২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষার প্রস্তুতি

  • শারীরিক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য

সুধীর বরণ মাঝি, শিক্ষক,

ডক্টর মালিকা কলেজ ,৭/এ, ধানমন্ডি

ঢাকা-১২০৯, মোবাইল- ০১৯১২-২৯৫০৮৫

.................................................................

প্রস্তুতি ৩য় অধ্যায়

(পূর্ব প্রকাশের পর)

এইচআইভি /এইডস প্রতিরোধের উপায় ঃ এইচআইভি / এইডস যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায় তা হলো-

১। ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ পরিহার ঃ এইচআইভি /এইডস ঝুঁকি প্রতিরোধে সকলকে ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ পরিহার করতে হবে।

২। আবেগ প্রশমন ঃ কৌতুহল ও আবেগের বশবর্তী হয়ে কিশোর-কিশোরীরা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করে থাকে। অনেক সময় মা-বাবার শাসনের ফলে রাগ বা অভিমান করে তারা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করে বসে।বড়দের সাথে বিশেষ করে মা-বাবার সাথে খোলামেলা কথা বললে সহজে আবেগ প্রশমিত হয় এবং এতে অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। ৩। ঝুঁকিপূর্ণ প্রস্তাব প্রত্যাখান ঃ ঝুঁকিপূর্ণ প্রস্তাব প্রত্যাখান করার জন্য না বলার দক্ষতা অর্জন করতে হবে। কিশোর-কিশোরীরা অনেক সময় অনৈতিক বা অনাকাঙ্গিত প্রস্তাব জক্ষু লজ্জায় বা ভয়ে সরাসরি না বলতে পারে না। তাই কিভাবে না বলতে হবে তা জানতে ও শিক্ষতে হবে। নিজেকে দৃঢ়চেতা হতে হবে এবং বন্ধুত্ব বা আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষা করেই না বলার কৌশল গ্রহণ করতে হবে। ৪। ধর্মীয় ও সামাজিক অনুশাসন ও রীতিনীতি মেনে চলা ঃ নেশা করা,মাদকাসক্ত হওয়া, অনৈতিক দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন কোন ধর্ম বা সমাজ অনুমোদন করে না। সামাজিকভাবেও এগুলো অত্যন্ত গর্হিত অপরাধ। তাই ধর্মীয় ও সামাজিক অনুশাসন ও রীতিনীতি মেনে চললে এইচআইভি /এইডসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক কমে যায়।

৫। সচেতনতা সৃষ্টি ঃ র‌্যালির আয়োজন, পত্রিকায় প্রচার,রেডিও,টেলিভিশন,সিনেমা, নাটক, সঙ্গীত প্রভৃতির মাধ্যমে এইচআইভি /এইডস-এর ভয়বহতা সম্পর্কে ব্যাপক হনসচেতনতা সষ্টি করতে পারলেই এইচআইভি /এইডস প্রতিরোধ সম্ভব হতে পারে।

৭। অল্প বয়সী মেয়েরা এইডস সংক্রমণে ঝঁকিপূর্ণ কেন ?

ভূমিকা ঃ বয়স প্রত্যেক মানুষের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সব বয়সের মানুষের পক্ষে সব কাজ করা সম্ভব হয় না। বয়সের কোন পর্যায়ে মানুষ আবেগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় আবার কোন পর্যায়ে সেই আবেগকে নিয়ন্ত্রন করতে শিখে। বিশেষ করে অল্প বয়সের মেয়েরা আবেগ দ্বারা পরিচালিত হয়।

অল্প বয়সী মেয়েরা এইডস সংক্রমণে ঝঁকিপূর্ণ ঃ অনেক দেশে অনিয়ন্ত্রিত মাদকের ব্যবহার,অসচেতনতা,অশিক্ষা,দারিদ্র প্রভৃতি কারণে অল্প বয়সী মেয়েদের মধ্যে এইডস সংক্রমণের ব্যাপকতা মহামারী আকারে পৌঁছে গিয়েছে।এইডস রোগের পরিণতি যেহেতু ভয়াবহ তাই বিশেষ করে অল্প বয়সী মেয়েদেরকে এ বিষয়ে বিশেষভাবে সচেতন ও সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে। বিভিন্ন দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি থেকে জানা যায় যে নতুন এইচআইভিতে আক্রান্তদের অর্ধকেই ১৫-২৪ বছর বয়সী।এ বয়সী মেয়েরা ছেলেদের তুলনায় অধিক ঝুঁকিতে রয়েছে। এর প্রধান কারণগুলো হচ্ছে- ১।আর্থ-সামাজিক কাঠামোতে মেয়েদের দুর্বল অবস্থান।

২। এইচআইভি /এইডস সম্পর্কে জ্ঞানের অভাব ৩। অনিয়ন্ত্রিত ও অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক স্থাপনে বাধা দেওয়ার ক্ষমতা কম। ৪। নারী-পুরুষের বৈষম্যের কারণে নারীর নিগৃহীত হওয়া। ৫। মেয়েদের বিশেষ শারীরিক বৈশিষ্ট্য ৬। অনৈতিক ও অনিরাপদ দৈহিক সম্পর্ক স্থাপন। ৭। আবেগকে নিয়ন্ত্রন করতে না পারা।