১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আবারও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে বসছে কমিশন

  • ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগ ইক্যুইটির (মূলধন) ২৫ শতাংশে নামিয়ে আনার সময়সীমা বাড়াতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নেয়া উদ্যোগের অগ্রগতি জানতে চাইবে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

এজন্য আগামী ২৯ অক্টোবর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে বিকেল ৩টায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের সমন্বয় সভায় ব্যাংক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা করবে বিএসইসি। এই সভায় বিএসইসি ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পাশাপাশি বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ), যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের নিয়ন্ত্রক, মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরি অথরিটি, সমবায় অধিদফতর এবং বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। যদিও এর আগেও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে বসেছিল পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো। তখন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হাতে এখন আর বিষয়টি নেই। কারণ আইন আকারে সংসদে পাস হয়ে গেছে। তবে সরকার চাইলে এখন বিনিয়োগ সীমা কমিয়ে আনার সময় আরও বাড়াতে পারে। উল্লেখ্য, বিদ্যমান আইন অনুযায়ী আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যে অতিরিক্ত বিনিয়োগ করা ব্যাংকগুলোকে বিনিয়োগ সীমার মধ্যে নিয়ে আসতে হবে।

এ বিষয়ে বিএসইসির একাধিক উর্ধতন কর্মকর্তা জানান, পুঁজিবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমা (এক্সপোজার লিমিট) নির্ধারিত সীমায় নামিয়ে আনার সময়সীমা ঘনিয়ে এসেছে। এ কারণে পুঁজিবাজারে সেল প্রেসার বেড়েছে। যা বর্তমানে পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতায় বিরূপ প্রভাব ফেলছে। আর এ কারণে নানা উদ্যোগ নিলেও বাজারের পতন ঠেকাতে তা কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারছে না। কিন্তু ব্যাংক কোম্পানি আইন অনুযায়ী ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিট নির্ধারিত হওয়ায় ?বিএসইসি এ বিষয়ে সরাসরি কোন পদক্ষেপ নিতে পারেনি। তাই পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতার স্বার্থে নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের সমন্বয় সভায় ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিট বাস্তবায়নের সময়সীমা বাড়াতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার সুপারিশ করেছে বিএসইসি। এ কর্মকর্তারা আরও জানান, বাজারকে স্থিতিশীল করতে ব্যাংকের এক্সপোজার লিমিটের সময়সীমা বাড়াতে হবে।