২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমদানি-রফতানিতে পণ্যের গুণগত মান বজায় রাখার আহ্বান শিল্পমন্ত্রীর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, আমদানি ও রফতানি উভয় ক্ষেত্রেই পণ্যের গুণগত মান বজায় রাখতে হবে। মান বজায় রেখে ব্যবসা পরিচালনা করলে দেশ এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীরাও অধিক লাভবান হয়ে থাকেন। দ্রুত শিল্পায়নের সঙ্গে সঙ্গে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তবে শিল্পের যত উন্নয়নই হোক, পণ্যের মান বজায় না থাকলে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকা অসম্ভব। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মডেল। বিশ্বমন্দার সময়েও দেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে নি। জ্ঞানভিত্তিক সবুজ শিল্পায়ন বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার, আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে পণ্যের গ্রহণযোগ্যতা আরও বৃদ্ধি করতে হবে।

বৃহস্পতিবার ‘বিশ্ব মান দিবস-২০১৫’ উপলক্ষে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) আয়েজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন। দিবসটি এ বছরের প্রতিপাদ্য ছিল ‘বিশ্বব্যাপী সর্বজনীন ভাষা-মান’।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বিএসটিআই এর টেস্টিং কার্যক্রম আন্তর্জাতিকভবে গ্রহণযোগ্য করতে আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন ও নতুন ল্যবরেটরি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। শিল্প উদ্যোক্তাদের দ্রুত সেবা ঢাকায় বিএসটিআই এর কেন্দ্রীয় অফিসসহ বিভাগীয় কার্যালয়গুলোতে ওয়ানস্টপ সার্ভিস সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। জেলা পর্যায়েও এ কার্যক্রম প্রসারিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দক্ষ প্রতিষ্ঠান হিসাবে বিএসটিআইকে গড়ে তোলার লক্ষে ১৯৩ জন জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং ১৩৬ টি নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, জ্ঞানভিত্তিক সবুজ শিল্পায়ন বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার। দেশব্যাপী পরিবেশবন্ধব ও কোয়লিটি শিল্পায়নের ধারা জোরদার করা হচ্ছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে মান বিষয়ক সচেতনতা ধীরে ধীরে বাড়ছে। দেশী-বিদেশী ক্রেতা সাধারণের আস্থা অর্জনে পণ্যের গুণগত মানের কোন বিকল্প নেই। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে পণ্যের গ্রহণযোগ্যতা আরও বৃদ্ধি করতে হবে। আমু আরও বলেন, সমুদ্রের তলদেশে যে সম্পদ রয়েছে তার যথাযথ ব্যবহার সম্ভব হলে কেবল উন্নত দেশ নয়, পৃথিবীর একমাত্র উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশের।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বারষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, পণ্যের উৎপাদন থেকে বিপনণের প্রতিটি ক্ষেত্রে মানের কোন বিপল্প নেই। মান বজায় রাখতে সচেতনা সৃষ্টি করতে হবে। শিল্পায়নের মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। শিল্পায়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি করতে হবে। ১৫ বছর আগে আমরা চিন্তাও করি নি, ঔষধ রফতানি করবো। শুধু ঔষধ নয়, বাণিজ্যের নানা ক্ষেত্রে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। বর্তমান সরকারের অব্যাহত প্রচেষ্টায় ব্যবসা বাণিজ্য কৃষিসহ সর্বক্ষেত্রে দেশ বদলে গেছে।

তিনি আরও বলেন, বিএসটিআই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ভেজাল বিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে। বিএসটিআই শুধু ভুল ধরিয়ে দিতে পারে, বাকি কাজটা আমাদের করতে হবে। ভেজাল পণ্য বা মান বহির্ভূত পণ্য উৎপাদন ও বিতরণ করবো না এমন প্রত্যয় নিজেদের মধ্যে থাকতে হবে।

বিএসটিআই’র মহাপরিচালক ইকরামুল হকের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এফবিসিসিআই সভাপতি আব্দুল মতলুব আহমেদ, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া প্রমুখ।