১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শেখ হাসিনা ৩ নবেম্বর নেদারল্যান্ডস যাচ্ছেন

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৩ নবেম্বর চার দিনের সরকারী সফরে নেদারল্যান্ডস যাচ্ছেন। দেশটির প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুত্তের আমন্ত্রণের তিনি এ সফর করবেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানায়। এ সফরের মধ্য দিয়ে দু’দেশের সম্পর্ক আরও জোরদার হবে বলে আশা প্রকাশ করছে দুই দেশ। সফরে দ্বি-পক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগসহ সমুদ্রবন্দর নির্মাণ, পানি ব্যবস্থাপনার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা হবে। এদিকে বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত লিওনি মার্গারিটা কেলেরায়েরে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরের প্রস্তুতিতে দুই দেশই এখন ব্যস্ত সময় পার করছে। আগামী ৩Ñ৬ নবেম্বর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর নেদারল্যান্ডস সফর সময়সূচী নির্ধারিত হয়েছে। এই সফরে কৃষিবিষয়ক সহযোগিতা, পানি, জাহাজ, বন্দর সহযোগিতা, নদী খনন, ভূমি পুনরুদ্ধার, বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক সহযোগিতা ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে এ সফরে বিশেষ গুরুত্ব পাবে। এছাড়া বৈঠকে নেদারল্যান্ডস সরকারের সহযোগিতায় ব-দ্বীপ পরিকল্পনা (বাংলাদেশ ডেল্টা প্ল্যান-২১০০) তৈরির অগ্রগতি নিয়েও আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর এ সফরে দু’দেশের মধ্যে কয়েকটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হতে পারে। সেসব বিষয়ে শেষ মুহূর্তের কাজ করছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। গত ৩০ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে জাতিসংঘের ৭০তম সাধারণ পরিষদ অধিবেশনের মধ্যবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুত্তে। বৈঠকে তিনি চট্টগ্রাম ও পটুয়াখালীর পায়রায় সমুদ্রবন্দর নির্মাণে আগ্রহের কথা জানান শেখ হাসিনাকে। সে বৈঠকেই মার্ক রুত্তেকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর সফরের পরপরই নেদারল্যান্ডসের রানী ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতি ঢাকা সফরের কথা রয়েছে। ডাচ রানী জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের একটি বিশেষ মিশনে ঢাকা আসবেন। উন্নয়নের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক ব্যবস্থা বা ইনক্লুসিভ ফাইন্যান্স ফর ডেভেলপমেন্ট-বিষয়ক বিশেষ পরামর্শক হিসেবে রানী ম্যাক্সিমাকে ২০০৯ সালে নিয়োগ দেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। বিশ্বব্যাপী দারিদ্র্য নিরসন, খাদ্য নিরাপত্তা ও শিক্ষার মতো উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ডাচ রানী ব্যাপক জনসচেনতা সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ডাচ রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাত ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাত করেছন ঢাকায় নবনিযুক্ত নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত লিওনি মার্গারিটা কেলেরায়েরে। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ সাক্ষাত অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, সাক্ষাতকালে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় দুই দেশের একসঙ্গে কাজ করার ওপর গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে দেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে নেদারল্যান্ডসের আরও সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

বাংলাদেশকে সুন্দর দেশ উল্লেখ করে ডাচ রাষ্ট্রদূত লিওনি কেলেরায়েরে সবুজ-শ্যামল দেশটির বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে দেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন। নতুন কর্মস্থলে রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ কৃষি ও ভূমি উন্নয়ন কাজে নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময়ে আগ্রহী।

শেখ হাসিনা দক্ষিণ এশিয়ার গর্ব- শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতকালে ঢাকায় নিযুক্ত শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার জাসোজা গুনাসেকারা শেখ হাসিনাকে দক্ষিণ এশিয়ার গর্ব বলে উল্লেখ করেন। জাতিসংঘের ‘চ্যাম্পিয়ন্স অব দ্য আর্থ’ এবং ‘আইসিটি টেকসই উন্নয়ন’ সম্মাননা পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘আপনি (শেখ হাসিনা) সার্ক পরিবারের গর্ব।’ বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার সাক্ষাত করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণ এশিয়ার পুরো অঞ্চলকে প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ উল্লেখ করে বলেন, আমরা সেগুলো মাথায় রেখেই বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচী হাতে নিচ্ছি। বিদ্যুত, ব্যাংক ও জাহাজ শিল্পখাতে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সহযোগিতা সম্পর্ক জোরদারের ওপরও গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ থেকে উন্নতমানের ওষুধপণ্য বিদেশে রফতানি হওয়ার বিষয়টি তুলে ধরলে এ পণ্য আমদানিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন শ্রীলঙ্কার এই নারী হাইকমিশনার।