১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আবুধাবিতে মালিকের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শোয়েব মালিকের দারুণ এক সেঞ্চুরিতে আবুধাবি টেস্টের প্রথম দিনটা নিজেদের করে নিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেটে তাদের সংগ্রহ ২৮৬ রান। মাত্র ২ রানের জন্য কারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি পাননি ওপেনার মোহাম্মদ হাফিজ। তবে শোয়েব মালিক ঠিকই তিন অঙ্কের ম্যাজিক্যাল ফিগার অতিক্রম করেছেন। পাঁচ বছর পর সাদা পোশাকে ফেরা অলরাউন্ডার অপরাজিত ১২৪ রান করে। ব্যক্তিগত ১১ রান নিয়ে তার সঙ্গে আছেন আসাদ শফিক।

পয়মন্ত ভেন্যুতে সকালে টস জিতে ব্যাটিং নিতে এতটুকু দ্বিধা করেননি মিসবাহ-উল হক। দলীয় ৫ রানে ওপেনার শান মাসুদকে (২) হারালেও পাকিস্তানের শুরুটা ছিল দুর্দান্ত। ইনজুরির জন্য আচমকা ছিটকে গেছেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা আজহার আলী। তার স্থলে তিন নম্বরের মতো গুরুত্বপূর্ণ পজিশনে পাওয়া সুযোগের পুরোপুরি সদ্ব্যবহার করেন তিনি। ৫১.৩ ওভারে ১৬৮ রানের জুটি গড়েন মালিক ও হাফিজ। ১৯৯৬ সালের পর এই প্রথম দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দেড় শতাধিক রানের পার্টনারশিপ পায় পাকিস্তান।

ক্ল্যাসিক্যাল ব্যাটিংয়ের অপূর্ব মহড়ায় মেতে উঠেন দুই উইলোবাজ। সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ২ রান দূরে বেন স্টোকসের বলে এলবিডব্লিউ হন হাফিজ। তার ১৭০ বলে ৯৮ রানের ইনিংসে রয়েছে ১৩ চারের মার। এরপর মালিকের সঙ্গে যোগ দেন ইউনুস খান। তিনিও শুরু করেন নিজের স্টাইলে। মনে হচ্ছিল, আরও একটি বড় জুটি গড়তে যাচ্ছে পাকিস্তান। কিন্তু তৃতীয় উইকেটে দলের ভা-ারে ৭৪ রান যোগ করার পর বিচ্ছিন্ন হন ইউনুস। ব্যক্তিগত ৩৮ রানে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে এ্যালিস্টার কুকের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। তবে ঠিকই জাভেদ মিয়াদাদকে টপকে পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ (ক্যারিয়ার) রানের রেকর্ড গড়েন খান সাহেব। ১০২তম টেস্টে তার মোট রান এখন ৮,৮৫২। ৮,৮৩২ রান নিয়ে দুইয়ে নেমে গেলেন মিয়াদাদ।

১৯ রান করে মিয়াদাদকে অতিক্রম করলে শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামের দর্শকরা দাঁড়িয়ে ইউনুসকে সম্মান জানান। তিনিও ব্যাট উঁচিয়ে অভিনন্দনের জবাব দেন। ইউনুসকে স্যালুট জানিয়ে অধিনায়ক মিসবাহ বলেন, ‘ওর মতো গ্রেট ব্যাটসম্যানকে পেয়ে আমরা গর্বিত। সেঞ্চুরি সংখ্যা, রানসহ অনেক রেকর্ডই এখন ইউনুসের দখলে। ইউনুস ব্যাট হাতে দলের জন্য নিবেদিতপ্রাণ সৈনিক। সে রান করতে ভালবাসে, দলকে জেতাতে চায়।’ ইউনুস ফেরার পর অবশ্য দ্রুত অধিনায়ককে হারায় পাকিস্তান। ব্যক্তিগত ৩ রানে এ্যান্ডারসনের শিকারে পরিণত হন মিসবাহ। মালিক ছিলেন অবিচল। পাঁচ বছর পর ফিরে সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। অব্যাহত রাখেন ওয়ানডে ফর্মের ধারা। ২৩০ বলে ১৪ চারের সাহায্যে ১২৪ রান নিয়ে ব্যাটিং করছেন ৩৩ বছর বয়সী মালিক। ৩৩তম টেস্টে এটি তার তৃতীয় সেঞ্চুরি। এর আগে ২০০৯ সালে কলম্বো টেস্টে সর্বশেষ তিন অঙ্কের দেখা পেয়েছিলেন মালিক। বছরের শুরুতে ঘরের মটিতে জিম্বাবুইয়ে সিরিজে ওয়ানডে প্রত্যাবর্তনেও সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তিনি। ইংল্যান্ডের হয়ে এ্যান্ডারসন ২, ব্রড ও স্টোকস নেন ১টি করে উইকেট।

স্কোর কার্ড ॥ পাকিস্তান প্রথম ইনিংস ২৮৬/৪ (৮৭ ওভার; মালিক ১২৪*, হাফিজ ৯৮, ইউনুস ৩৮, সফিক ১১*, মিসবাহ ৩, মাসুদ ২; এ্যান্ডারসন ২/২৯, ব্রড ১/৩০, স্টোকস ১/৩৫, উড ০/৩৪)। ** প্রথম দিন শেষে

ফিজি ফ্রেন্ডশিপ কাপ স্কুল রাগবি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশনের (ইউনিয়ন) ব্যবস্থাপনায় ‘ফিজি ফ্রেন্ডশিপ কাপ স্কুল রাগবি’ ১৫ অক্টোবর থেকে পল্টন ময়দান মাঠে শুরু হবে। ৪ গ্রুপে মোট ১৬ স্কুল রাগবি দল অংশগ্রহণ করবে। দলগুলো হলো- সেন্ট গ্রেগরি হাইস্কুল, রহমতুল্লাহ মডেল হাইস্কুল, ইসলামবাগ আশরাফ আলী উচ্চ বিদ্যালয়, যাত্রাবাড়ী আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজ, করাতিটোলা সিএমএস মেমোরিয়াল হাইস্কুল এ্যান্ড কলেজ, হায়দার আলী স্কুল এ্যান্ড কলেজ, আলী আহমদ স্কুল এ্যান্ড কলেজ, মাদারটেক আঃ আজিজ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শেরেবাংলা নগর সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়, আগারগাঁও তালতলা সরকারী কলোনী উচ্চ বিদ্যালয় ও মহিলা কলেজ, আগারগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা মর্ডান পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ, শহীদ নবী উচ্চ বিদ্যালয়, ক্যামব্রিয়ান স্কুল এ্যান্ড কলেজ, সানশাইন প্রি ক্যাডেট এ্যান্ড হাইস্কুল এবং মোহাম্মদ আলী ইয়াকুব আলী স্কুল এ্যান্ড কলেজ।