১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফ্রান্সের টিকিট কাটল স্পেন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স লীগের গুরুত্বপুর্ণ ম্যাচে লুক্সেমবার্গের মুখোমুখি হয়েছিল টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন স্পেন। আর সেই ম্যাচে তারা ৪-০ গোলে উড়িয়ে দেয় প্রতিপক্ষকে। সেইসঙ্গে আগামী বছর ফ্রান্সে অনুষ্ঠিতব্য ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশীপের টিকিটও নিশ্চিত করেছে ইউরো-বিশ্বকাপ-ইউরোপজয়ী স্পেন। লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে এদিন সান্টি কাজোরলা এবং পাকো আলকাসের প্রত্যেকেই দুটি করে গোল করেন। এই জয়ের সৌজন্যে নয় ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থেকেই গ্রুপ-‘সি’র একমাত্র দল হিসেবে চূড়ান্ত পর্বের টিকিট নিশ্চিত করেছে স্প্যানিশরা। এই গ্রুপে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে পরের দুটি স্থানে অবস্থান করছে যথাক্রমে স্লোভাকিয়া ও ইউক্রেন। বাছাইপর্বের শেষ ম্যাচে আগামী সোমবার কিয়েভে স্বাগতিক ইউক্রেনের মুখোমুখি হবে ভিসেন্তে দেল বস্কের দল।

লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে বড় জয় পেলেও এদিনের উৎসবটা অনেকটাই ক্ষীন হয়ে গেছে স্পেনের। কেননা দলের দুই তারকা ডেভিড সিলভা ও আলাভারো মোরাতা ইনজুরিতে পড়েছেন। বাছাইপর্বের গুরুত্বপুর্ণ ম্যাচে এদিন ইনজুরির কারণে স্বাগতিকরা প্রথমবারের মত রিয়াল মাদ্রিদের তারকা ফুটবলার সার্জিও রামোসকে ছাড়াই মাঠে নেমেছিল স্পেন। আর ম্যাচ শুরুর মাত্র ১০ মিনিটেই গোঁড়ালির ইনজুরির কারণে মাঠ থেকে ছিটকে পড়েন সিলভা। যা অনেকটাই ভাবিয়ে তুলে স্প্যানিশ কোচ দেল বস্ককে। সিলভার এই ইনজুরিতে শুধুমাত্র স্পেন নয় প্রিমিয়ার লীগে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত শীর্ষে থাকা ম্যানচেস্টার সিটিও দু:শ্চিন্তায় পড়লো। শুধু তাই নয়, প্রথমার্দের ৩৩ মিনিটে লুক্সেমবার্গের ডিফেন্ডারের সাথে ধাক্কা লাগায় আলভারো মোরাতা মাঠ ত্যাগ করলে স্পেনের গতি আবারও বাঁধাগ্রস্থ হয়। স্প্যানিশ গণমাধ্যমের রিপোর্টের সূত্রে পরে জানা যায় জুভেন্টাসের এই স্ট্রাইকারকে পরবর্তী পরীক্ষার জন্য তাৎক্ষনিকভাবে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এই স্ট্রাইকারের পরিবর্তে মাঠে নামেন আলকাসের। যদিও ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে এবারের মৌসুমটা খুব একটা ভাল কাটেনি এই স্প্যানিশ স্ট্রাইকারের। তবে লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে বিরতিতে যাওয়ার পাঁচ মিনিট আগে স্পেনকে এগিয়ে দেন কাজোরলা। পেড্রো রড্রিগুয়েজের শট দারুন দক্ষতায় আটকে দিয়ে জোনাথন জুবার্ট লুক্সেমবার্গকে রক্ষা করলেও ফিরতি বলে কাজোরলা দুর্দান্ত এক গোল করে স্পেনকে এগিয়ে দেন। এরপর এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। দ্বিতীয়ার্ধের ৬৭ মিনিটে চেস ফ্যাব্রেগাসের বাড়ানো বলে আলকাসের ব্যবধান দ্বিগুন করেন। শুধু তাই নয়, ম্যাচের ৮০ মিনিটে নোলিটোর পাসে নিজের দ্বিতীয় গোল পূর্ণ করেন আলকাসের। বাছাইপর্বে নয় ম্যাচে এটি ছিল আলকাসেরের ষষ্ঠ গোল। তবে ৮৫ মিনিটে কাজোরলার দূর্দান্ত গোল স্পেনের জয় নিশ্চিত করার পাশাপাশি ম্যাচের সেরা গোলের খেতাবও অর্জন করে।