১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বোকো হারাম দমনে আফ্রিকায় ড্রোন ঘাঁটি গড়ছে যুক্তরাষ্ট্র

  • ক্যামেরুনে মোতায়েন করা হচ্ছে ৩০০ সৈন্য

হোয়াইট হাউস বুধবার বলেছে, বোকো হারাম জঙ্গীদের খুঁজে বের করার লক্ষ্যে আফ্রিকায় একটি ড্রোন ঘাঁটি প্রতিষ্ঠার জন্য ৩শ’ মার্কিন সৈন্য মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র। ইসলামী চরমপন্থীদের নেটওয়ার্ক বোকোহারাম দীর্ঘসময় ধরে রক্তক্ষয়ী বিদ্রোহে নাইজিরিয়া ও পার্শ্ববর্তী দেশগুলোকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের।

এ মার্কিন সৈন্যদের মোতায়েন করা হবে নাইজিরিয়ার পূর্বে ক্যামেরুনে। সেখানে তারা মনুষ্যবিহীন প্রিডেটর ড্রোনের ক্ষুদ্র একটি বহর পরিচালনা করবে। বিমানগুলো এ অঞ্চলে নজরদারি চালাবে। প্রতিরক্ষা দফতর এ কথা বলেছে। প্রায় ৯০ জন্য সৈন্য সোমবার সেখানে এসে পৌঁছেছে। অবশিষ্ট সৈন্যরা আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে সেখানে পৌঁছাবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। নাইজিরিয়ায় গড়ে ওঠা বোকো হারাম বেশ কয়েক বছর যাবত রক্তক্ষয়ী বিদ্রোহ চালিয়ে যাচ্ছে। তারা এখন ছড়িয়ে পড়েছে পার্শ্ববর্তী ক্যামেরুন, শাদ ও নাইজারে। তাদের সহিংসতায় এ পর্যন্ত নিহত হয়েছে প্রায় ২০ হাজার মানুষ। মার্কিন স্বার্থসমূহ এ জঙ্গী গ্রুপের লক্ষ্যবস্তু না হলেও ওবামা প্রশাসন উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছে যে, তাদের হুমকি আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

বোকো হারামের নেতারা এ বছরের প্রথম দিকে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) প্রতি আনুগত্যের প্রতিশ্রুতি দেয়। দুটি গ্রুপই মধ্যপ্রাচ্যে ও আফ্রিকায় মুসলিম দেশগুলোতে একটি খিলাফত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করছে। হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জোশ আর্নেস্ট সাংবাদিকদের বলেছেন, আফ্রিকায় বোকো হারামের সন্ত্রাস হুমকি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি। মার্কিন সৈন্য মোতায়েনের মধ্য দিয়ে বোকো হারামের বিরুদ্ধে অভিযানে যুক্তরাষ্ট্র বেশ প্রত্যক্ষভাবে জড়িত হয়ে পড়েছে বলে বোঝা যায়। নাইজিরিয়ায় দু’শ’র বেশি অপহৃত স্কুলছাত্রীর অনুসন্ধানে সহযোগিতার জন্য পেন্টাগন ২০১৪ সালে ১টি গোয়েন্দা ড্রোন ও ৮০ জন মার্কিন সৈন্য পাঠায় শাদে।