২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভারত সীমান্ত নিরাপত্তা জোরদার করছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশীদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্ত এলাকায় কাঁটাতারের বেড়াসহ ব্যাপকভাবে অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কড়াকড়ি আরোপ করছে ভারত। গত সপ্তাহে ভারতের মন্ত্রিসভায় ৪ হাজার ৪শ’ কোটি রুপীর এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বুধবার দি হিন্দু পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সরকারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার জন্য নেয়া প্রকল্পের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণা না এলেও কেবিনেট কমিটি থেকে তা নিশ্চিত করা হয়েছে। বিজেপি সরকারে আসার আগে নির্বাচনে ভারতে বাংলাদেশীদের অভিবাসনের বিষয়টি অন্যতম প্রধান ইস্যু হয়ে দাঁড়ায়। ভারতের সীমান্ত নিরাপত্তা বাহিনীর হিসেবেই চলতি বছরের শুরু থেকে আগস্ট পর্যন্ত ১ হাজার ৭৩১ বাংলাদেশী ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করেছে। এ ধরনের অভিবাসন ঠেকাতেই প্রকল্পটি নেয়া হচ্ছে। এ প্রকল্পের আওতায় ২শ’ কিলোমিটার পর্যন্ত কাঁটাতারের বেড়া দেয়া হবে। এছাড়া সীমান্ত এলাকাজুড়ে ৪শ’ কিলোমিটার পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ করা হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কেবিনেট কমিটি জানিয়েছে, জমি অধিগ্রহণ, বন বিভাগের ছাড়পত্র, জনরোষ প্রতিরোধসহ নানাবিধ কারণে সীমান্ত এলাকায় বেড়া দেয়ার ক্ষেত্রে সময়সীমা ২০১৯ সাল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আগের সরকারের সময় সীমান্ত এলাকায় অবকাঠামোগত উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে ৮শ’ ৫০ কিলোমিটার বেড়া দেয়ার কাজ শেষ করা হয়। প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে ১ হাজার ৯৭৩ দশমিক ৫৭২ কিলোমিটার পর্যন্ত বেড়া দেয়ার কাজ শেষ করা হয়। উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি বাকি কাজ শেষ করার জন্য সময় পুনর্নির্ধারণ করতে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত তা চূড়ান্ত হয়নি। বিশেষ করে জমি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে রাজ্য সরকারগুলোর পরামর্শ নিতে হবে। চলতি বছরের মে মাসে ইউনিয়ন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সংশ্লিষ্ট মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে জমি অধিগ্রহণের বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত জানাতে চিঠি দিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের সীমান্ত রয়েছে ২ হাজার ২১৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার, অসমের সঙ্গে ২৬৩ কিলোমিটার, মেঘালয়ের সঙ্গে ৪৪৩ কিলোমিটার, ত্রিপুরার সঙ্গে ৮৫৬ কিলোমিটার এবং মিজোরামের সঙ্গে ৩১৮ কিলোমিটার।