২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুর্গোৎসবের ছুটিতে গণভবন মাঠে ব্যতিক্রমী ফুটবল টুর্নামেন্ট

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ এবার শারদীয় দুর্গোৎসবের ছুটিতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারী বাসভবন গণভবন মাঠে ব্যতিক্রমী এক ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছে। চার টিমের অংশগ্রহণে আগামী ২২ অক্টোবর দু’দিনের এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন এবং পরদিন ২৩ অক্টোবর ফাইনাল খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকতে পারেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবন এবং আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, এটি সম্পূর্ণই নিজেদের মধ্যে ফ্রেন্ডলি ম্যাচ। চার টিমের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে এই মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। আর এ টুর্নামেন্ট আয়োজনে পৃষ্ঠপোষক হিসেবে কাজ করছে গণভবন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণভবন ও তেজগাঁও কার্যালয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে দুটি, গণভবন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে একটি এবং আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানম-ির রাজনৈতিক কার্যালয়, সুধাসদন ও বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে একটি। এই চার দল অংশগ্রহণ করবে ফুটবল টুর্নামেন্টে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চ্যারিটি ম্যাচ হলেও প্রতি টিমেই চলছে জোর প্রস্তুতি। ইতোমধ্যে এই টুর্নামেন্টকে কেন্দ্র করে আয়োজক এবং অংশগ্রহণকারী দলগুলো কাজের ফাঁকে সুযোগ পেলেই বিভিন্ন মাঠে গিয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে শুরু করেছেন। চলছে প্রাকটিস ম্যাচ ও প্রস্তুতিপর্ব। এই টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ কয়েকটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করারও প্রস্তুতি চলছে।

তবে টুর্নামেন্টের নাম এখনও চূড়ান্ত করা হয়নি। এবার আসন্ন দুর্গাপুজোর নবমী ও দশমীতিথি একইদিনে অনুষ্ঠিত হওয়ায় বিজয়া দশমীর সরকারী ছুটি ২৩ তারিখের পরিবর্তে একদিন এগিয়ে ২২ অক্টোবর করা হয়েছে। ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার এবং তার পরের দিন শুক্রবার হওয়ায় দুদিনের এই ছুটিতে ফুটবল আনন্দে মেতে ওঠার পরিকল্পনা করেছেন টুর্নামেন্ট সংশ্লিষ্টরা। তবে এ বিষয়ে বিভিন্ন টিমের আয়োজকদের সঙ্গে কথা বললেও আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ মুখ খুলতে রাজি হননি। তবে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, আয়োজকরা এ ধরনের আনন্দমূলক ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজনের আগ্রহ প্রকাশ করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাতে রাজি হয়েছেন। প্রতিটি খেলা হবে ৬০ মিনিট করে। এর মধ্যে ফল নির্ধারিত না হলে অতিরিক্ত ১৫ মিনিট করে খেলা হবে। তারপরও ফল নির্ধারণ না হলে টাইব্রেকারে খেলার ভাগ্য নির্ধারণ হবে।

প্রতিটি দল থেকে নয় জন খেলোয়াড় খেলায় অংশগ্রহণ করবে এবং অতিরিক্ত হিসেবে থাকবে তিন জন। টিমে অংশগ্রহণকারী খেলোয়াড়দের বয়স সীমা নির্ধারণ করে কয়েকটি গ্রেড করা হয়েছে। গ্রেডগুলো হলোÑ খেলোয়াড়দের বয়স সীমা ৪০ থেকে ৪৫, ৩৫ থেকে ৪০, ৩০ থেকে ৩৫ এবং ২০ থেকে ৩০। এসব গ্রেডের মধ্য থেকেই প্রতি টিমে খেলোয়াড় নিয়ে খেলতে হবে। আবার কোন বয়সের গ্রেড থেকে কতজন অংশ নিতে পারবে একটি টিমে তাও নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। প্রথম গ্রেড থেকে একজন, দ্বিতীয় গ্রেড থেকে দুজন, তৃতীয় গ্রেড থেকে তিন জন এবং চতুর্থ গ্রেড থেকে তিন জন নিয়ে মোট নয় খেলোয়াড় নিয়ে টিম গঠিত হবে। পাশাপাশি কোন টিম বদলি খেলোয়াড় নামাতে চাইলে বয়সের গ্রেডের বিধান মেনেই খেলোয়াড় নামাতে হবে।

সূত্র আরও জানায়, টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের জন্য ইতোমধ্যে শনিবার থেকে অনুশীলন শুরু করেছে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানম-ির রাজনৈতিক কার্যালয়, সুধাসদন ও বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে গঠিত টিমটি। ধানম-ি শেখ জামাল ক্লাবের মাঠে সকালের দিকে এই টিম অনুশীলন করছে। কয়েকজন সাবেক ফুটবলার দিয়ে টিমের অনুশীলন করাচ্ছেন। এই টিমের মতো অন্য টিমও ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া শুরু করেছে।