২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাতীয় দলের প্রতি ভালবাসা একটুও কমেনি ॥ পিকে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আগামী ইউরো নিশ্চিত করে ফেলেছে স্পেন। লুক্সেমবার্গকে লা রোজারা ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করে এ সাফল্য লাভ করে। দেশের ফুটবল ভক্ত-সমর্থকরা অবশ্য দলের বার্সিলোনা ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকেকে নিয়ে বেশ ঠাট্টা-তামাশা করেছে। কিন্তু এরপরও পিকে জানিয়েছেন জাতীয় দলের প্রতি তার অনুরাগ বিন্দুমাত্র কমেনি। গত মৌসুমে বার্সার ট্রেবল জয়ের পর মৌসুম শেষের আনন্দ উদ্যাপনের সময় রিয়াল মাদ্রিদকে নিয়ে বিরূপ কটাক্ষ করার পর থেকেই স্পেনের অনেক ফুটবল সমর্থকদের নিন্দার সম্মুখীন হয়েছেন। পিকের বিষয়ে অবশ্য স্পেন কোচ ভিসেন্তে দেল বস্ক এবং সতীর্থরা বেশ কয়েকবার ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন এবং স্পেনের দর্শকদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর পর থেকেই পিকে দুয়োধ্বনি শুনেছেন। তার বিপক্ষে অনেক দর্শক ক্ষিপ্ত বাক্যবাণ ছুড়েছেন। তবে ম্যাচ গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে পিকের পক্ষেও চিৎকার করেছেন দর্শকরা, থেমে গেছে দুয়োধ্বনি। এ বিষয়ে পিকে পরবর্তীতে বলেন, ‘প্রবণতাটা পরিবর্তন হচ্ছে। সমালোচনা ও দুয়োধ্বনি অনেক তীব্র ছিল পরবর্তীতে যে প্রশংসা হয়েছে সেটার চেয়ে। কিন্তু এরপরও এটা তো ধীরে ধীরে ভালর দিকে যাচ্ছে। আমি কোন মুহূর্তেই জাতীয় দল বা দেশের জন্য নেতিবাচক কোন শব্দ উচ্চারণ করিনি। আর সেটা কখনও আমি করব না, করতে পারবও না।’ ২৮ বছর বয়সী পিকে স্পেনে বেশ মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছেন। বিশেষ করে কাতালানের স্বাধীনতার পক্ষে নিজের প্রচারাভিযান চালানো এবং কলম্বিয়ান পপ তারকা শাকিরাকে জীবনসঙ্গী করার জন্য। তিনি বিশ্বাস করেন কাতালান ইস্যুতে কখনও স্পেনের দর্শকরা তার বিরুদ্ধে বিরূপ আচরণ করেননি। কারণ স্পেন দলে অন্য কাতালান ফুটবলারদের বিরুদ্ধে কখনও দর্শকরা বিন্দুমাত্র কিছু বলেননি। এ বিষয়ে পিকে বলেন, ‘এই আমার দেশ এবং জন্মভূমি। এখানকার মানুষ আমার পরিবার। আমি প্রথম যখন দলে ডাক পেয়েছি তখনই এখানে এসেছি এবং তখন থেকে আছি। তারা সবসময় আমাকে উষ্ণভাবেই গ্রহণ করেছেন এবং চমৎকার আচরণ করেছেন।’ পিকে ২০০৯ সাল থেকে স্পেনের হয়ে খেলছেন। জাতীয় দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ও অপরিহার্য এ ডিফেন্ডার গত ৬ বছরে ৭২ ম্যাচ খেলেছেন জাতীয় দলের জার্সি গায়ে এবং ৪ গোল করেছেন। এখন পর্যন্ত তিনি নিয়মিত সদস্য স্পেন ফুটবল দলের। এ বিষয়ে পিকে বলেন, ‘তারা কখনই আমার সামর্থ্য ও যোগ্যতা নিয়ে সন্দিহান নয়। আর জাতীয় দল আমার একটা অংশ। আমি আশা করছি এসব কিছুর সমাপ্তি ঘটবে এবং তারা শুধু ফুটবল নিয়েই কথা বলবেন। আমি এটা নিশ্চিত করতে পারি স্পেনের জন্য যে অনুরাগ সেটা কখনই কমবে না আমার।’