২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

“দুর্যোগ মোকাবেলায় চাই ঐতিহ্যগত জ্ঞানের ব্যবহার”

“দুর্যোগ মোকাবেলায় চাই ঐতিহ্যগত জ্ঞানের ব্যবহার”

অনলাইন ডেস্ক॥ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নিজস্ব সংস্কৃতি, প্রথাগত আচার, ঐহিত্যগত ও স্থানীয় জ্ঞান ব্যবহার করে দুর্যোগ মোকাবেলার ওপর এখন বিশ্বব্যাপী গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশে দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রথাগত আচার ও ঐতিহ্যগত জ্ঞানের ব্যবহার বহুদিন থেকেই করে আসছে স্থানীয় মানুষেরা।

বাংলাদেশ ডিজাস্টার ফোরামের সদস্য সচিব গওহর নাঈম ওহারা বলছেন, ২০০৭ সালে সিডরে সাগরে নিখোঁজ মানুষদের মধ্যে মাত্র দুইজন ছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বী।

কারণ খুঁজতে গিয়ে দেখা যায়, সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষেরা যেকোনো চন্দ্রমাসের পাঁচ তারিখ থেকে আট তারিখে সাগরে যায় না।

সিডর হয়েছিল, চন্দ্রমাসের ছয় তারিখ দিবাগত রাতে।

ফলে এসব আচার, যার বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাও রয়েছে, মানুষের প্রাণ বাঁচাতে পারে।

মি. ওহারা বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে সাগরের বেশিরভাগ বড় সাইক্লোন বা ঘূর্ণিঝড় চাঁদের ঐ সময়টাতেই ঘটে থাকে।

কিন্তু, সাধারণ মানুষ বৈজ্ঞানিক ভিত্তি বা বিশেষ জ্ঞান হিসেবে না জেনেই ঐসব আচার পালন করে আসছে।

আবার, বন্যা ও খরা নিয়ে খনার অনেকগুলো বচন আছে।

অর্থাৎ মানুষ নানান পরিস্থিতি ও সমস্যা দেখে, সেসব সমাধানের উপায় নিজেদের মত করে উদ্ভাবন করেছে।

তবে, এখন বাংলাদেশে দুর্যোগ মোকাবেলার ক্ষেত্রে প্রথাগত জ্ঞানকে হালনাগাদ করার ওপর জোর দেন মি. ওহারা।

সূত্র : বিবিসি বাংলা