারা জানান, বৃহস্পতিবার একদল ডাকাত দক্ষিণ মণিপুরের বৈশাখী ভবনের পাশের একটি বাসায় ডাকাতির চেষ্টা করে। বিষয়টি টের পেয়ে কর্তব্যরত নৈশপ্রহরী জয়নাল আবেদীন ও হারেস মিয়া বাঁশি বাজিয়ে ও ‘ডাকাত ডাকাত’ বলে চিৎকার করতে থাকেন। তখন ডাকাত দল তাদের লক্ষ্য করে দুই রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। নৈশপ্রহরী জয়নালের কোমরের বাঁ পাশে একটি গুলিবিদ্ধ হয়। জয়নাল আবেদীনকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।