২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিরোপা জিততে চায় পুলিশ বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবল লীগ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ কমলাপুরে অবস্থিত শহীদ সিপাহী বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে সিনথেটিক টার্ফ বসানোর কাজ প্রায় শেষ। আগামী ৩০ অক্টোবর থেকে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লীগের দ্বিতীয় স্তরের খেলা দিয়ে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হওয়ার কথা এই নতুন টার্ফের। গত ১ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে চ্যাম্পিয়নশিপ লীগের মধ্যবর্তী দল বদল। বুধবার দুপুর আড়াইটায় বাফুফে ভবনে এসে ‘ব্যান্ডপার্টি’ নিয়ে এসে বাদ্য-বাজনা বাজিয়ে জাঁকজমকভাবে প্রথম দল হিসেবে দল বদল প্রক্রিয়ার আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে পুলিশ এ্যাথলেটিক ক্লাব।

‘চ্যাম্পিয়নশিপ লীগে এবারই পুলিশ দল অংশ নিচ্ছে। আমরা শক্তিশালী দল গড়েছি। আমাদের লক্ষ্যÑ অভিষেকেই বাজিমাত করা। চ্যাম্পিয়ন হতে চাই আমরা।’ বলেন পুলিশ ক্লাবের উর্ধতন ফুটবল কর্মকর্তা শেখ মোঃ মারুফ হাসান। বাফুফের সদস্য এবং মহানগরী লীগ কমিটির চেয়ারম্যান মারুফ জানালেন তিনি অচিরেই পুলিশ এ্যাথলেটিক ক্লাবের ম্যানেজারের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন।

মারুফ আরও জানান, পুলিশে চাকরি দিয়ে নতুন সাত ফুটবলারকে এবার দলভুক্ত করা হয়েছে। দলের কোচ সেলিম খান নিজেও একজন পুলিশ। তার পদ হচ্ছে সাব-ইন্সপেক্টর। ২৫ বছর ধরে পুলিশে আছেন। নিজেও এককালে খেলেছেন পুলিশ দলে (১৯৭৯-৮৮)। আশির দশকে শেরেবাংলা কাপ ফুটবলে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড় আব্দুস সালাম মুর্শেদীর বিপক্ষেও খেলেছেন। তিনি বলেন, ‘উত্তরায় গত তিন-চার মাস ধরে দলকে অনুশীলন করাচ্ছি। খেলোয়াড়দের উচ্চতা, ফিটনেস, খেলার মান নিয়ে সন্তুষ্ট। দলের সব পজিশনÑ বিশেষ করে রক্ষণভাগই আমার মূল শক্তি। আমার দলের ফরোয়ার্ড আমিরুলকে নিয়ে আমি আশাবাদী। গত বছর দ্বিতীয় বিভাগ ফুটবল লীগ চ্যাম্পিয়ন হয়ে আমরা চ্যাম্পিয়নশিপ লীগে উন্নীত হয়েছি। আমিরুল ওই লীগে ১৪ গোল করেছিল। ঢাকা আবাহনী এবার তাদের দলে খেলার জন্য আমিরুলকে প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু পুলিশের চাকরি তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে আমিরুল আবাহনীতে যায়নি।’