২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ওয়ানডেতেও হার দিয়ে শুরু ভারতের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ তিন ম্যাচের টি২০ ২-০তে হারের পর এবার ওয়ানডেতেও ব্যর্থতা দিয়ে শুরু ভারতের। সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৫ রানে হেরে গেল মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। ফলে পাঁচ ওয়ানডের সিরিজে ০-১এ পিছিয়ে পড়ল ক্রিকেটের মোড়লরা। কানপুরে হাই-স্কোরিং ম্যাচে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ৩০৩ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে প্রোটিয়ারা। জবাবে ৭ উইকেটে ২৯৮-এ থামে ভারতের ইনিংস। বিফলে যায় রোহিত শর্মার ১৫০ রানের দুরন্ত ইনিংস। অপরাজিত ১০৪ রান করে ম্যাচসেরা দ.আফ্রিকা অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স। ইন্দোরে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে বুধবার।

হারের দায় মাথায় নিয়ে সতীর্থ রোহিতের কাছে অধিনায়ক ধোনির হয়ত ক্ষমাই চাওয়া উচিত! ১৩৩ বলে ১৫০ রানের অসাধারণ এক ইনিংস উপহার দিয়ে দলকে জয়ের জন্য ভাল জায়গায় পৌঁছে দেন ওয়ানডেতে দু-দু’টি ডাবল সেঞ্চুরির মালিক। ৪৬তম ওভারে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে রোহিত যখন আউট হন, ৩ উইকেটে ভারতের রান তখন ২৬৯। জয়ের জন্য ২৪ বলে চাই ৩৫ রান। হাতে ৭ উইকেট। ক্রিজে ধোনির সঙ্গী রায়না। এরপরও ভারত ম্যাচটা হারতে পারে? দলটির অতি বড় সমালোচকেরও এটা মেনে নিতে কষ্ট হবে। ধোনি নাকি আধুনিক ওয়ানডের সেরা ফিনিশার- ৩০ বলে ৩১ রান করে সাজঘরে ভারত অধিনায়ক! শক্ত ভীত পেয়েও দাঁড়াতে পারলেন না সুরেশ রায়না (৩) আর স্টুয়ার্ট বিনি (২)।

এমন কি ৫ উইকেট অক্ষত থাকার পরও কাগিসো রাবাদর শেষ ওভার থেকে ১১ রান নিতে ব্যর্থ ধোনি-বিনিরা! দু’জন ফিরলেন আউট হয়ে, আর শেষ জুটি ভুবনেশ্বর কুমার (১*)-অমিত মিশ্র (০*) মাথা নিচু করে। দলকে জয়ের পথে তুলে দিয়েও হার দেখতে হলো রোহিত (১৫০)-অজিঙ্কা রাহানেদের (৬০)। ধোনির ঘণ্টা বুঝি আসলেই বাজল! এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফাইটিং স্কোর এনে দেয়ার রূপকার ডি ভিলিয়ার্স। প্রোটিয়া অধিনায়ক আরও একবার ভারতীয় বোলিংয়ের সামনে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেন। সেঞ্চুরির পথে ৫৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি ছোঁয়ার পর সেঞ্চুরিতে পৌঁছান পরের ১৯ বলে! ৭৩ বলে ৫ চারের সঙ্গে ছক্কা হাঁকিয়েছেন ৬টি। এ নিয়ে ভারতের বিপক্ষে নিজের শেষ দশ ইনিংসের সাতটিতেই পঞ্চাশোর্ধ রানের ইনিংস খেললেন। সঙ্গে টি২০ অধিনায়ক ফ্যাফ ডুপ্লেসিস ৭৭ বলে ৬২, শেষ দিকে ফারহান বিহারদিয়ান ১৯ বলে অপরাজিত ৩৫ এবং ওপেনিংয়ে আমলার ৩৭ সফরকারীদের বড় সংগ্রহ এনে দেয়। ভারতের হয়ে পেসার উমেশ যাদব ও স্পিনার অমিত মিশ্র নেন ২টি করে উইকেট।

এটিকে ওয়ানডে ক্রিকেটের অন্যতম আকর্ষণীয় ম্যাচ বলে অভিহিত করেন বিজয়ী অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স। ম্যাচের নায়ক বলেন, ‘আমার মনে হয় ওয়ানডের অন্যতম আকর্ষণীয় ম্যাচ এটি। দর্শক এমন নাটকীয় ম্যাচ দেখে নিশ্চই আনন্দ পেয়েছে! এটা ঠিক রোহিত আউট হওয়ার পরও ম্যাচ আমাদের হাতে ছিল না। কিন্তু শেষ দিকে ইমরান তাহির (২/৫৭) ও কাগিসো রাবাদা (২/৫৮) সত্যি অসাধারণ বোলিং করেছে। বিশেষ করে রায়না ও ধোনিকে তুলে নেয়া। তবে আমাদের অতি উচ্ছ্বাসে ভেসে গেলে চলবে না। কারণ সিরিজে এখনো চারটি ম্যাচ বাকি রয়েছে।’ অন্যদিকে হারের জন্য বল দেরিতে ব্যাটে আসাকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেন ধোনি!

ভারত অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা শেষ পর্যন্ত টেম্পারমেন্ট ধরে রাখতে পরিনি। সেটা বোলিং এবং ব্যাটিং দুই ক্ষেত্রেই। বিশেষ করে বিকেলের দিকে ব্যাট করাটা সহজ ছিল না। ডিউ ফ্যাক্টরের জন্য বল দেরি করে ব্যাটে আসছিল।’ অবশ্য রোহিত-রাহানের ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করেন ধোনি।