২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্ষুব্ধ জেনিফার লরেন্স

ক্ষুব্ধ জেনিফার  লরেন্স

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ অভিনয় পোশাক-আশাকে সমালোচনা ছাড়াও বেশিরভাগ সময় স্পষ্ট কথা বলার জন্য অনেকেরই বিরাগভাজনের শিকার হয়েছেন হলিউডের সর্বোচ্চ উপার্জনকারী নায়িকা জেনিফার লরেন্স। তারপরও পুরুষ সহকর্মীদের সঙ্গে তার পারিশ্রমিকে দেখা যায় আকাশ-পাতাল তফাত। ক্ষুব্ধ জেনিফার লরেন্স বলছেন, সহ-শিল্পীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখার চেয়ে নিজের পাওয়না বুঝে নেয়ার ব্যাপারেই আগ্রহী তিনি। অভিনেত্রী লেনা ডানহামের ওয়েবসাইট লেনিতে এবার একটি খোলা চিঠি লিখে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অস্কারবিজয়ী এই তারকা। চিঠিতে লরেন্স জানান, দীর্ঘদিন ধরেই পারিশ্রমিক বৈষম্যের ব্যাপারটি তাকে কষ্ট দিচ্ছিল। কিন্তু সহ-অভিনেতাদের সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট হতে পারে এই আশঙ্কায় মুখ খোলেননি তিনি। ২০১৪ সালে সনি পিকচার্সের কর্মকর্তাদের ইমেইল এ্যাকাউন্ট হ্যাক হওয়ায় ‘আমেরিকান হ্যাসেল’ চলচ্চিত্রের কলাকুশলীরা কত পারিশ্রমিক পেয়েছিলেন তা আলোচনায় চলে আসে। এতে দেখা যায় ব্র্যাডলি কুপার, ক্রিশ্চিয়ান বেইলের চেয়ে অনেকটাই কম ছিল এমি এ্যাডামস ও লরেন্সের পারিশ্রমিক। আমি স্বীকার করছি, ওই মুহূর্তে আমি ভাবছিলাম বেশি পারিশ্রমিক চাইলে নির্মাতারা আমাকে খারাপ চোখে দেখবেন। তাই আমি উঁচু কোন দর হেঁকে বসিনি। কিন্তু যখন ইন্টারনেটে আমি ফাঁস হয়ে যাওয়া ইমেইলটা দেখলাম, তখন আমি বুঝলাম আমার পুরুষ সহশিল্পীরা আসলে এতকিছু নিয়ে ভাবেন না। লরেন্স আরও জানান, পারিশ্রমিক ও লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে কথা বলার পর তিনি অনেক পুরুষ সহশিল্পীর বিরাগভাজন হয়েছেন। অন্যদের খুশি করার জন্য আমি আর নিজেকে দমিয়ে রাখতে চাই না। ভাল মেয়ে হয়ে থাকার দিন শেষ। আমার মনে হয় না কোন অভিনেতার এই ধরনের সমস্যায় পড়তে হয়, তারা কোন উচ্চবাচ্য ছাড়াই নিজেদের প্রাপ্য সব কিছু পায়। শীর্ষ পারিশ্রমিক প্রাপ্ত অভিনেত্রী লরেন্সের সঙ্গে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেতা রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের আয়ের পার্থক্য ৩ কোটি ডলারের বেশি। এক গণমাধ্যমের হিসাবে ২০১৪ সালে লরেন্স আয় করেছেন ৫ কোটি ২০ লাখ ডলার, যেখানে ‘আয়রন ম্যান’ খ্যাত রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের আয় হয়েছে ৮ কোটি ডলার।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া