২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সরকারি গেজেট কাগজে ছাপানো বন্ধ করেছে ভারত

সরকারি গেজেট কাগজে ছাপানো বন্ধ করেছে ভারত

অনলাইন ডেস্ক ॥ তথ্য প্রযুক্তির আধুনিকায়নের ই গেজেট প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে এবার কাগজে গেজেট প্রকাশ বন্ধ করে দিয়েছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রটি। ২৯টি প্রদেশ এবং একশ কোটির বেশি মানুষের দেশ ভারতে প্রতিবছর সরকারি বিভিন্ন প্রজ্ঞাপন বা গেজেট প্রকাশে কাগজ লাগত ৯০ মেট্রিক টন, যাতে খরচ ছিল ৪০ কোটি রুপি।

শুধু অর্থের সাশ্রয়ই নয়, কাগজে ছাপানোর কাজের জন্য গাছ কাটা, রং ও রাসায়নিক ব্যবহার করে পরিবেশবান্ধব হতেই এই পদক্ষেপ বলে সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে টাইমস অফ ইন্ডিয়া জানিয়েছে।

বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ই-গভর্নেন্স চালু করেছে। সরকারি বিভিন্ন আদেশ, দরপত্র এখন অনলাইনে হচ্ছে।

ভারত ২০০৮ সালে গেজেট অনলাইনে প্রকাশ শুরু করে। তবে কাগজে ছাপা বন্ধ করেনি।

ভারতের নগর উন্নয়নমন্ত্রী এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু সম্প্রতি এক আদেশে সরকারি প্রজ্ঞাপন কাগজে ছাপানো বন্ধ করতে বলেন।

তার ওই আদেশ অনুসরণ করে আগামী ১ অক্টোবর থেকে সব প্রজ্ঞাপন ছাপানো বন্ধ করা হয়েছে বলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

“ই-পাবলিশিং শুরু করেছি আমরা। আগে একই জিনিস ছাপাতে সপ্তাহ, এমনকি মাসও লেগে যেত,” টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেন মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র।

নগর উন্নয়ন মন্ত্রণালয় সম্প্রতি মুদ্রণ বিভাগকে দেরি না করে পাঁচ দিনের মধ্যে সব ধরনের গেজেট কাগজে ছাপানো বন্ধ করে অনলাইনে প্রকাশের নির্দেশ দেয়।

যে কোনো ভারতীয় বিনামূল্যে অনলাইন থেকে এসব গেজেট ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। আর মুদ্রণ বিভাগও এসব গেজেট সংরক্ষণ করবে।

সরকারি কাজের সঙ্গে ভারতের পার্লামেন্টেও একইভাবে কাগজের কাজ বন্ধ করতে বলছেন অনেকে।

এক কর্মকর্তা টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেন, পার্লামেন্ট সদস্যদের প্রচুর প্রশ্ন আসে মন্ত্রীদের কাছে। অনেক সময় একই প্রশ্ন করেন একাধিক সদস্য। সবগুলোর আবার উত্তর হয়। সব কাগজে ছাপাতে হয়। এটা অর্থের নিদারুণ অপচয়।

তিনি বলেন, তার চেয়ে এসব প্রশ্ন ই-মেইলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকে এবং উত্তর ই-মেইলে সংশ্লিষ্ট পার্লামেন্টে সদস্যকে পাঠানোর ব্যবস্থা করা এবং উত্তর ইলেকট্রনিক বোর্ডের মাধ্যমে প্রদর্শন করা যায় সব সদস্যের জন্য।