২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরিশালে সালিশে গৃহবধূকে জুতোপেটা

  • পরকীয়ার অপবাদ

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ এবার পরকীয়ার অপবাদ দিয়ে কথিত সালিশে সন্তানসহ শতাধিক গ্রামবাসীর সামনে বসেই এক গৃহবধূকে একশ’ বার জুতোপেটা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে জেলার উজিরপুর উপজেলার শোলক ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামে।

নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ ও শোলক ইউনিয়নের কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা সেকেন্দার আলীর কন্যা দু’সন্তানের জননী রোকসানা বেগম (৩০) জানান, তার স্বামী মোকছেদ হালাদার দীর্ঘদিন থেকে সন্তানসহ তার কোন খোঁজ খবর না রাখায় তিনি সন্তানসহ বাবার বাড়িতেই বসবাস করে আসছেন। তিনি আরও জানান, তার ভাইয়ের বন্ধু পার্শ্ববর্তী আটক গ্রামের চার সন্তানের জনক শহীদ তালুকদার (৪৫) মাঝে মধ্যে তাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করত। বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে পরকীয়ার অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় মাসুম বেপারি, লিটন বালীসহ ১০/১৫ জন ব্যক্তি শহীদকে রাস্তা থেকে ধরে এনে স্থানীয় বিদ্যুত সাবস্টেশনের একটি কক্ষে আটক করে রাখেন। এ নিয়ে ওইদিন রাতে গ্রামপুলিশ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে প্রভাবশালী শাহজাহান বালী, এনায়েত হোসেন, আফজাল বালী, গোলাম কাদের সরদার সালিশের আয়োজন করেন। জানা গেছে, বৈঠকে উভয়ের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত হলেও গ্রামপুলিশ নজরুল কৌশলে শহীদের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে একতরফাভাবে বিয়ে বন্ধ করেন। একপর্যায়ে নজরুল নিজহাতে গৃহবধূ রোকসানা বেগমকে বিভিন্ন ধরনের কটূক্তি করে ১শ’ বার জুতোপেটা করে শহীদকে ছেড়ে দিয়েছেন।

জুতাপেটার অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে অভিযুক্ত গ্রামপুলিশ নজরুল ইসলাম বলেন, এলাকার টুকিটাকি বিষয়ে সালিশ ব্যবস্থায় রায় কার্যকর করতেই হয়। সালিশি ছেড়ে দিলে অঘটন ঘটতেই থাকবে। তবে তিনি উৎকোচ গ্রহণের বিষয়টি অস্বীকার করেন।