২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তুরস্কে বোমা হামলায় আইএস জড়িত ॥ দাবি কর্মকর্তাদের

  • হামলায় সহযোগীদের খুঁজতে ডিএনএ টেস্ট

তুর্কী কর্মকর্তারা বলেছেন, জুলাইয়ে সুরুক শহরে দুটি আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণের সঙ্গে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সম্পৃক্ততা ছিল বলে তাদের কাছে সুনিশ্চিত প্রমাণ রয়েছে। এক শান্তি সমাবেশে ঐ মারাত্মক বোমা হামলায় ১শ’ ২৮ জন নিহত হয়। খবর গার্ডিয়ান অনলাইনের।

ঐ হত্যাকা-ের জন্য রাষ্ট্র দায়ী বলে যে অভিযোগ রয়েছে তার জবাবে কর্মকর্তারা বলেছেন, শান্তি সমাবেশের নিরাপত্তার জন্য ২ হাজার নিরাপত্তা সদস্য মোতায়েন করা হয়েছিল।

ক্ষমতাসীন দল আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় মধ্যবর্তী নির্বাচনে সুযোগ গ্রহণের জন্য এ সহিংসতাকে ব্যবহারের চেষ্টা করছে বলে যে অভিযোগ রয়েছে তাও প্রত্যাখ্যান করেন কর্মকর্তারা। তুর্কী সরকারী সূত্র গার্ডিয়ানকে বলেছে, বোমা হামলায় আইএসের সম্পৃক্ততার সুনির্দিষ্ট প্রমাণ রয়েছে। কর্মকর্তারা বলেন, ঐ দুই বোমা হামলায় কমপক্ষে ৯৭ জন নিহত হয়েছে। কিন্তু সমাবেশের উদ্যোক্তারা বলেছেন, ১শ’ ২৮ জন নিহত হয়েছে। দেশের প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাবুতোগলু এর আগে বলেছেন, তদন্তে প্রধানত আইএস জঙ্গীদের সন্দেহ করা হচ্ছে। তিনি এনটিভি টেলিভিশনকে বলেন, হামলার ধরন দেখে আমরা শনাক্ত করেছি যে, আইএসই সে জন্য দায়ী। কর্মকর্তারা বলেন, বোমা হামলাকারীদের শনাক্তে সহযোগিতার জন্য গত সপ্তাহে আঙ্কারার সিসিটিভি ফুটেজের মাধ্যমে অভিযান চালানোর লক্ষে ১শ’ নজরদারি বিশেষজ্ঞ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলায় সহযোগীদের খুঁজে বের করার জন্য ডিএনএ পরীক্ষাও ব্যবহার করা হচ্ছে। এক সরকারী কর্মকর্তা সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকা- বিষয়ে বলেন, নিরাপত্তা সংস্থাগুলো জঙ্গীদের হোতাদের শনাক্ত করার জন্য কয়েক মাস ধরে দেশে আইএস সেলগুলোর জন্য

অনুসন্ধান চালাচ্ছে। উপরন্তু, সীমান্তে নিরাপত্তা উদ্যোগ জোরদার করা হয়েছে এবং প্রায় ১০ হাজার ব্যক্তিকে আইএস’র সঙ্গে সম্পৃক্ততার সন্দেহে নো-এন্ট্রি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় অন্য দেশগুলোর গোয়েন্দা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এ তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তিনি বলেন, প্রধান সন্দেহভাজনরা হচ্ছে আইএস জঙ্গীরা।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া