২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাবি শিক্ষার্থীদের স্বার্থ রক্ষায় ছাত্রলীগের ১৯ দাবি পেশ

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্বার্থ ও অধিকার রক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে একযোগে কাজ করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। সোমবার দুপুরে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট ১৯ দফা দাবিতে সংগঠনটির পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়কে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করে শিক্ষার্থীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট এসব দাবি সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে এসব দাবি তুলে ধরেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান। এসব দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সব ধরনের সহযোগিতা করার অঙ্গীকার করেন তিনি। এ লক্ষ্যে বিভিন্ন বিভাগ ও হলের শিক্ষকদের নিয়ে বিভিন্ন ধরনের কমিটি, উপকমিটি গঠনেরও সুপারিশ করেন তিনি। যেখানে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনগুলোর অংশগ্রহণের সুযোগ থাকবে বলেও জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন এবং ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স। এ সময় উপস্থিত নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের করা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

১৯টি দাবির মধ্যে রয়েছেÑ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীদের জন্য উন্নত আবাসন সুবিধা, হলগুলোর সংস্কার কাজ দ্রুত সম্পন্নকরণ ও খাবারের মান উন্নতকরণ, যুগোপযোগী ক্লাসরুম, লাইব্রেরি ও মেডিক্যাল সেন্টারের আধুনিকীকরণসহ সর্বক্ষণিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাসেবা, ওয়াইফাই ও ইন্টারনেট সুবিধা নিশ্চিতকরণ, পরিবহন ব্যবস্থার উন্নতীকরণ, ইভ টিজিং প্রতিরোধ, ছাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য পর্যাপ্ত পরিবহন, মাদক প্রতিরোধ, গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন, ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার, বহিরাগত ভারি যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ এবং ক্যাম্পাসের দূরুত্ব অনুযায়ী রিক্সাভাড়া নির্ধারণ।

এদিন দুপুর দেড়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক তার কার্যালয়ে এ স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। এ সময় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তবে ১৯ দফা দাবির মধ্যে ২৫ বছর ধরে অকার্যকর থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) উল্লেখ ছিল না। এ বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে আবিদ আল হাসান বলেন, ছাত্রলীগ অবশ্যই ডাকসু চায়। তবে সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেই। এ সময়টাতে আমরা শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হিসেবে তাদের দাবি-দাওয়া ও পাওয়া-না পাওয়া বিষয়ে কাজ করছি। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরনের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও কো-কারিক্যুলার এক্টিভিটিসের মাধ্যমে তাদের জ্ঞান ও মেধার পূর্ণ বিকাশের জন্য যা যা দরকার তার জন্য ছাত্রলীগ কাজ করবে।

হলে গেস্টরুমে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগে কী হয়েছে, আর এখন কী হচ্ছেÑ দুটি সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়। গেস্টরুমের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ঐক্য হওয়া ও নেতৃত্বগুণ অর্জনের সুযোগ হয়। আর গেস্টরুমের অপব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে আরও এগিয়ে নিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ পরিকল্পনা হাতে নিয়ে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে বলে জনকণ্ঠকে জানান আবিদ আল হাসান।