১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ম্যারাডোনার চেয়ে মেসি ভাল!

  • আর্জেন্টাইন অধিনায়কের প্রশংসায় ক্যাসিয়াস, মামলা ঝামেলায় স্পেন ছাড়ার গুঞ্জন বার্সিলোনা তারকার

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ লিওনেল মেসির প্রশংসার কমতি নেই। তবে যখন তা দিয়াগো ম্যারাডোনাকেও ছাড়িয়ে যায় সেটা নিয়ে হৈহুল্লোড় হতে বাধ্য। শুক্রবার এক সাক্ষাতকারে কিছু কিছু ক্ষেত্রে বরং ম্যারাডোনার চেয়ে মেসিকেই এগিয়ে রেখেছেন সাবেক বার্সিলোনা ও আর্জেন্টিনার কোচ সিজার লুইস মেনোট্টি।

১৯৭৮ সালে আর্জেন্টিনার প্রথম বিশ্বকাপজয়ী দলের কোচ ছিলেন মেনোট্টি। মেসি ও ম্যারাডোনার মধ্যে তুলনা করতে যেয়ে দু’জনেরই প্রশংসা করেছেন তিনি। ১৯৮৬ সালে ম্যারাডোনার নেতৃত্বে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ জয় করে। মেসি বিশ্বকাপ জিততে না পারলেও গত বছর তার নেতৃত্বে ফাইনালে খেলেছে আর্জেন্টিনা। মেনোট্টির মতে, ম্যারাডোনা বিশ্বকাপ জিতলেও জাতীয় দলের হয়ে মেসি বেশি অপরিহার্য। তিনি বলেন, তারা দু’জনই সমান। দিয়াগো একাই পার্থক্য গড়ে দিতেন, তার নেতৃত্বও ছিল অসাধারণ। তবে মেসি আরও বেশি কিছু। কারণ ক্লাবের হয়েও সে অপ্রতিরোধ্য। মেসির মধ্যে অনেক দক্ষতা আছে, এতে কোন সন্দেহ নেই।

এক বছর আগে কার্লোস বিলার্ডোও বলেছিলেন, জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ম্যারাডোনার চেয়ে মেসি এগিয়ে। সরাসরি কোচিংরে সঙ্গে যুক্ত না থাকলেও আর্জেন্টিনার সর্বজন শ্রদ্ধেয় বিলার্ডো জড়িয়ে আছেন ফুটবলের সঙ্গেই। দেশটির ফুটবলের উদীয়মান খেলোয়াড়দের নিয়ে তার কাজ। যে কারণে প্রায়শই আর্জেন্টিনার আনাচ-কানাচে সফরে যেতে হয় তাকে। এসব সফরে গিয়েই মূলত মেসির জনপ্রিয়তাটা অনুধাবন করেছেন বিলার্ডো। তবে মেসি ও ম্যারাডোনাকে দুই প্রজন্মের দুই সেরা তারকা হিসেবেই অভিহিত করেছেন তিনি। বিলার্ডো বলেন, মেসি ভাল খেললেই যে দল জিতছে, এমনটা কিন্তু অবধারিত কিছু নয় কিন্তু দিয়াগো (ম্যারাডোনা) ভাল খেললেই দল জিতত। সেটা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে হোক কিংবা ক্লাব। তবে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে বর্তমানে মেসিই এগিয়ে।

মেসির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ গোলরক্ষক ও অধিনায়ক ইকার ক্যাসিয়াসও। গোলপোস্টে বিশ্বের অনেক তারকাকে সামলাতে হয়েছে তাকে। তবে সবার মধ্যে লিওনেল মেসিকে সামলানোই সবচেয়ে কঠিন বলে জানিয়েছেন স্পেন তারকা। উয়েফার ফেসবুক পেজে প্রশ্নোত্তর পর্বে ক্যাসিয়াসকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, ‘আপনি যাদের মুখোমুখি হয়েছেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে কঠিন স্ট্রাইকার কে?’ এই প্রশ্নের জবাবে বর্তমানে পর্তুগালের ক্লাব এফসি পোর্তোর গোলরক্ষক বলেন, ‘মেসি, সবসময়ই মেসি। আমি তার বিরুদ্ধে অনেকবার খেলেছি।’

জোর গুঞ্জন, কর ফাঁকি মামলায় জর্জরিত হয়ে মেসি নাকি বার্সিলোনা ছাড়তে পারেন। শুধু তাই নয়, স্পেন থেকেই চলে যেতে পারেন তিনি! কারণ ক’দিন পরপরই এ নিয়ে পুলিশ কিংবা আইনজীবীর জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে মেসিকে। এভাবে যদি চলে দিনের পর দিন চলছে। যে কারণে মেসি নাকি মহাবিরক্ত। স্প্যানিশ এক সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, আর্জেন্টাইন তারকা মনে করছেন, তার বিরুদ্ধে ‘ষড়যন্ত্র’ হচ্ছে। তিনি বুঝতেই পারছেন না, ষড়যন্ত্রকারীদের উদ্দেশ্য কী। অহেতুক অবিরত সংবাদমাধ্যম লেখালেখী আর কর কর্তৃপক্ষের হয়রানিতে মেসি নাকি স্পেনই ছাড়ার কথা ভাবছেন! যদিও মাত্র ১৩ বছর বয়সে স্পেনে আসা ২৮ বছর বয়সী মেসির সঙ্গে বার্সার বর্তমান চুক্তি ২০১৮ পর্যন্ত।