১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আরও সংবাদ

  • বাংলাদেশ-ক্যাব তিনদিনের ম্যাচ ড্র

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সফরকারী ক্রিকেট এ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গল (ক্যাব) অনুর্ধ ১৭ দলের সঙ্গে প্রথম তিনদিনের ম্যাচ ড্র করেছে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৭ দল। শুক্রবার তৃতীয় ও শেষ দিন বিকেএসপিতে ক্যাব দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেটে ১৫৮ রান তোলার পর উভয়দল ড্র মেনে নেয়।

জয়ের ভাল সুযোগ তৈরি হয়েছিল স্বাগতিক বাংলাদেশের কিশোরদের। প্রথম ইনিংসে ব্যাটসম্যানদের উদ্ভাসিত নৈপুণ্যে ৮ উইকেটে ৪০০ রান করে ইনিংস ঘোষণা করেছিল তারা। পরে বোলাররাও দারুণ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন। সফরকারীদের প্রথম ইনিংস মাত্র ১৪৮ রানে গুটিয়ে দেয় বোলাররা। শাহাদাত হৃদয় মাত্র ৪৩ রানে ৪ উইকেট নেন। দুটি করে উইকেট নেন মুকিদুল ইসলাম ও নওশাদ ইকবাল। ফলোঅনে পড়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ক্যাব অনুর্ধ ১৭ দলের ওপর হামলে পড়েছিলেন স্বাগতিক বোলাররা। মাত্র ৪৫ রানে তিন উইকেট হারায় তারা। কিন্তু পরে এসকে বিশ্বাসের অপরাজিত ৭১ ও অর্ণব ভট্টাচার্য অপরাজিত ৪৮ রানের ইনিংস খেলে বিপর্যয় সামলান। তাদের হার নামা ১১৩ রানের জুটিতে ক্যাব ৩ উইকেটে ১৫৮ রান তোলার পর ম্যাচ ড্র মেনে নেয় উভয়দল। দুটি উইকেট নিয়েছিলেন আমিনুল ইসলাম।

আইপিএলে স্পন্সর থাকছে না পেপসি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ আইপিএলের সঙ্গে গাঁটছড়া ভাঙ্গতে চলেছে বৃহত্তর কোমল পানীয় কোম্পানি পেপসি। খবরে প্রকাশ, আইপিএলের টাইটেল স্পন্সরশিপ ছাড়তে চেয়ে ইন্ডিয়ান বোর্ডকে (বিসিসিআই) নোটিস পাঠিয়েছে পেপসি। সিদ্ধান্তের মূলে রয়েছে আইপিএলে স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারি। পেপসির সঙ্গে বিসিসিআইর ৩৯৬ কোটি রুপির চুক্তি। ২০১৩ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত মেয়াদ। অথচ কোম্পানিটি মাঝপথে সরে যেতে চাইছে! ইস্যুটি আগামী ১৮ অক্টোবর বিসিসিআইয়ের কার্যনির্বাহী সভায় তোলা হবে।

তবু টেস্ট দলে কুশল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘অফস্পিন’ থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠলেও ‘দুসরা’ ছুড়তে পারবেন না, তবু প্রতিভাবান থারিন্ডু কুশলকে নিয়েই উইন্ডিজ সিরিজের টেস্ট দল ঘোষণা করেছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। মুত্তিয়া মুরলিধরন অবসরে যাওয়ার পর সাদা পোশাকে বল হাতে লঙ্কানদের একাই টানছিলেন রঙ্গনা হেরাথ। ৩৭ পেরিয়ে ৩৮Ñএ পা দিয়েছেন বাঁহাতি অফস্পিনার। গত কয়েক সিরিজ ধরে তাই বিকল্প খুঁজছিলেন দ্বীপদেশটির নির্বাচকরা। গত ডিসেম্বরে নিউজিল্যান্ড সফরে ক্রাইস্টচার্চ টেস্টে সুযোগ করে দেয়া হয় ২১ বছর বয়সী কুশলকে। ২ উইকেট শিকারে অভিষেকটা মন্দ হয়নি।

ঘরের মাটিতে পাকিস্তান ও ভারতের কাছে টানা দুই টেস্ট সিরিজ খোয়ায় এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দল। ৫, ৪, ৮ ও ৪Ñ ২১ উইকেট নিয়ে ঠিকই আলো ছড়ান গলে জন্ম নেয়া প্রতিভাবান এই ডানহাতি অফস্পিনার। বাদসাধে এ্যাকশন। ভারত সিরিজে তার এ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। নিয়ম অনুযায়ী আইসিসিতে পরীক্ষা দেন। অফস্পিনের অনুমতি পেলেও নিষিদ্ধ থাকে ‘দুসরা’। একজন অফস্পিনারের অন্যতম সেরা অস্ত্র ‘দুসরা’ ছোড়ার সময় কুশলের কুনই এখনও অনুমোদিত ১৫ ডিগ্রী বেশি বেঁকে যায়। অবশ্য অধিনায়ক ম্যাথুস এবং ম্যানেজমেন্ট থেকে ভাল সমর্থন পাচ্ছেন তিনি। ফলে ‘দুসরা’ ছাড়াই কুশলকে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হলো।

ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজ খেলবে লঙ্কানরা। গলে প্রথম টেস্ট বুধবার থেকে। অধিনায়ক ম্যাথুস বলেন, ‘কুশল অসম্ভব প্রতিভাবান স্পিনার। মাত্র ৬ টেস্টেই ও সেটি প্রমাণ করেছে। আশা করছি সমস্যা কাটিয়ে দ্রুত দুসরাও ছুড়তে পারবে সে। আমরা ওকে সমর্থন দিয়ে যাব।’ কুশলের অন্তর্ভুক্তি ছাড়া বড় চমক ২০ বছর বয়সী উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান কুশল মেন্ডিস। দিনেশ চান্দিমালের ‘ব্যাকআপ’ হিসেবে তাকে নেয়া হয়েছে। যথারীতি অধিনায়ক এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, সহ-অধিনায়ক লাহিরু থিরিমান্নে। ঘরের মাটিতে টানা তিন সিরিজ হারের লজ্জা এড়াতে এই সিরিজটা শ্রীলঙ্কার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তার ওপর ভারত সিরিজের ব্যর্থতা মাথায় নিয়ে কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন সাবেক তারকা মারভান আতাপাত্তু।

চামিন্দা ভাস, মুত্তিয়া মুরলিধরনের অভাব এখনও পূরণ করতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। সর্বশেষ বিদায় নিয়েছেন ব্যাট হাতে দুই বড় ভরসা কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনে। সব মিলিয়ে দ্বীপদেশটির ক্রিকেট আসলেই কঠিন সময় পার করছে।

শ্রীলঙ্কা টেস্ট দল ॥ এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস (অধিনায়ক), লাহিরু থিরিমান্নে (সহ-অধিনায়ক), কুশল সিলভা, দিমুথ করুনারতেœ. দিনেশ চান্দিমাল, কুশল পেরেরা, মিলিন্দা শ্রীবর্ধনে, কুশল মেন্ডিস, রঙ্গনা হেরাথ, দিলরুয়ান পেরেরা, থারিন্ডু কুশল, ধাম্মিকা প্রসাদ, নুয়ান প্রদীপ, সুরাঙ্গা লাকমল ও দুশমন্ত চামিরা।

ইংলিশদের জন্য ‘ইয়াসির ফাঁদ’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ উপমহাদেশের কন্ডিশনে স্পিনের বিপক্ষে ইংল্যান্ড খবুই দুর্বল। কতটা দুর্বল, উদাহরণেই তা পরিষ্কার। ২০১২ সালে আরব আমিরাতে পাকিস্তানের কাছে তিন টেস্টের সিরিজে ‘হোয়াইটওয়াশ’ হয়েছিল ইংলিশরা। পাকিস্তানের দুই স্পিনার সাঈদ আজমল ও আব্দুর রেহমান নিয়েছিলেন ৪৩ উইকেট! এবার দুজনই নেই। তাই বলে এ্যালিস্টার কুকদের আনন্দে বগল বাজানোর সুযোগও নেই। তাদের জন্য তৈরি নতুন অস্ত্র। ইয়াসির শাহর লেগস্পিন দিয়েই ইংলিশদের কুপোকাত করার ছক কষছে পাকিস্তান।

