২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইউপি চেয়ারম্যানের নির্যাতনে হিন্দু পরিবার গ্রামছাড়া

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ টঙ্গীবাড়ি উপজেলার যশলং ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আবু ছালাম শেখের (৫৫) নির্যাতনের শিকার হয়ে এক হিন্দু পরিবার গ্রামছাড়া হয়েছেন। গত ১ অক্টোবর ওই চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তার শ্যালক আলমগীর এবং দুই ছেলে শাহ মোয়াজ্জেম এবং মোশাররফ উপজেলার যশলং গ্রামের একমাত্র হিন্দু পরিবারটির ওপর হামলা চালায়। এ সময় ওই পরিবারের নিরঞ্জন বিশ্বাস (৬০), কাজল রানী (৫২), তাদের মেয়ে সুবর্ণা বিশ্বাস (১৮), সুচিত্রা বিশ্বাস (১৫), দিপালী রানী (২৫) ও মিন্টু বিশ্বাস (৩৫) ওপর হামলা চালিয়ে তাদের গুরুতর আহত করা হয়। নিরঞ্জন বিশ্বাস

এখনও গুরুতর আহত অবস্থায় মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এ ঘটনায় নিরঞ্জন বিশ্বাসের ছেলে শুভ বিশ্বাস বাদী হয়ে চেয়ারম্যানসহ ৬ জনকে আসামি করে টঙ্গীবাড়ি থানায় মামলা নং ১(১০)১৫ দায়ের করেছে। এর পর ওই মামলার ৫ আসামি জামিনে গিয়ে ওই হিন্দু পরিবারটিকে হুমকি ধমকি দেয়ায় তারা এখন আত্মগোপন করে দিন কাটাচ্ছে। তাদের হুমকি ধমকির কারণে ওই পরিবারের গৃহপালিত পশুগুলো নিয়ে যেতে সাহস পাচ্ছিল না পরিবারটি। পরে এক নৌচালককে দিয়ে তাদের গৃহপালিত পশুপাখি নিয়ে গিয়ে তারা আত্মগোপনে রয়েছে। সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, তাদের বসবাসের ৩টি ঘর তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। ওই বাড়িতে একটি লোকও নেই। শুভ বিশ্বাস জানান, চেয়ারম্যান দীর্ঘদিন যাবত আমাদের বাড়িটি জোর করে দখল নিতে চেষ্টা করে আসছিল। এই কারণেই তার নেতৃত্বে আমার পরিবারের ওপর হামলা করে আমার বাবার মাথা ফাটিয়ে পরে তাকে পানিতে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা করে সে। জানা গেছে, ওই হিন্দু পরিবারের পাশের বাড়িটি ১ বছর আগে ক্রয় করে ইউপি চেয়ারম্যান আঃ ছালাম। ওই জমি ক্রয় করার পরে ইউপি চেয়ারম্যানের দৃষ্টি পরে পাশের হিন্দু পরিবারের বাড়ির জমিটির ওপর। এরপর চেয়ারম্যান তার শ্যালক আলমগীর হাওলাদারকে থাকতে দেয় তার ক্রয় করা বাড়িটিতে। তুচ্ছ বিষয় নিয়ে চলতে থাকে হিন্দু পরিবারটির ওপর নির্যাতন। গত ১ অক্টোবর তারিখে ইট নেয়াকে কেন্দ্র করে ওই হিন্দু পরিবারটির বাড়িতে গিয়ে তাদের ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত এবং ওই পরিবারটির হিন্দু মেয়েদের শ্লীলতাহানি করে চেয়ারম্যানের লোকজন। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আঃ ছালাম জানান, আমার শ্যালকের সঙ্গে পাশের হিন্দু পরিবারটির মারামারি হয়েছে। ওই সময় আমি বাড়ি ছিলাম না। টঙ্গীবাড়ি থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, হিন্দু পরিবারকে মারপিটের ঘটনায় মামলা হয়েছে। ওই মামলার ৬ আসামির মধ্যে ৫ আসামি আদালত হতে জামিনে রয়েছে। মামলাটির তদন্ত চলছে।

সিরাজদিখানে দুর্গাপুজো বন্ধ ॥ মুন্সীগঞ্জে মন্দিরের জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ইছাপুরা সার্বজনীন দুর্গাপূজা কমিটির সহ-সভাপতি ও সিরাজদিখান পূজা উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ভবন দাস (৪৫) নামে গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মিডফোর্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা বাজারের চৌরাস্তায় বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ইছাপুরা মন্দির কমিটি ওই মন্দিরের পুজো বন্ধ করার ঘোষণা দিয়েছেন।

সিরাজদিখান থানার ওসি মোঃ ইয়ারদৌস হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে গত বৃহস্পতিবার রাতে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিরাজদিখান থানায় মামলা হয়েছে। তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। ভবন দাস ইছাপুরা ইউনিয়নের মধ্যম শিয়াদী গ্রামের মৃত আনন্দ দাসের পুত্র।