২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নোয়াখালীর ৫ রাজাকারের বিরুদ্ধে তিন অভিযোগ আমলে ॥ যুদ্ধাপরাধী বিচার

  • এমপি হান্নানকে সেফহোমে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার পাঁচ রাজাকারের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগ আমলে নিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। একই সঙ্গে মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২৪ নবেম্বর দিন ঠিক করেন। এর মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত মোঃ আব্দুল কুদ্দুসের জামিন আদেশের জন্য আগামী ১৮ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়েছে। ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য এম এ হান্নানসহ গ্রেফতারকৃত চার রাজাকারকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তদন্ত সংস্থার সেফ হোমে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। অন্যদিকে মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় দুই রাজাকারকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হলে ট্রাইব্যুনাল তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ

দিয়েছেন। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ বুধবার এ আদেশগুলো প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালে অন্য দুই সদস্য রয়েছেন বিচারপতি মোঃ শাহিনুর ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ সোহরাওয়ার্দী।

নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার পাঁচ রাজাকারের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগ আমলে নিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। বুধবার পাঁচজন আসামির মধ্যে গ্রেফতারকৃত চারজনকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল অভিযোগ আমলে নিয়ে পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করে আদেশ দেন। ট্রাইব্যুনালে শুনানিতে ছিলেন প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম, সঙ্গে ছিলেন প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল, প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সিমন, মোখলেসুর রহমান বাদল। অপরদিকে আসামি পক্ষে ছিলেন মোহাম্মদ শিশির মুনির, তরিকুল ইসলাম।

প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম বলেন, বুধবার পাঁচ জনের অভিযোগ আমলে নিয়ে আগামী ২৪ নবেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করেছেন। তার আগে আব্দুল কুদ্দুসের জামিন আবেদন শুনানি হয়। আদালতে আব্দুল কুদ্দুসের জামিন আবেদন করেন আইনজীবী তারিকুল ইসলাম। এ মামলায় ট্রাইব্যুনালের আদেশে এখন পর্যন্ত কারাগারে আছেনÑ আমির আহম্মেদ ওরফে আমির আলী, মোঃ ইউসুফ, মোঃ জয়নাল আবেদীন ও মোঃ আব্দুল কুদ্দুস। অপরদিকে এ মামলায় এখনও গ্রেফতার করা যায়নি আবুল কালাম ওরফে একেএম মনসুর।

নোয়াখালীতে যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত এই পাঁচ রাজাকারের বিরুদ্ধে গত বছরের ১৬ নবেম্বর তদন্ত শুরু হয়ে গত ৩১ আগস্ট শেষ হয়। ওই দিনই তদন্তে প্রতিবেদন প্রসিকিউশনের কাছে জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা। আসামিদের বিরুদ্ধে একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে নোয়াখালীর সুধারাম থানায় ১১১ জনকে গণহত্যাসহ তিনটি অভিযোগ রয়েছে। প্রসিকিউশনের আনা অভিযোগে বলা হয়, একাত্তরের ১৫ জুন নোয়াখালীর সুধারামে ৪১ জনসহ শতাধিক ব্যক্তিকে হত্যা-গণহত্যায় নেতৃত্ব দেন পাঁচ আসামি।

এছাড়াও একাত্তরের ১৩ সেপ্টেম্বর ভোর সাড়ে পাঁচটা থেকে সাড়ে সাতটা পর্যন্ত হত্যা-গণহত্যায় নেতৃত্ব দেন আমির আহম্মেদ ওরফে রাজাকার আমির আলী, আবুল কালাম ওরফে এ কে এম মনসুর ও মোঃ জয়নাল আবেদিন। তৃতীয় অভিযোগে বলা হয়, একাত্তরের ১৩ সেপ্টেম্বর ভোর সাড়ে ছয়টা থেকে বেলা সাড়ে এগারটা পর্যন্ত ৯ জনকে হত্যা-গণহত্যায় নেতৃত্ব দেন আমির আহম্মেদ ওরফে রাজাকার আমির আলী, আবুল কালাম ওরফে এ কে এম মনসুর ও মোঃ ইউসুফ।

তদন্ত সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী, আমির আহম্মেদ ওরফে রাজাকার আমির আলী ও আবুল কালাম ওরফে একেএম মনসুর সকল অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। মোঃ ইউসুফ ও মোঃ জয়নাল আবেদিন দুটি এবং মোঃ আব্দুল কুদ্দুস একটি ঘটনায় জড়িত ছিলেন।

কুদ্দুসের জামিন আদেশ ১৮ অক্টোবর ॥ একাত্তরে মানবতা-বিরোধী অপরাধের অভিযোগে নোয়াখালীর সুধারাম থানার পরোয়ানাভুক্ত পাঁচ রাজাকারের মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত মোঃ আব্দুল কুদ্দুসের জামিন আদেশের জন্য আগামী ১৮ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল। বুধবার এক আবেদনের শুনানি শেষে চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এই নির্দেশ দেন।

এ সময় ট্রাইব্যুনালে আসামির অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে তার পক্ষে জামিন আবেদন ও এর শুনানি করেন আব্দুল কুদ্দুসের আইনজীবী তারিকুল ইসলাম। এ সময় ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম। এর আগে গত ৭ অক্টোবর ট্রাইব্যুনাল আসামির ক্যান্সার রোগে কেমো চিকিৎসার অধীনে থাকার বিষয়ে অবগত হন এবং তার উন্নত চিকিৎসার জন্য একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেন।

সেফহোমে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য এম এ হান্নানসহ চারজনকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তদন্ত সংস্থার সেফহোমে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এ আদেশ প্রদান করেছেন। একইসঙ্গে এ মামলার মোট আট আসামির বিরুদ্ধে ১৭ নবেম্বর তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রসিকিউশনের আবেদনক্রমে এ মামলার আট আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। পরে ওইদিনই ঢাকায় গ্রেফতার হন এম এ হান্নান ও তার ছেলে রফিক সাজ্জাদ। ময়মনসিংহ সদর ও ত্রিশালে গ্রেফতার হন বাকি তিনজন।

কারাগারে পাঠালেন ট্রাইব্যুনাল ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় ইউনুছ আহমদ (৭৫) ও উজায়ের আহমদ চৌধুরীকে (৬২) ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হলে ট্রাইব্যুনার তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।