১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুমিল্লা বোর্ডে জেএসসির ১৬ শতাধিক সনদ হারিয়ে গেছে

  • তিন উপজেলায় লিফলেট বিতরণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ১৫ অক্টোবর ॥ কুমিল্লা বোর্ডে জেএসসি পরীক্ষায় ২১ বিদ্যালয়ের উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ১৬ শতাধিক মূল সনদপত্র বোর্ড থেকে কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার পথে উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সনদপত্র ফিরে পেতে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে চাঁদপুর ও লক্ষীপুরের ৩ উপজেলাব্যাপী লিফলেট বিতরণসহ থানায় জিডি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকদের মাঝে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।

জানা যায়, কুমিল্লা বোর্ডের অধীন ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত জেএসসি পরীক্ষায় লক্ষীপুর জেলার রায়পুর এল.এম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২১ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জেএসসি পরীক্ষা দেয়। ওই কেন্দ্র থেকে উত্তীর্ন হওয়া পরীক্ষার্থীদের নামে বোর্ড থেকে ইস্যুকৃত ১ হাজার ৬১৬ মূল সনদপত্র ওই কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়ার পথে সোমবার উধাও হয়। বৃহস্পতিবার এ খবর বোর্ড এবং এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ওই কেন্দ্রে ভিড় করেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে উক্ত সনদগুলো হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি বোর্ড কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন। সূত্র জানায়, গত সোমবার রায়পুর এলএম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব আবুল কালাম চলতি বছরের জেএসসি পরীক্ষার কাগজপত্রের সঙ্গে ২০১৪ সালে ওই কেন্দ্র থেকে উত্তীর্ণ ১ হাজার ৬১৬ পরীক্ষার্থীর মূল সনদ বোর্ড থেকে গ্রহণ করেন। একটি পিকআপ ভ্যানযোগে উক্ত সনদ ও অন্যান্য কাগজপত্র নিয়ে সন্ধ্যার দিকে বোর্ড থেকে চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ সড়ক হয়ে লক্ষীপুরের রায়পুর যাওয়ার সময় সনদপত্রগুলো হারিয়ে যায়। এ ঘটনার পর সনদপত্র ফিরে পেতে রায়পুর, রামগঞ্জ ও হাজীগঞ্জ এলাকায় লিফলেট বিতরণসহ রায়পুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন কেন্দ্র সচিব ও ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম। বৃহস্পতিবার বিকালে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উধাও হয়ে যাওয়া জেএসসির সনদ পত্র গুলির সন্ধান মিলেনি। মোবাইল ফোনে কেন্দ্র সচিব আবুল কালাম জানান, পিকআপভ্যান থেকে অজ্ঞাত স্থানে সনদপত্রগুলো হারিয়ে যায়, তাই এসব সনদ ফিরে পেতে এলাকায় প্রচারণা চালানো হচ্ছে। বোর্ডের উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (সনদ) বাহাদুর হোসেন জানান, কেন্দ্র সচিব মোবাইল ফোনে সনদপত্র হারিয়ে যাওয়ার বিষয়ে বোর্ডকে অবহিত করেছেন, এ বিষয়ে লিখিতভাবে অবহিত করার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরও জানান, পুনরায় ফি প্রদান সাপেক্ষে দ্বি-নকল সনদ দেয়ার বিধান রয়েছে, তাই হারিয়ে যাওয়া সনদ নিয়ে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই।

এই মাত্রা পাওয়া