২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাইবান্ধায় পাউবো অফিস ঘেরাও ॥ পুলিশের বাধা

  • কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দাবি

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা, ১১ অক্টোবর ॥ পানি উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের অবহেলায় সোনাইল ও ওয়াপদা বাঁধ ভাঙ্গার কারণে তাদের শাস্তি, বাঁধ ও নদী সংস্কার, নদী ভাঙ্গন বন্ধ, কৃষক শ্রমজীবীদের ক্ষতিপূরণের দাবিতে রবিবার স্থানীয় পৌর শহীদ মিনার থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। তারা পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস ঘেরাও করে এবং জেলা প্রসাশক, পাউবো নির্বাহী প্রকৌশলীর মাধ্যমে এবং পানি সম্পদ মন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করে। পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস ঘেরাও করার সময় পুলিশ মিছিলে বাধা দেয়। পরে সেখানেই সমাবেশ করে মিছিলকারীরা। এ সময় বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি গাইবান্ধা জেলা শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ মমতাজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক রেবতী প্রমুখ। বক্তারা বলেন- গাইবান্ধা সদরের গোদারহাট ইঁদুর, শেয়ালের গর্ত দিয়ে পানি বুদবুদ করে বের হতে থাকায় বাঁধ ভাঙ্গার আশঙ্কার কথা তিন দিন পূর্বে জনসাধারণ পাউবোকে জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

খরা মৌসুমে বালু ব্যবসায়ীরা বাঁধ কেটে বালু উত্তোলন করে। কিন্তু সেই কাটা বাঁধ মেরামত করা হয় নাই। এবার জনসাধারণকে সতর্কীকরণ মাইকিংও করা হয় নাই।

বখাটের অপমান সইতে না পেরে কলেজছাত্রের আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ কক্সবাজার বাসটার্মিনাল লারপাড়ায় বখাটের নির্যাতন সইতে না পেরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে সাজ্জাদ হোসেন (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্র। শনিবার রাত ১০টায় এ ঘটনা ঘটে। সে কক্সবাজার হার্ভার্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র। চাচার সঙ্গে লারপাড়ার ছালেহ আহমদের বাসায় ভাড়া থাকত। পুলিশ নিহত সাজ্জাদের লাশ উদ্ধার এবং সাজ্জাদের প্রেমিকা রিয়া ও রুমমেট চাচা রুবায়েতকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। স্থানীয়রা জানায়, সাজ্জাদের সঙ্গে পূর্ব লারপাড়ার রিয়া নামে এক মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল এবং মাঝেমধ্যে তার সঙ্গে দেখা করতে বাসায় আসত। শনিবারও সকালে মেয়েটি সাজ্জাদের বাসায় এলে স্থানীয় ১০-১২ বখাটে বাইর থেকে রুমের দরজায় তালা লাগিয়ে দেয়। এক পর্যায়ে তারা প্রেমিকজুটিকে পুলিশের ভয় দেখিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে।

টাকা না দেয়ায় সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দু’জনকে আটকে রাখে ঐ কক্ষে। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয়রা ভিড় জমায় সেখানে। এদিকে পুলিশের হাতে আটক সাজ্জাদের চাচা কক্সবাজার কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র রুবায়েত জানিয়েছেন, দুপুরে বাসায় ফিরে তিনি আর বের হননি। তিনি তালাবদ্ধ সাজ্জাদ ও রিয়ার সঙ্গে ছিলেন রাত পর্যন্ত। ও সময় ছুরি নিয়ে চারদিক থেকে ঘিরে থাকে বখাটে হারুন, মামুন, আবদুল গণি, রুবেল, ইসমাঈল, ফারুক ও দেলোয়ার। তিনি বলেন, রাত ৮টার দিকে প্রস্রাবের কথা বলে সাজ্জাদ বাথরুমে যায়। কিন্তু বাথরুমে ঢুকে অনেকক্ষণ ধরে বের হয় না সে।

দুই মাসে চিলমারীর আট গ্রাম নদীগর্ভে

স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম ॥ চিলমারী উপজেলায় গত ২ মাসে ব্রহ্মপুত্র নদের অব্যাহত ভাঙ্গনে ৮ গ্রামের প্রায় দেড় হাজার পরিবার ভিটেমাটি হারিয়েছে। এসব পরিবার ওয়াপদা বাঁধের দু’পাশে আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এদিকে হুমকির মুখে পড়েছে ১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজারসহ হাজার হাজার একর ফসলী জমি।

উপজেলার রমনা ইউনিয়নের টোনগ্রামের ২৫ পরিবার, ব্যাপারীপাড়ার ৫শ’ পরিবার, হিন্দুপাড়ার ২৫ পরিবার, মাস্টারপাড়ার ১০ পরিবার, মুদাফৎথানার ৩শ’ পরিবার, বাসন্তি গ্রামের ৪শ’ পরিবার, জোড়গাছ বাজার এলাকার ১শ’ ৫০ পরিবারসহ ঝালোপাড়ার ৫০ পরিবার ভিটেমাটি হারিয়ে ওয়াপদা বাঁধের দু’পাশে আশ্রয় নিয়েছে। এদিকে হিন্দুপাড়া ও ব্যাপারীপাড়া এলাকায় ওয়াপদা বাঁধ থেকে প্রায় ১২০ ফিট দূরে ব্রহ্মপুত্র নদী অবস্থান করছে।