২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিন বদলের হাওয়ায় বেদেরাও

বদলে যাচ্ছে বেদে সমাজ। অর্থনৈতিক অবস্থা তো বটেই; চিন্তা-আচরণে ঘটেছে বড় ধরনের পরিবর্তন। শত শত বছর ধরে টিকে থাকা যাযাবর বৃত্তি মানসিকতার জায়গায় এখন থিতু হওয়ার বাসনা। পেশাগত দিক থেকেও ঘটছে পরিবর্তন। অনেকেই পৈত্রিক পেশা ছেড়ে ঝুঁকছে অন্য পেশায়। আর বদলে যাওয়ার নিয়ামক হয়ে উঠছে শিক্ষা। শিক্ষার গুরুত্ব এখন প্রবলভাবে অনুভব করছে প্রত্যেক বেদে। একজন দু’জন করে বাড়ছে শিক্ষিতের হার। পরিবর্তিত বেদে সমাজের প্রতীক লৌহজং উপজেলার কনকসার গ্রামের মাজেদা আক্তার মুনা ও আজমিরা আক্তার কনা। তারা দু’বোন শ্রীনগর সরকারী কলেজে স্নাতকের ছাত্রী। মুনা ৩য় বর্ষ এবং কণা ২য় বর্ষে। লৌহজংয়ের কনকসার থেকে পাশের উপজেলার সরকারী কলেজে ক্লাস করছে নিয়মিত। লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ ইউপির এক নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য বেদে সম্প্রদায়ের সাহেব আলী ২০০৩ সাল থেকে এখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি এখন মূল পেশা ছেড়ে দিয়ে ব্যবসা করছেন। পাশের হলুদিয়া বাজারে হাসান-হোসাইন স্টোরের মালিক তিনি। তিনি পড়ালেখা না জানলেও তাঁর তিন সন্তানই স্কুলে যাচ্ছে। বড় মেয়ে স্মৃতি আক্তার হলদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। দ্বিতীয় মেয়ে জান্নাতি আক্তার খড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী। একই বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্রী ছোট মেয়ে নুর আক্তার পারিখা। স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন। সাবিনা ইয়াসমিনের নানী চুরি বিক্রি করতেন।

পুরনো পেশা ছেড়ে অনেকেই বাজারে টেইলারিং, মুদি দোকান, কসমেটিকস দোকান খুলেছে। অনেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরিও করছে।

বেদে সম্প্রদায়ের অনেকের ঘরেই এখন কম্পিউটার ও টিভিসহ নানা আধুনিক সামগ্রী। কম্পিউটারের ওপরও অনেকে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। খড়িয়া গ্রামের শাকিল আহম্মেদ লৌহজং ডিগ্রী কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র। একই গ্রামের সালমা আক্তার এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে হলদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে। ভর্তি হয়েছে লৌহজং কলেজে। মুন্সীগঞ্জ শহরের ইসলামপুরে ধলেশ্বরীর শাখা কালিদাস নদীতে এখনও বহু পরিবার নৌকায় বসবাস করে। এদের বেশিরভাগই এখনও বেদে হয়ে রয়েছে। কিন্তু বেদে ব্যবসা এখন মন্দার কোলে। মানুষ সচেতন হয়েছে। তাই ঝাড়ফুঁক তারা বিশ্বাস করতে চায় না।

সরদার বাচ্চু মাদবর বলেন, চোখের সামনে অনেক পরিবর্তন ঘটেছে। পুরো সমাজেই যখন পরিবর্তন ঘটছে, তখন এর প্রভাব আমাদের ওপরে পড়বে সেটাই স্বাভাবিক। মানুষ আর তাবিজ-কবজ বিশ্বাস করতে চায় না।

Ñমীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল মুন্সীগঞ্জ থেকে

নির্বাচিত সংবাদ