১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নাটোরে হামলা ও অগ্নিসংযোগে আহত ৭

সংবাদদাতা, নাটোর, ১২ অক্টোবর ॥ সিংড়ায় বসতভিটার জায়গা নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী, ইউপি সদস্যসহ ৭ জন আহত হয়েছে। এ সময় বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, ৪টি গরু, মালামাল লুট ও পুকুরে বিষ প্রয়োগের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। সোমবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার সুকাশ ইউনিয়নের জয়কুড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহতদের সিংড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন থেকে বসতভিটার ২১ শতাংশ জায়গা নিয়ে ইসমাইল ও খবিরের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। সম্প্রতি সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে একটি বৈঠক বসে। সালিশে দু’পক্ষকে জমির দলিল, প্রমাণাদিসহ হাজির এবং উকিলের মাধ্যমে যাচাই-বাছাই করে সম্পত্তি ভোগ দখলের সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু প্রতিপক্ষ খবির উদ্দিন সালিশি গৃহীত সিদ্ধান্ত অমান্য করে রবিবার সকালে তার লোকজনদের নিয়ে ইসমাইলের বাড়ির চারদিকে বেড়া দেয়। এতে করে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। ওইদিনই দুপুরে ইসমাইলের ছেলে মুকুল বাদী হয়ে সিংড়া থানার অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ বিকেলে গিয়ে উভয়পক্ষকে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে এবং সমস্যার সমাধানে আগামী শুক্রবার থানার হাজির হওয়ার নোটিশ দিয়ে আসে।

এতে করে প্রতিপক্ষ ক্ষিপ্ত হয়ে রবিবার দিবাগত রাতে ইসমাইলের ছেলে মুকুলের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। পরেরদিন সোমবার সকালে খবির উদ্দিন, আবু হানিফ, মুরশিদুলের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আবারও ইসমাইলের লোকজনের বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালায়।

হাসতে হাসতে অপারেশন টেবিলে মারা গেল শিশু

দুই ডাক্তার লাঞ্ছিত

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ হাসতে-হাসতে, খেলতে-খেলতে অপারেশন থিয়েটারে গিয়ে মারা গেল সাড়ে তিন বছরের শিশুটি। যশোর হাসপাতালের সামনে অবস্থিত মডার্ন হসপিটাল এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অস্ত্রোপচার টেবিলে শিশুটির মৃত্যু হয়। এ অভিযোগে স্বজনদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় দু’চিকিৎসক লাঞ্ছিত হয়ে আত্মগোপন করেন। পরে তারা পুলিশী পাহারায় ওই হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান। রবিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

শিশুর নাম মাহমুদ হোসেন। সে যশোর সদর উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের শানতলা গ্রামের নিজাম উদ্দিনের ছেলে। তিনি জানান, মাহমুদের কানের পাশে ছোট একটি টিউমার হয়। মাঝে মধ্যে সেখানে যন্ত্রণা করত। রবিবার বিকেলে চিকিৎসার জন্য তাকে আনা হয় যশোর মেডিক্যাল কলেজের ইএনটি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ আক্তারুজ্জামানের মডার্ন হসপিটাল এ্যান্ড ডায়গিনস্টিক সেন্টারে। এ দিন পাঁচশ’ টাকার ভিজিট দিয়ে দেখানোর পর চিকিৎসক বলেন, মাহমুদের অস্ত্রোপচার করতে হবে। ১০ হাজার টাকা চুক্তিতে শিশু মাহমুদকে ভর্তি করেন বেসরকারী ওই হাসপাতালে। রাত ১০টার দিকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় অস্ত্রোপচার কক্ষে। তিনি আরও জানান, অপারশেনের জন্য টিম প্রধান ছিলেন ডাঃ আক্তারুজ্জামান, অচেতনের দায়িত্বে ছিলেন ডাঃ ওয়াহিদুজ্জামান ডিটু। অস্ত্রোপচার কক্ষে নেয়ার ঘণ্টা দেড়েক পর তাদের জানানো হয় মাহমুদের শারীরিক অবস্থা ভাল না, খুলনায় নিয়ে যেতে হবে।

এই মাত্রা পাওয়া