১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গী ছাড়া যে কারও সঙ্গে ঐক্য গড়তে সরকার খাড়া ॥ তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুষ্টিয়া, ৯ অক্টোবর ॥ ‘অগণতান্ত্রিকতার সুযোগে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে জঙ্গীবাদ; মোকাবেলায় প্রয়োজন জাতীয় ঐক্যের’ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘জঙ্গী তৎপরতার জনক হচ্ছে জেনারেল জিয়াউর রহমান। পরবর্তীতে তার স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। সুতরাং যারা মানুষ পোড়ানোর সঙ্গে, সাম্প্রদায়িকতার সঙ্গে এবং জঙ্গীবাদের সঙ্গে জড়িত তাদের বাদ দিয়ে সবাইকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য গঠনে সরকার এক পায়ে খাড়া আছে।’ তিনি বলেন, দুই বিদেশী নাগরিক হত্যা বিচ্ছিন্ন কোন ঘটনা নয়। এটা গভীর চক্রান্ত। এ নিয়ে তদন্ত চলছে। কয়েকদিন পরেই দেশবাসী জানতে পারবে কারা এর সঙ্গে জড়িত।

তথ্যমন্ত্রী শুক্রবার সকাল ১১টায় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার গোলাপনগরে নিজ বাসভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা মহাজোট গঠনের মধ্যদিয়ে এই জাতীয় ঐক্যের প্রতিফলন করেছি। কমিউনিস্ট পার্টিসহ বাকি যারা গণতান্ত্রিক দল আছে তাদেরকেও এই ঐক্যে আসার আহবান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ভয়াবহ জঙ্গবাদী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তার দোসর জামায়াতে ইসলামীকে বাংলাদেশের মাটি থেকে এবং রাজনীতি থেকে হটিয়ে না দেয়া পর্যন্ত এদেশে আগুনযুদ্ধের সন্ত্রাসীদের-জঙ্গীবাদীদের মূল উৎপাটন সম্ভব নয়।’ ইনু বলেন, ‘গণতন্ত্র ধ্বংসকারী জঙ্গীবাদের প্রধান পৃষ্টপোষক বেগম খালেদা জিয়া কিংবা ফখরুল সাহেবদের মুখে আমরা গণতন্ত্রের কথা শুনতে চাই না। উনি যদি এতই গণতন্ত্রের চর্চা করবেন তবে যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন বাংলা ভাইরা কিভাবে সরকারী প্রশাসনে তা-ব চালিয়েছিল। কিভাবে ২১ আগস্টের খুনীদের প্রশাসন রক্ষা করেছিল। এর কৈয়ফত দিয়ে তারপরে জাতীয় ঐক্যের কথা বলুন।’ মন্ত্রী বলেন, দুই বিদেশী নাগরিককে হত্যা বিচ্ছিন্ন কোন ঘটনা নয়, এটা গভীর চক্রান্ত। তদন্ত চলছে, কয়েকদিন পরেই দেশবাসী দেখতে পারবে কারা এর সঙ্গে জড়িত। এ সময় কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপনসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।