২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বামী-স্ত্রীর পাল্টাপাল্টি শিশুটিকে হত্যার অভিযোগ

স্বামী-স্ত্রীর পাল্টাপাল্টি শিশুটিকে হত্যার অভিযোগ

স্টাফরির্পোটার,নীলফামারী॥ মনোয়ার হোসেন নামের দুই বছরের শিশুর পানিতে পড়ে মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিয়ে বিচ্ছেদের কারনে ওই শিশুটির পিতা ও মাতার শিশুটির হত্যা পাল্টাপাল্টি অভিযোগে পুলিশ আজ রবিবার দুপুর ১২টায় নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের তিস্তা নদীর ওপারে উত্তর খড়িবাড়ি চর গ্রাম থেকে উদ্ধার করেছে। বিকালে জেলার মর্গে শিশুটির লাশের ময়না তদন্ত করা হবে বলে পুলিশ জানায়।

সুত্র মতে ওই চরের রহিম বাদশার মেয়ে মনি বেগমের সাথে একই এলাকার মৃত মালেক বেপারীর ছেলে খয়বর আলীর বিয়ে হয়েছিল ৫ বছর আগে। তাদের সংসারে একমাত্র পুত্র সন্তান ছিল মনোয়ার হোসেন। সম্প্রতি পারিবারিক কলহে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটে। বিয়ে বিচ্ছেদের পর এক মাত্র সন্তান মনোয়ারকে স্থানীয় সমাজপতিরা ডিমলা থানা পুলিশের মাধ্যমে সন্তানটিকে তার মায়ের হেফাজতে দেয়া দিয়েছিল। সেই থেকে সন্তানটিকে নিয়ে মনি বেগম তার পিতা রহিম বাদশার বাড়িতে বসবাস করে আসছে। এ অবস্থায় শনিবার (১০ অক্টোবর) সকাল ১১টায় শিশু মনোয়ার হোসেন নিখোঁজ হয়। শিশুটিকে তার মা ও নানা সহ এলাকাবাসী বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকে। এক পর্যায় এলাকাবাসী দুপুর আড়াইটার দিকে শিশুটির লাশ ওই চরের একটি ডোবায় ভাসতে দেখে উদ্ধার করে। বিষয়টি শিশুটির পিতা খয়বর আলীকে জানানো হলে সে তার সন্তান কে পরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ তুলে বিচ্ছেদ হওয়া স্ত্রীর বিরুদ্ধে। অপর দিকে মনি বেগমও পাল্টা অভিযোগ তুলে বিচ্ছেদকৃত স্বামীর বিরুদ্ধে। এলাকাবাসী বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হলে রাতেই ঘটনাটি পুলিশ কে অবগত করে।

ডিমলা থানার ওসি রুহুল আমিন খান জানান এলাকাটি দূর্গম হওয়া আজ রবিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে দুপুর ১২টায় ডিমলা থানায় নিয়ে আসা হয়। এখন আজ বিকালের মধ্যে জেলার মর্গে লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করার প্রক্রিয়া করা হয়েছে। তিনি বলেন প্রাথমিক ভাবে একটি ইইডি মামলা করা হয়। ময়না তদন্তের রির্পোটের পর পরবর্তি পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।