২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজশাহী নগর উন্নয়নে মহাপরিকল্পনা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ আওতা বাড়িয়ে নগর উন্নয়নে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (আরডিএ) মহাকর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। রাজশাহী মহানগরীর আশপাশের ২টি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়ন পরিষদের ৩৬৪ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে এ কর্মপরিকল্পনা তৈরি করেছে আরডিএ। আগামী ২০ বছরের জন্য এ কর্মপরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় আরডিএ ভবনে আলোচনা সভায় আরডিএ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ বজলুল রহমান এ কর্মপরিকল্পনার কথা জানান। সভায় জানানো হয়, রাজশাহী শহর ও এর আশপাশের এলাকায় পরিকল্পিত উন্নয়নের জন্য ১৯৭৬ সালে শহর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠিত হয়। শুরুতে এ কর্তৃপক্ষের আওতাধীন এলাকা ছিল ১২৭ বর্গ কিলোমিটার। যা বর্তমানে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬৪ দশমিক ১৯ বর্গকিলোমিটার। এ এরিয়ার মধ্যেই শুধু মহানগর নেই আছে পাশের নওহাটা ও কাটাখালী পৌরসভা। এছাড়াও আশে ১২টি ইউনিয়ন পরিষদ। এসব ইউনিয়ন পরিষদ হচ্ছে পবার হরিপুর, দামকুড়া, হড়গ্রাম, ইউসুফপুর, বেলপুকুর, বানেশ্বর, সরদহ, সালুয়া, হুজুরিপাড়া, বড়গাছি, পারিলা ও হরিয়ান। আরডিএ চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ বজলুল রহমান বলেন, দেশের অন্য কোন শহরের তুলনায় রাজশাহী মহানগরী ও তার আশপাশের এলাকা অনেক গোছানো। কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়ে কাজ করা হয় বলেই রাজশাহীকে সাজানো সম্ভব হয়েছে। রাজশাহীর আশপাশের এলাকাগুলো এবারে মহাপরিকল্পনার আওতায় আনা হয়েছে। রাজশাহী নগরীর সঙ্গে মিল রেখে আশপাশের এলাকাগুলোকে এগিয়ে নেয়ার জন্য এ পরিকল্পনা করা হয়েছে। রাজশাহী নগরীর বাইরের তালিকাভুক্ত পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদগুলো নিয়ে কিভাবে মহাপরিকল্পনার কাজ করা যাবে তা নিয়ে আলোচনা করাই ছিল এ সভার মূল লক্ষ্য।

সভায় অন্যদের মধ্যে রাসিকের নির্বাহী প্রকৌশলী গোলাম মুর্শেদ, গবেষণা কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান, পুঠিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম, নওহাটা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র শফিকুল ইসলাম, দর্শনপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান রমজান আলী, হরিপুরের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, হরিয়ানের চেয়ারম্যান মফিদুল ইসলাম বাচ্চু, সরদহের চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান মধু, হুজুরিপাড়ার চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, বড়গাছির চেয়ারম্যান সোহেল রানা, দামকুড়ার চেয়ারম্যান শাহজাহান আলী, শালুয়ার চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান ও বানেশ্বরের চেয়ারম্যান সুলতান আলী। চেয়ারম্যানরা তাদের মতামত তুলে ধরেন।