২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিজার তাভেলা ও হোশি কুনিও হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন

  • বিএনপি-যুবদলের দুই নেতা গোয়েন্দা নজরদারিতে

শংকর কুমার দে ॥ ইতালীয় নাগরিক সিজার তাভেলা ও জাপানী নাগরিক হোশি কুনিও- দুই বিদেশী নাগরিক হত্যাকা-ের রহস্য উদ্ঘাটন করেছেন তদন্তকারীরা। জাপানী নাগরিক হত্যাকা-ে জড়িত সন্দেহে একজন বিএনপি নেতা এবং ইতালীয় নাগরিক হত্যার ঘটনায় এক যুবদল নেতাকে নজরদারিতে রেখেছেন গোয়েন্দারা। হত্যাকারীদের নাম, পরিচয় পেয়েছেন তদন্তকারীরা। আগামী দু’একদিনের মধ্যেই খুনীচক্রের এক বা একাধিক সদস্য গ্রেফতার হয়ে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিতে পারে এবং সংবাদ সম্মেলন করে দুই বিদেশী খুনের ঘটনার দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের আদ্যপান্ত বর্ণনা করতে পারে এমন পর্যায়ের তদন্তে অগ্রগতি হয়েছে। তদন্তের তদারকির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে এমনই তথ্য জানা গেছে।

তদন্ত সূত্র জানান, তদন্তের অগ্রগতির প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার শেখ রেজাউল হায়দারকে প্রধান করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে আরও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুই বিদেশী খুনের সাক্ষ্য, প্রমাণ, আলামত এমন নির্ভুলভাবে মিলিয়ে দেখা হচ্ছে যাতে তদন্ত কোন বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ না হয়।

এমনকি দুই বিদেশী হত্যাকা-ের পর আইএস-এর নামে ঢাকা ও রংপুর থেকে যারা টুইট বার্তা আপলোড করেছে তাদের চিহ্নিত করার পর আরও প্রযুক্তিগত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে দুই বিদেশী হত্যাকা-ের ষড়যন্ত্রে দেশী ও বিদেশী রাজনৈতিক চক্র জড়িত এটা প্রায় নিশ্চিত হয়েছেন তদন্তকারীরা। কখন, কিভাবে, কোথায়, দুই বিদেশী হত্যাকা-ের ষড়যন্ত্র হয়েছে এবং কারা জড়িত তার তথ্য এখন তদন্তকারীদের হাতের মুঠোয় বলে জানা গেছে।

তদন্তের তদারকির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এমন একজন উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা বলেছেন, এটা নিশ্চিত যে, মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠের মতোই পেট্রোলবোমার সহিংস সন্ত্রাস করে যেভাবে সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল, তারই আরেক নতুন মেরুকরণ বিদেশীদের হত্যাকা-ের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে দুই বিদেশী হত্যাকা-ের আরেক নীল নক্সা। ইতালীয় নাগরিক হত্যাকা-ের সময়ে একটি মোটরসাইকেলে যে ৩ জন খুনী হত্যাকা-ে অংশগ্রহণ করেছে তাদেরকে হেফাজতে আনার চেষ্টার বিষয়টিও অনেক দূরই অগ্রগতি হয়েছে। ঢাকার গুলশানে ইতালীয় নাগরিক হত্যাকাণ্ডে যে ৩ জন জড়িত তারা সবাই বিএনপির সহযোগী সংগঠন যুবদলের সশস্ত্র ক্যাডার বলে তদন্তে প্রাথমিক পর্যায়ে নিশ্চিত হয়েছেন তদন্তকারীরা। রংপুরের জাপানী নাগরিক হত্যাকা-ের সঙ্গে একজন বিএনপির স্থানীয় নেতার সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়ার পর তা আরও গভীরে গিয়ে খতিয়ে দেখার পর্ব চলছে। কারণ ব্যালাস্টিক পরীক্ষার প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ইতালীয় নাগরিককে যেই ধরনের অস্ত্র দিয়ে গুলি করা হয়েছে, ঠিক একই ধরনের অস্ত্র দিয়েই জাপানী নাগরিককেও গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। দুই বিদেশী খুনের পর যারা আইএস-এর নামে টুইট বার্তা আপলোড করেছে তারাও চিহ্নিত। কেউ কোন দিন বলতে না পারে যে এটা জজ মিয়া নাটক বানানো হয়েছে, সেজন্য প্রযুক্তিগত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই তদন্তের সমাপ্তির চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক শক্তি জড়িত ॥ ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বৃহস্পতিবার ডিএমপির সদর দফতরে একটি কোম্পানির দেয়া গাড়ির চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বলেছেন, তদন্তে অনেক বেশি অগ্রগতি হয়েছে। খুনীদের বিষয়ে তথ্য উপাত্ত আছে। আমরা সব প্রমাণ পেলেই তাদের আইনের আওতায় আনব। তবে কোন জঙ্গী সংশ্লিষ্টতা নেই। এ হত্যাকা-ের পেছনে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক শক্তি জড়িত থাকতে পারে বলে জানান তিনি।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার শেখ রেজাউল হায়দারকে প্রধান করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অন্য সদস্যদের নিয়ে আরও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলেও জানান ডিএমপি কমিশনার।

তিন জনকে ঘিরেই তদন্ত ॥ ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার ডিএমপির মুখপাত্র মনিরুল ইসলাম বৃহস্পতিবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ইতালীয় নাগরিক সিজার তাভেলা হত্যাকা-ে যে তিনজন সরাসরি অংশগ্রহণ করেছিল, তাদের ঘিরেই আমাদের তদন্ত কাজ চলছে। আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য হলো ওই তিন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হলে- হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও অস্ত্র উদ্ধারের পর তারাই বলবে, আসলে তারা কারা? তিন জন জঙ্গী সংগঠনের সদস্য কি না- জানতে চাইলে ডিএমপি মুখপাত্র মনিরুল বলেন, এ তিনজনের এ রকম কোন পরিচয় পাওয়া যায়নি। তাদের সঙ্গে ইসলামিক স্টেট (আইএস) বা কোন জঙ্গী সংগঠনের সম্পৃক্ততা নেই।

তিন ব্যক্তির রাজনৈতিক পরিচয় রয়েছে কি না- জানতে চাইলে ডিএমপি মুখপাত্র মনিরুল ইসলাম বলেন, আমরা হত্যাকারীদের গ্রেফতারের ওপর জোর দিচ্ছি। কিলাররা উপস্থিত থেকে কিল করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান ২ নম্বরের ৯০ নম্বর রোডের মাথায় তাভেলা সিজারকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।