১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইংল্যান্ড দশে দশ, গ্রুপ সেরা স্পেন

ইংল্যান্ড দশে দশ, গ্রুপ সেরা স্পেন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইউরো বাছাইপর্বে অনন্য রেকর্ড গড়েছে ইংল্যান্ড। গ্রুপ পর্বে সবকটি অর্থাৎ দশটি ম্যাচেই জয় পেয়েছে ইংলিশরা। সোমবার রাতে ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচে স্বাগতিক লিথুনিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে টানা দশ জয়ের কৃতিত্ব দেখিয়েছে অতিথি ইংল্যান্ড।

জয় দিয়ে বাছাইপর্ব শেষ করেছে স্পেনও। ইউরোর বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা ১-০ গোলে হারায় ইউক্রেনকে। এই জয়ে গ্রুপের শীর্ষস্থান ধরে রেখে মিশন শেষ করেছে ভিসেন্টে ডেল বস্কের দল। ইংল্যান্ড ও স্পেন আগেই মূলপর্বে খেলা নিশ্চিত করে। পরশু রাতে চূড়ান্ত পর্বের ছাড়পত্র পেয়েছে রাশিয়া ও সেøাভাকিয়া। ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচে ২০১৮ বিশ্বকাপের আয়োজক রাশিয়া ২-০ গোলে মন্টেনিগ্রোকে হারিয়ে ফ্রান্সের টিকেট পায়। অন্যদিকে ‘সি’ গ্রুপে লুক্সেমবার্গকে ৪-২ গোলে উড়িয়ে দিয়ে ২০১৬ মূল আসরে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে সেøাভাকিয়া।

অন্যান্য ম্যাচে সুইজারল্যান্ড ১-০ গোলে এস্তোনিয়াকে, সেøাভেনিয়া ২-০ গোলে সান ম্যারিনোকে, অস্ট্রিয়া ৩-০ গোলে লিচেনস্টেইনকে ও সুইডেন ২-০ গোলে হারায় মলদোভাকে। বেলারুশ ও মেসিডোনিয়ার মধ্যকার ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হয়। দারুণ সুখস্মৃতি নিয়েই আগামী বছর ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া মূল আসরে খেলতে যাবে ইংল্যান্ড। কেননা বাছাইপর্বে রীতিমতো অসাধ্যকে সাধন করেছে রয় হডসনের দল। তিন ম্যাচ হাতে রেখেইে গ্রুপের শীর্ষ দল ও বাছাইপর্বের প্রথম দল হিসেবে ফ্রান্সের টিকেট নিশ্চিত করে ইংলিশরা। বাকি তিনটি ম্যাচ ইংল্যান্ডের জন্য ছিল শুধুই আনুষ্ঠানিকতা। আগামী ডিসেম্বরে ড্রয়ের আগে বাছাইপর্বের আত্মবিশ্বাসই পাথেয় হয়ে থাকবে রুনি, ওয়ালকটদের। লিথুনিয়ার এলএফএফ স্টেডিয়ামে অনেকটা খর্বশক্তির দল নিয়ে মাঠে নামলেও কখনই মনে হয়নি ইংল্যান্ড পিছিয়ে আছে। ম্যাচের ২৯ মিনিটে এভারটন মিডফিল্ডার রস বার্কলি ইংলিশদের এগিয়ে দেন। ছয় মিনিট পরে হ্যারি কেনের শট আটকাতে গিয়ে লিথুনিয়ার গোলরক্ষক গিয়েড্রিয়াস আরলাসকিস নিজের জালে বল জড়ালে দুই গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় অতিথিরা। বিরতির পরপরই আর্সেনালের অ্যালেক্স অক্সলেইড-চেম্বরারলেইনের গোলে ইংলিশদের বড় জয় নিশ্চিত হয়। ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বে ষষ্ঠ দল হিসেবে সবগুলো ম্যাচ জিতে চূড়ান্ত পর্বে খেলতে যাচ্ছে ইংল্যান্ড। এর আগে শতভাগ জয়ের রেকর্ড আছে ফ্রান্স (১৯৯২ ও ২০০৪ ইউরোর বাছাই), চেক প্রজাতন্ত্র (২০০০), জার্মানি (২০১২) ও স্পেন (২০১২)।

বর্তমান ফরমেটে একটি পয়েন্টও নষ্ট না করে এই প্রথম বাছাইপর্ব পার করলো ইংলিশরা। সর্বশেষ ২০১২ সালের প্রতিযোগিতার বাছাইপর্বে স্পেন শতভাগ জয় নিয়ে চূড়ান্ত পর্বে খেলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। কিন্তু টানা ১৫ ম্যাচে অপরাজিত থাকার পরে গ্রুপ ‘ই’তে ইংল্যান্ডের খেলার মান ততটা ভাল ছিল না। এ কারণেই আত্মতুষ্টিতে ভুগছেন না ইংল্যান্ড কোচ রয় হডসন। স্পেনের মতো সাফল্য পেতে হলে আরও পরিশ্রম ও উন্নতি করতে হবে বলে মনে করেন তিনি। ম্যাচ শেষে হডসন বলেন, এটা দারুণ এক কৃতিত্ব। আমি খেলোয়াড়দের পারফরমেন্সে সত্যিই গর্বিত। এই ম্যাচেও আমরা ভাল খেলেছি, বিশেষ করে প্রথমার্ধে। এখানে অনেক পরিশ্রম জড়িত। দশ ম্যাচে দশ জয় দারুণ এক বিষয়। এ থেকে অসাধারণ এক আত্মবিশ্বাস আমরা পেতেই পারি।

ই্উক্রেনকে হারিয়ে গ্রুপ সেরা হয়ে ফ্রান্সে যাচ্ছে স্পেন। জাতীয় দলের হয়ে এদিন নিজের ১০০তম ম্যাচ খেলেছেন চেস ফেব্রিগাস। তবে নিজের মাইলফলকের ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখতে পারেননি এই মিডফিল্ডার। পেনাল্টি থেকে গোল করার সুযোগ আসলেও মিস করেন এ চেলসি তারকা। যে কারণে শততম ম্যাচে গোল করার সৌভাগ্য থেকে বঞ্চিত হন ফেব্রিগাস। শুধু তাই নয়, শততম ম্যাচে অধিনায়ক হিসেবে নেমেছিলেন ২৮ বছর বয়সী ফেব্রিগাস। গোল করে অনন্য কীর্তিগাথার সুযোগ হারিয়েছেন তিনি। তবে কিয়েভে মারিও গাসপারের অভিষেক গোলে জয় পায় বর্তমান চ্যাস্পিয়নরা। মজার ব্যাপার হচ্ছে, এই ম্যাচে শুরুর একাদশে স্পেন দলের একাদশে ঠাঁই পাননি কোন বার্সিলোনার ফুটবলার। যা দশ বছরের মধ্যে এই প্রথম।

‘জি’ গ্রুপ থেকে অপরাজিত অস্ট্রিয়ার পেছনে থেকে চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করেছে রাশিয়া। এই গ্রুপে তৃতীয় সুইডেনের মূলযজ্ঞে খেলতে হলে প্লেঅফ ম্যাচ জিততে হবে। ‘সি’ গ্রুপে সেøাভাকিয়া স্পেনের পেছনে থেকে প্রথমবারের মতো ইউরোতে খেলার সুযোগ পেয়েছে।