১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এবার বরিশালে শিশুকে খুঁটির সঙ্গে ঝুলিয়ে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ এবার বরিশালে ১২ বছরের শিশুকে হাত-পা বেঁধে খুঁটির সঙ্গে ঝুলিয়ে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাছের আড়ৎ থেকে ৬০ হাজার টাকা চুরির অভিযোগে শিশুটির ওপর এ নির্যাতন চালানো হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় শিশু রবিউল মোল্লাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় শনিবার সকালে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উজিরপুরের প্রত্যন্ত হারতা বাজারে।

এজাহারে জানা গেছে, হারতা গ্রামের মজনু মোল্লার ছেলে শিশু রবিউল পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অভিমান করে বৃহস্পতিবার রাতে চাচা ইউসুফ মোল্লার হারতা বাজারে মাছের আড়তে ঘুমাতে যায়। মধ্যরাতে রবিউল প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাইরে বের হওয়ার পরপরই স্থানীয় প্রভাবশালী মাছের আড়তদার সোবাহান বেপারীর ছেলে খোকন বেপারী, আজিজ আকনের ছেলে তারিক আকন, অমূল্য মালের ছেলে শ্যামল মালসহ ৫/৬ জনে রবিউলকে ধরে নিয়ে যায়। সোবাহান বেপারীর মাছের আড়ত থেকে ৬০ হাজার টাকা চুরি করার অভিযোগ এনে রবিউলের হাত ও পা বেঁধে বাজারের একটি খুঁটির সঙ্গে ঝুঁলিয়ে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

আহত রবিউলের চাচা ইউসুফ মোল্লা জানান, পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অভিমান করে বৃহস্পতিবার রাতে রবিউল তার মাছের আড়তে এসে ঘুমিয়েছিল। শুক্রবার ভোরে তিনি বাজারে এসে রবিউলকে একটি খুঁটির সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় হাত-পা বাঁধা দেখেন। পরবর্তীতে তাৎক্ষণিক তিনি স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুস সোবাহানের সহযোগিতায় রবিউলকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা করান। সন্ধ্যায় শিশু রবিউলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

অমানুষিক নির্যাতনের সত্যতা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ডা. হরেন রায় জানান, শিশু রবিউলের ওপর চালানো নির্যাতন মধ্যযুগীয় নির্যাতনকেও হার মানিয়েছে। তিনি নির্যাতনকারীদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতারের জন্য প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সব্যসাচী দাস জানান, শিশু রবিউলের শরীরের বিভিন্ন স্থানে প্রচুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষায় শরীরের মধ্যে গুরুতর আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। দু’পায়ের হাঁটু ও ঊরুতে মারাত্মক আঘাত লেগেছে।

এ ব্যাপারে উজিরপুর মডেল থানার ওসি মোঃ নুরুল ইসলাম পিপিএম জানান, শিশু নির্যাতনের খবর পেয়ে শুক্রবার রাতেই তিনি হাসপাতাল পরিদর্শন করে নির্যাতিত রবিউলের সার্বিক চিকিৎসার খোঁজখবর নিয়েছেন। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় শিশু রবিউলের চাচা ইউসুফ মোল্লা বাদী হয়ে ছয়জনকে আসামি করে শনিবার সকালে মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান চলছে বলেও ওসি উল্লেখ করেন।