২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডিজিটাল নম্বর প্লেট ছাড়া ১ জানুয়ারি থেকে কোন যানবাহন চলবে না

  • আরএফআইডি ট্যাগ বাধ্যতামূলক, দ্রুত সংগ্রহ করতে হবে ॥ ও. কাদের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ১ জানুয়ারি থেকে ডিজিটাল নম্বর প্লেট (রেট্রো-রিফ্লেকটিভ নম্বর প্লেট) ও আরএফআইডি ট্যাগ ছাড়া সারাদেশে কোন যানবাহন চলতে না দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এ সময় তিনি বলেন, সব যানবাহনকে আগামী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ডিজিটাল নম্বরপ্লেট ও আরএফআইডি ট্যাগ সংগ্রহ করতে হবে। আগামী এক জানুয়ারি থেকে এগুলো ছাড়া দেশের কোথাও কোন যানবাহন চলাচল করতে পারবে না। আমরা আজই এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করতে যাচ্ছি। মন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে সরকার ঢাকা, চট্টগ্রাম মহানগরী ও ডিটিসিএ’র আওতাধীন গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলার বাস ও মিনিবাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে যাত্রীপ্রতি ১০ পয়সা বৃদ্ধি করেছে। মহানগরীতে চলাচলকারী বাস ও মিনিবাসের ন্যূনতম ভাড়া যথাক্রমে ৭ টাকা ও ৫ টাকা অপরিবর্তিত রয়েছে।

‘কিন্তু গত কয়েকদিনে আমি সরেজমিনে দেখেছি, অনেক পরিবহন পুনঃনির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। অবাক করা বিষয়, সরকার নিয়ন্ত্রিত বিআরটিসির কয়েকটি বাস অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বলে আমার কাছে যাত্রীরা অভিযোগ করার পর আমি এর সত্যতা পেয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমার ধারণা প্রায় ৪০ শতাংশ বাস-মিনিবাস অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। যাত্রীর স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে সরকার নির্ধারিত ভাড়া আদায় ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় না করতে পরিবহন মালিকদের প্রতি আমি আন্তরিক আহ্বান জানাচ্ছি। তিনি বলেন, তারপরেও যদি কোন গাড়িতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়, তাহলে চালক ও মালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমি বিআরটিএকে নির্দেশ দিয়েছি। পাশাপাশি আমি আপনাদের অবগত করতে চাই, বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালতগুলো প্রতিনিয়ত কাজ করছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

বাস্তবতা হলো রাজধানীতে প্রায় ৯ লাখ যানবাহন নিয়ন্ত্রণে মাত্র চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত বসানো হয়ে থাকে। কোন সময় দুটি অথবা তিনটি আদালত বসে। এমন বাস্তবতায় পরিবহন সেক্টরকে নিযন্ত্রণে আনা কঠিন কাজ বলে মনে করেন অনেকেই। তাছাড়া ১ অক্টোবর থেকে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে বাসের ভাড়া বাড়ানো হলেও পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের ভাড়া নৈরাজ্য থামানো কঠোর কোন পদক্ষেপ নেই। বাড়তি ভাড়ার নামে বিনা কারণে মানুষের পকেট কেটে টাকা নেয়া হচ্ছে প্রতিদিন।

বিআরটিএ-এর হিসাবেই দেশে মোট নিবন্ধন করা বিভিন্ন ধরনের যানবাহনের সংখ্যা ২৩ লাখ ৭৯৫৭টি। যেসব যানবাহন এখনও রেট্রো-রিফ্লেকটিভ নম্বরপ্লেট ও আরএফআইডি ট্যাগ নেয়নি, তাদের বিআরটিএ-এর নির্ধারিত ফর্মে আবেদন করে টাকা জমা দিতে হবে। এরপর ২১ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে তা সরবরাহ করা হবে।

২০১২ সালের ৩১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মোটরযানের আরএফআইডি ট্যাগ, রেট্রো-রিফ্লেকটিভ নম্বর প্লেট ও ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটের উদ্বোধন করেন। এর মধ্য দিয়ে দেশের পরিবহন খাত নতুন যুগে প্রবেশ করে। বাস্তবতা হলো উদ্বোধনের পর এ কার্যক্রম দ্রুততার সঙ্গে সামনের দিকে যায়নি। উদ্বোধনের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৭ লাখ যানবাহনকে ডিজিটাল নম্বরপ্লেট ও আরএফআইডি ট্যাগ সরবরাহ করা হয়েছে বলে বিআরটিএর উপ-পরিচালক সিতাংশু শেখর বিশ্বাস জানান।

কোন মোটরযানের গতিবিধির ওপর নজর রাখার পাশাপাশি ওই বাহন সম্পর্কে তথ্য জানতে এই নিরাপত্তা রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি আইডেনটিফিকেশন ট্যাগ ব্যবহার করা হয়। আর রেট্রো-রিফ্লেকটিভ নম্বরপ্লেট বাধ্যতামূলক করার মাধ্যমে ভুয়া নম্বরপ্লেট ব্যবহার করে অপরাধের হার কমিয়ে আনা সম্ভব।

অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এমএএন ছিদ্দিক, সওজের প্রধান প্রকৌশলী ফিরোজ ইকবাল, বিআরটিএর চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, বিআরটিসির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, ডিটিসির নির্বাহী পরিচালক মোঃ কায়কোবাদ হোসেনসহ সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।