২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জালিয়াতির ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা শুরু

জালিয়াতির ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা শুরু
  • জগন্নাথে ড্রেসকোড মেনে পরীক্ষা দিল ভর্তিচ্ছুরা

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ কোন ধরনের জালিয়াতির ঘটনা ছাড়াই সুষ্ঠুভাবে এ বছরের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। শুক্রবার সকালে ডিজিটাল জালিয়াতি ঠেকাতে সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে ‘খ’ ইউনিটের পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির ভর্তি কার্যক্রম। এদিন সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ভেতরে ও বাইরের মোট ৬৯টি কেন্দ্রে ১২০ নম্বরের এমসিকিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ‘খ’ ইউনিটে মানবিকের বিভিন্ন অনুষদের দুই হাজার ২৯৬টি আসনের বিপরীতে এবার পরীক্ষায় অংশ নেন ৩১ হাজার ১৬৩ জন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরের কোন কেন্দ্রে জালিয়াতি চক্রের কোন সদস্যকে আটক হতে দেখা যায়নি। পরীক্ষার হলে ঢোকার আগে শিক্ষার্থীদের চেক করে ঢোকানো হয়। তাছাড়া নির্দেশনা অনুযায়ী কোন ধরনের ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস নিয়েও কেউ আসেননি। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেও কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

পরীক্ষা শেষে দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক এম আমজাদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন ফাঁস হয় না। কিন্তু পরীক্ষা শুরু হলে পরীক্ষার হলে থেকে কিছু অসাধু চক্র প্রশ্ন বের করে দেয়। বিগত বছরগুলোতে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। আমরা এবার ডিজিটাল জালিয়াতি ঠেকাতে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে ছিলাম এবং আমরা সফল হয়েছি। এবার কোন ধরনের জালিয়াতি ঘটনা ঘটেনি। শান্তিপূর্ণভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে কয়েকটি প্রতারকচক্র পরীক্ষার্থীদের প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে এমন তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছিল। আবার বিকাশের মাধ্যমে টাকা চাওয়ার অভিযোগও পেয়েছিলাম। সে অনুযায়ী আমরা অভিযানও চালিয়েছিলাম। ওই সব প্রতারকচক্রের তথ্য ডিবি পুলিশের কাছে দেয়া হয়েছে।

তিনি জানান, বিগত কয়েক বছর ধরে পরীক্ষার হলে জালিয়াতি ও প্রশ্ন পাচারের অভিযোগের কারণে এবারও পরীক্ষার হলে ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন এবং বাইরে যোগাযোগ করা যায় এমন যে কোন ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ছিল। তাছাড়া যে কোন অনিয়মের তাৎক্ষণিক শাস্তির জন্য ছিল ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ক্যাম্পাসের বাইরের কেন্দ্রগুলোতেই অনিয়ম হয় উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, এবার মাত্র তিনটি কেন্দ্র ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে। ভবিষ্যতে বাইরের কেন্দ্র আরও কমিয়ে আনার চেষ্টা করা হবে।

এছাড়া আজ শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘চ’ ইউনিটের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং ১৭ অক্টোবর অঙ্কন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ১৬ অক্টোবর ‘গ’ ইউনিট, ৩০ অক্টোবর ‘ক’ ইউনিট এবং ৬ নভেম্বর ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হবে। ভর্তি পরীক্ষার সিট প্ল্যান বিশ্ববিদ্যালয়ের ধফসরংংরড়হ.বরং.ফঁ.ধপ.নফ ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।

সুষ্ঠুভাবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত ॥ একই দিনে বিকেলে ‘ড্রেসকোড’ মেনে পরীক্ষা দিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। প্রশ্নপত্র ফাঁস ও জালিয়াতি ঠেকাতে এ বছর থেকে নতুন এ পদ্ধতি চালু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এক্ষেত্রে ভর্তি পরীক্ষার প্রথম দিনে সফলতা পেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গতবছর বিভিন্ন ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে ২১ জন আটক হলেও এবছর ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় জালিয়াতির কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। শুক্রবার বিকেল তিনটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৮টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মাদ পরীক্ষা শেষে সাংবাদিকদের বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিগত বছরে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনা ঘটলেও এবার তেমন কোন ঘটনা ঘটেনি। এবারও ফেসবুকে প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার অভিযোগ নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান জনকণ্ঠকে বলেন, কয়েকটি প্রতারকচক্র প্রশ্ন ফাঁসের কথা বলে পরীক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। সেই সব প্রতারক চক্রদের তথ্য গোয়েন্দা সংস্থাকে দেয়া হয়েছে।

এবার পরীক্ষার কেন্দ্রেগুলোতে ফুলহাতা শার্ট, জুতা-মোজা পরিহিত অবস্থায় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। সেই সঙ্গে পরীক্ষার হলে ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন এবং ইলেকট্রনিক ডিভাইস নিষিদ্ধ ছিল। মেয়েদের ক্ষেত্রেও ছিল বিশেষ চেকিং। এছাড়া যে কোন অনিয়মের তাৎক্ষণিক শাস্তির জন্য ছিল ভ্রাম্যমাণ আদালত।