২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাবি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে পাঁচ জনকে আটক

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের(ঢাবি) ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষে ‘গ’ ইউনিট এর অধীনে ১ম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণীর ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে পাঁচ জনকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার ভর্তি পরীক্ষার পর দুইজনকে এবং বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে আটক করা হয়। তাদের মধ্যে একজনকে এক বছরের কারাদ- দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। বাকি চারজন পুলিশের কাছে আটক রয়েছে।

জানা যায়, শুক্রবার একই রোল নম্বর(৭০৬৬৭৪) দিয়ে সঞ্জয় কুমার ও মেহেদী হাসান নামের দুইজন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচার থিয়েটার কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়। পরীক্ষা শেষে তাদের দুইজনকে ওই কেন্দ্রের দায়িত্বরত শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে নিয়ে যায়। যাচাই-বাচাই করে দেখা যায় এই রোল নম্বরের প্রকৃত আবেদনকারী মেহেদী হাসান। সঞ্জয় কুমার জালিয়াতির মাধ্যমে এই রোল নম্বর ব্যবহার করে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। পরে মেহেদীকে ছেড়ে দেওয়া হয় এবং প্রক্টর অফিসে পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শারমিন সুলতানা জালিয়াতির কারণে সঞ্জয় কুমারকে এক বছরের কারাদন্ড দেয়। পাবলিক পরীক্ষাসমুহ অপরাধ আইন ১৯৮০-এর ৩(খ) ধারায় তাকে এ শাস্তি দেওয়া হয়। এছাড়া সঞ্জয়কে ভর্তি জালিয়তিতে সাহায্য করায় তার বন্ধু আরেক মেহেদী হাসানকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়।

এদিকে ভর্তি পরীক্ষার আগের দিন বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে জালিয়াত চক্রের তিন সদস্যকে ডিবি পুলিশ আটক করেছে বলে জানিয়েছেন ঢাবির ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক এ এম আমজাদ। এসময় তাদের কাছ থেকে পরীক্ষায় জালিয়াতির যন্ত্র উদ্ধার করা হয়। আটককৃত তিনজনের মধ্যে একজনের নাম জানা গেছে। তিনি ঢাবির আইন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী বিজয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলেও জানান প্রক্টর।

শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরের এবং বাইরের মোট ৫৬টি কেন্দ্রে একযোগ ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে এক হাজার ১৭০টি আসনের জন্য মোট ৪৩ হাজার ২৪২জন জন ভর্তিচ্ছু অংশ নেয়।