২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিরীয় বিদ্রোহীদের প্রশিক্ষণ বন্ধ করল ওবামা প্রশাসন

  • আল কায়েদার কাছে অস্ত্র ও সামরিক সরঞ্জাম হস্তান্তর করেছে একটি ইউনিট

ওবামা প্রশাসন শুক্রবার ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সিরীয় বিদ্রোহীদের প্রশিক্ষণদানের ক্ষতিকর প্রচেষ্টা থেকে সরে এসেছে। এর পরিবর্তে পেন্টাগন বর্তমান বিদ্রোহী ইউনিটগুলোকে সরাসরি সাহায্যদানের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে। ওবামা প্রশাসন মনে করছে এর ফলে জঙ্গীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাফল্য লাভে অধিকতর সম্ভাবনা রয়েছে। এই সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে এ বছরের প্রথম দিকে শুরু করা একটি কর্মসূচীর উপর্যুপরি ব্যর্থতার বিষয়টি স্বীকার করে নেয়া হলো। অতি সম্প্রতি নব প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত যোদ্ধারা প্রতিদ্বন্দ্বী বাহিনীগুলোর হামলার শিকার হয়। যারা সিরীয় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বিরুদ্ধে একটি পৃথক বড় ধরনের হামলায় নিয়োজিত ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত একটি ইউনিট ওয়াশিংটন প্রদত্ত অস্ত্র ও সামরিক সাজসরঞ্জাম আল কায়েদার স্থানীয় শাখার কাছে হস্তান্তর করেছে।

মার্কিন কর্মকর্তাদের আশা, সংশোধিত পরিকল্পনা সিরীয় কুর্দি যোদ্ধাদের মিত্র আরব বাহিনীগুলোকে সাহায্য করবে। এতে করে উত্তর-পূর্ব সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে কুর্দিদের সাফল্যের পুনরাবৃত্তি ঘটবে এবং শেষ পর্যন্ত সিরিয়ায় চরমপন্থী গোষ্ঠীর কার্যত রাজধানী রাকাতে তাদের বিচ্ছিন্ন করে ফেলা যাবে। প্রতিরক্ষা নীতি বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি ক্রিশ্চিনই ওরমুথ সাংবাদিকদের বলেন, বস্তুত আমরা যা করার চেষ্টা করছি তাহলো আমাদের জন্য যা কার্যকর হয়েছে। তাকে ভিত্তি করে শক্তি বৃদ্ধি করা এবং আমাদের জন্য যথেষ্ট চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করেছে এমন কিছু বিষয় থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা। এরমুথ বলেন, এ বছরের গোড়ার দিকে শুরু করা প্রশিক্ষণ কর্মসূচী বাতিল করা হয়নি তবে তা কার্যকর কারার ক্ষেত্রে সাময়িক বিরতি টানা হয়েছে এবং ভবিষ্যতে তা আবার শুরু করা হতে পারে।

এই পদক্ষেপ সিরিয়ার দীর্ঘায়িত স্থলযুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সংশ্লিষ্টতা সম্প্রসারিত করার একটি লক্ষণ এবং এটি ওবামা প্রশাসনকে বৃহত্তর ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিতে পারে যদি ব্যাপক বিদ্রোহী ইউনিটসমূহকে পদত্ত অস্ত্রশস্ত্র অনাকাক্সিক্ষত হাতে চলে যায় কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তাপুষ্ট যোদ্ধারা আমাদের প্রতি অনুগত বাহিনী এবং তার মিত্রদের হামলার শিকার হয়।

বিগত বছরের অনেকটা সময়জুড়ে মার্কিন সামরিক কর্মকর্তারা পেন্টাগনের মূল প্রশিক্ষণ কর্মসূচীকে কার্যকর রাখতে জোর প্রয়াস চালিয়েছেন। প্রাথমিক পরিকল্পনায় সামরিক বাহিনী সিরীয়দের যাচাই বাছাই করে। তাদের দেশের বাইরে নিয়ে যায় এবং তুরস্ক অথবা জর্দানে তাদের কয়েক সপ্তাহব্যাপী প্রশিক্ষণ কোর্সে নিয়োজিত করে। তবে এক্ষেত্রে যোগ্য প্রার্থী পাওয়া কঠিন, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রের এই চাহিদা অনুযায়ী যে, তারা শুধু আইএসের বিরুদ্ধে লড়াই করবে আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে নয় এবং একবার তারা সিরিয়া ফিরে গেলে তাদের খোঁজ পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে।

নতুন পরিকল্পনার অবদান ইতোমধ্যে আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিভিন্ন গোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দকে যাচাই-বাছাইয়ের মধ্যে যেতে হবে এবং তাদের মানবাধিকার এবং রণক্ষেত্রের যোগাযোগ ব্যবস্থার উপর একটি সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণ নিতে হবে। কর্মকর্তারা বলেছেন, তাদের অনেকে ইতোমধ্যে সিরিয়ার বাইরে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছে। -ওয়াশিংটন পোস্ট