১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লালমনিরহাট দূর্গাপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহত ১

নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমনিরহাট॥ সন্ধ্যা গ্রামের মানুষ যখন ঘর গৃহস্থ্য সামলাতে ব্যস্ত। তখন তাদের ওপর নেমে আসে বৃষ্টিরমত বিএসএফর বুলেট। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার জেলার আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর সীমান্ত চওড়াবাড়ি গ্রামে। এসম ভারতীয় সীমান্তরক্ষীবাহিনী বিএসএফ এলোপাতারী গুলিতে মহিলাসহ ৫জন গুলি বিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়। এদের একজন আব্দুর রহিম(৩৪) রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রাত একটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। আহতরা হলেন, চওড়াবাড়ি গ্রামের গোফুর মিয়ার ছেলে সুলতান(৫৫), একই গ্রামের কাশের পুত্র রহিম(৩৪), একই গ্রামের চুরকুটুর পুত্র সাজু মিয়া(২২), একই গ্রামের আনোয়ারুলের পুত্র সুমন(২০), আনোয়ারুলের স্ত্রী সাহিদা (২৫)। সীমান্ত গ্রামটি হতে সাধারণ মানুষ নিরাপদ দূরুত্বে চলে গেছে। গ্রামটি মানুষ শূন্য হয়ে পড়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, কাল সন্ধ্যায় সীমান্ত ঘেঁষা চওড়াটারী গ্রামের কৃষকরা তাদের গৃহপালিত গরু মাঠ হতে নিজেদের গোয়ালে নিয়ে আসে। এমন সময় ভারতের পশ্চিমবঙ্গ কুচবিহার জেলার ২১ বিএসএফ ব্যাটেলিয়নের সিঙ্গীমারী ক্যাম্পের টহল দলের সদস্যরা কৃষকদের ধাওয়া করে। বাংলাদেশীরা কৃষক পরিবারের সদস্যরা গরু নিয়ে নিজেদের বাড়িতে বেঁধে রাখে। এই ঘটনার কিছুক্ষণ পর চওড়াবাড়ি ড়্রামের পাতুমিয়ার বাড়িতে বিএসএফ সদস্যরা প্রথমে চড়াও হয়। পরে গ্রামটিতে এলোপাতারী গুলি ছোড়তে থাকে। বিএসএফর লঅঠিচার্জ ও এলোপাতারী গুলিতে প্রায় ২০ জন আহগ হয় । এদের মধ্যে ৫জনকে গুলি বিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি’র অধিনায়ক লে. কর্ণেল আহম্মেদ বজলুর রহমান হায়াতী জানান, ঘটনাটির কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে পতাকা বৈঠকের জন্য বিএসএফকে শুক্রবার সকালে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে। এই ঘটনাটি আন্তজার্তিক সীমান্ত আইন লংঘনের সামিল। বন্ধুত্বপূণ সর্ম্পকের মধ্যে এই ধরনের আচরন দূঃখজনক।