‘ইয়াসির যেভাবে বল করছে, তাতে সব দলের জন্যই সে একটা হুমকি। ইংল্যান্ড সেটা জানে এবং ও নিজেও এ বিষয়ে সচেতন। অবশ্য টেস্ট একার খেলা নয়, আমাদের বাকি বোলারদের এবং ব্যাটসম্যানদের ভাল করতে হবে।’ বলেন মিসবাহ উল হক। দার্শনিক স্বভাবের বলে খুব একটা বাড়িয়ে বলেন না পাকিস্তান অধিনায়ক। তবে হালে দলটির খেলা যারা দেখেছেন তারা ভাল করেই জানেন, পাকিস্তানকে ওড়াচ্ছেন তরুণ লেগস্পিনার। আজমলের অনুপস্থিতিতে বোলিং বিভাগের মূল দায়িত্ব পালন করে আসছেন তিনি। শ্রীলঙ্কা সফরে টেস্ট সিরিজ জয়ে ২৪ উইকেট নিয়ে সামনে থেকে মূল ভূমিকা ইয়াসিরের। অভিজ্ঞ মিসবাহ সেভাবে ইয়াসিরকে হাইলাইটস করতে না চাওয়াটাও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এটা হতে পারে ইংলিশদের জন্য একটা ‘ফাঁদ’। পাক টেস্ট সেনাপতি আরও যোগ করেন,‘সম্প্রতি ইয়াসির অসাধারণ পারফর্ম করে আসছে। আমিরাতের কন্ডিশনে ওর আরও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার সুযোগ। তবে টেস্টে সফল হতে নতুন বলে আমাদের পেসারদেরও যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে।’ আমিরাতে স্পিনাররা নিয়ামক হয়ে উঠবেনÑ সেটা ইংলিশদের মাথায়ও রয়েছে। তাই তো ঘূর্ণি বলে পরীক্ষিত মঈন আলির সঙ্গে এবার আদিল রশীদকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। দুজনই পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত তুখোড় স্পিনার। নিজ দলের ব্যাটসম্যানদের মঈন এবং রশিদকে ভালভাবে সামলাতে হবে বলে উল্লেখ করেন মিসবাহ। বলেন, ‘মঈন সত্যিকারার্থেই উঁচু ৃমানের। ভারতের মতো শক্তিশালী ব্যাটিংয়ের বিপক্ষেও ও ভাল করেছে। সুতরাং আমাদের ব্যাটসম্যানদের সতর্ক থাকতে হবে। ওর বোলিংয়ে ভেরিয়েশন রয়েছে।’

সেমিতে রাদওয়ানস্কা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সঠিক পথেই এগুচ্ছেন এ্যাগ্নিয়েস্কা রাদওয়ানস্কা। দুর্দান্ত খেলেই চায়না ওপেনের সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছেন নিজেকে। শুক্রবার টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে পোল্যান্ডের এই টেনিস তারকা ৬-১ এবং ৬-৪ গেমে হারান জার্মানির এ্যাঞ্জেলিক কারবারকে। আর অন্য ম্যাচে ইতালির সারা ইরানিকে হারিয়ে চায়না ওপেনের শেষ চারের টিকিট নিশ্চিত করেছেন সুইজারল্যান্ডের টিমিয়া বাসিসনস্কি।

চায়না ওপেনের আগে দশবার একে অন্যের মুখোমুখি হয়েছিলেন রাদওয়ানস্কা এবং কারবার। ফলাফল ছিল সমানে সমান। তবে শেষ দুইবারের মোকাবেলায় এ্যাঞ্জেলিক কারবারই জয়ের হাসি হেসেছিলেন। যে কারণে চায়না ওপেন ছিল রাদওয়ানস্কার জন্য চ্যালেঞ্জিং। শেষ পর্যন্ত সেই চ্যালেঞ্জ দারুণভাবেই জিতলেন তিনি। কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইয়ে এদিন পোলিশ তারকা মাত্র ২৬ মিনিটেই প্রথম সেট জিতে নেন। তবে দ্বিতীয় সেটে জয় পেতে রীতিমতো ঘামই ঝরাতে হয়েছে তাকে। এ মাসের শেষেই সিঙ্গাপুরে শুরু হবে বছরের শেষ টুর্নামেন্ট ডব্লিউটিএ ফাইনালস। সেখানে বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ আট খেলোয়াড় পারফরমেন্স করার সুযোগ পাবেন। আর রাদওয়ানস্কা মাত্র দু’টি জয় পেলেই সেখানে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবেন।

গত কয়েক মৌসুম ধরেই পাদপ্রদীপের আলোয় অবস্থান করছেন রাদওয়ানস্কা। কিন্তু দুর্ভাগ্য এই তারকার। এখন পর্যন্ত কোন মেজর শিরোপা জিততে পারেননি তিনি। গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্টে তার সর্বোচ্চ অর্জন ফাইনাল। ২০১২ সালে উইম্বলডনের ফাইনালে উঠেছিলেন তিনি। কিন্তু সেবার আমেরিকান তারকা সেরেনা উইলিয়ামসের কাছে হেরে স্বপ্ন-ভঙ্গ হয় তার। এরপর থেকেই গ্র্যান্ডসøামের ফাইনাল জয়ের স্বপ্নে বিভোর এই পোলিশ তারকা। কিন্তু বারবারই ব্যর্থ হয়েছেন। তবে ২৬ বছর বয়সী রাদওয়ানস্কার এখন লক্ষ্য শুধুই ডব্লিউটিএ ফাইনালস খেলা। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মৌসুমে উত্থান-পতন থাকাটা স্বাভাবিক। তবে এই মৌসুমের শুরুতে আমার খুবই বাজে সময় কেটেছে। আমি যেভাবে চেয়েছি ঠিক তেমন ফলাফল কখনোই পাইনি। যা আমার জন্য খুবই হতাশার। তবে এখন ডব্লিউটিএ ফাইনালস খেলাটাই মূল লক্ষ্য। এখনও সেখানে খেলার সুযোগ আছে আমার। যে কারণে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি নিয়তিমই।’