২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ওয়ানডেতে অন্য ভারত!

  • তৃতীয় টি২০ পরিত্যক্ত, ২-০তে সিরিজ দ.আফ্রিকার, কানপুরে প্রথম ওয়ানডে রবিবার

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথমবারের মতো ঘরের মাটিতে টি২০ সিরিজ হার। হারেরও ধরন থাকে! দুটি টি২০তেই দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে পাত্তা পায়নি ক্রিকেটের মোড়লরা। তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০তে মাথা নোয়ায় মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। ধর্মশালায় ১৯৯ রান করেও ৭ উইকেটে, এরপর কটকের আলোচিত দ্বিতীয় ম্যাচে ৯২ রানে অলআউট হয়ে ৬ উইকেটে হার, কলকাতার শেষ ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়। নিজ অঙ্গনে আগামী বছর টি২০ বিশ্বকাপ, তার আগে ভারতের এই ভরাডুবি বড় ধাক্কা। সেটি স্বীকার করলেও ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ‘টিম ডিরেক্টর’ কাম অন্তর্বর্তী কোচ রবি শাস্ত্রীর কণ্ঠে। কথা বলেছেন ধোনির নেতৃত্ব নিয়েও। অন্যদিকে শুরুর সাফল্যে আত্মবিশ্বাসী অতিথি প্রোটিয়ারা।

‘কলকাতা ম্যাচের আগের রাতে ঘুমাতে পারিনি! অন্তত: শেষ ম্যাচটি জিতে ব্যবধান কমানোর সুযোগ ছিল। সেটি হয়নি। টি২০ বিশ্বকাপ সামনে রেখে এটা খুবই হতাশার। প্রথম ম্যাচটি ক্লোজ হলেও দ্বিতীয়তে আমরা দাঁড়াতে পারিনি। ছেলেরা হতাশ। ব্যাটিং-বোলিং অনেক জায়গায় কাজ করার সুযোগ রয়েছে। আমরা এখন ওয়ানডে সিরিজের দিকে তাকিয়ে। এই ফরমেটে গত কয়েকটা সিরিজ ভাল খেলছি। আশা করছি টি২০র দুঃখ ভুলে সবাই ওয়ানডেতে অন্য ভারতকেই দেখতে পাবে।’ বলেন রবি শাস্ত্রী। টি২০ ব্যর্থতার একটা কারণ খুঁজে পেয়েছেন কোচ। তিনি আরও যোগ করেন, ‘শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজটা দারুণ কেটেছে। কিন্তু বিশ্বকাপের পর স্বল্পদৈর্ঘ্যে খেলা হয়নি। ছোট পরিসরে ছেলেরা অনেকদিন খেলার বাইরে। এটা প্রভাব ফেলেছে।’

ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ঝরলেও শিষ্যদের সতর্ক করে দিয়ে শাস্ত্রী বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা যে কোন ঘারানায় শক্তিধর প্রতিপক্ষ। ওরা ‘এ’ দলের কাছে প্রস্তুতি ম্যাচে হারলেও দ্রুতই কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছে। ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়াতে তাই আমাদের সেরাটা দিতে হবে।’ ধোনিকে সরিয়ে টেস্টের মতো ওয়ানডেতেও কোহলিকে অধিনায়ক করার সময় হয়েছে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে কোচ বলেন, ‘দুটি টি২০তে হার দিয়ে ধোনির মতো একজনের নেতৃত্বকে বিচার করা ঠিক নয়। আর এ নিয়ে কথা বলার সময়ও এখন নয়। ওয়ানডে সিরিজ দরজায় কড়া নাড়ছে, রয়েছে টি২০ বিশ্বকাপ। দলে একাধিক তরুণ ক্রিকেটার এসেছে। আশা করছি ওরা মানিয়ে নেবে। তখন ফল অন্যরকম হবে।’ ধোনির বক্তব্য প্রায় একই, ‘টি২০তে আমরা মোটেই ভাল খেলিনি। কিন্তু ওয়ানডেতে পরিস্থিতি বদলে যাবে। অজিঙ্কা রাহানে ও অমিত মিশ্র যোগ দিলে শক্তি বাড়বে। পাশাপাশি নিজেদের পরিবেশে ঘাস কমিয়ে উইকেট সেøা করা উচিত বলেই মনে হয় আমার!’

দ্রুত ভারতীয় কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পেরে দারুণ খুশি দ.আফ্রিকার টি২০ অধিনায়ক ফ্যাফ ডুপ্লেসিস, ‘২-০ সিরিজটা ৩-০ করার ইচ্ছা ছিল। এখন আমরা সঠিক বক্সগুলোতে টিক মারতে মারতে এগোচ্ছি। যেটা করতে চাইছি। ভারতে প্রথমে প্রস্তুতিতে হারলেও আমরা দ্রুতই পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। এবি ডি ভিলিয়ার্স-জেপি ডুমিনির ব্যাটে রান আসাটা ইতিবাচক।’ অপরাজিত ৬৮ ও ৩০ রানের দুটি ইনিংস খেলে টি২০তে সিরিজসেরা ডুমিনি। ডি ভিলিয়ার্স করেন ৫১ ও ১৯। রবিবার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডে কানপুরে। প্রোটিয়াদের দীর্ঘ ৭২ দিনের সফরে এরপর রয়েছে চার টেস্টের সিরিজ।