২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলেন ম্যাককালাম!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ কথাতেই আছে, ‘লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু।’ এ কথা বিশ্ব ক্রিকেটে অনেকেই মনে রাখেননি। তাই তো মেতেছেন ফিক্সিংয়ের মতো জঘন্য নেশায়। কিন্তু কোন লোভ করতে যাননি নিউজিল্যান্ডের বর্তমান অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম।

তিন তিনবার স্পট ফিক্সিং করার প্রস্তাব পেয়েও তাতে সাড়া দেননি। সে পথে হাঁটেননি নিউজিল্যান্ডের বর্তমান অধিনায়ক। এতদিন ক্রিকেট বিশ্বের কাছে এ বিষয়টি অজানাই ছিল। লন্ডনের সাউদার্ন ক্রাউন আদালতে সাবেক কিউই অলরাউন্ডার ক্রিস কেয়ার্নসের মামলার সাক্ষ্য দিতে গিয়েই ম্যাককালামের মুখ থেকে অজানা তথ্যগুলো বের হয়। এর আগে লু ভিনসেন্ট ও কেয়ার্নসের স্পট ফিক্সিং ও ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার বিষয়টি তুলে ধরেছিলেন। ২০০৮ সালে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের (আইপিএল) প্রথম আসরের আগে ম্যাককালামকে স্পট ফিক্সিংয়ে জড়ানোর প্রলোভন দেখান কেয়ার্নস। নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলতে তখন কলকাতায় অবস্থান করছিলেন ম্যাককালাম। আদালতে দাঁড়িয়ে সাক্ষ্য প্রদানকালে এসব কথাই তুলে ধরেন ম্যাককালাম। কেয়ার্নসও সে সময় উপস্থিত ছিলেন। কিউই অধিনায়ক বলেন, ‘কেয়ার্নস আমাকে ফোন করে বলেছিলেন আমার জন্য একটা ব্যবসায়িক প্রস্তাব আছে। পরে সে আমার সঙ্গে কলকাতাতেই দেখা করে ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়ানোর প্রস্তাব দেয়। প্রথম ভেবেছিলাম সে হয় তো রসিকতা করছে। কিন্তু তার সিরিয়াসনেস দেখে আমি রীতিমতো অবাক হয়েছিলাম। তবে আমি তার প্রস্তাবে রাজি হইনি। পরে সে আমাকে আরও দু’বার এমন প্রস্তাব দিয়েছিল।’ আইপিএলের সাবেক চেয়ারম্যান ললিত মোদি অনেক আগেই কেয়ার্নসের বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার অভিযোগ তুলেছিলেন। কিন্তু ২০১২ সালে লন্ডনের আদালতে উল্টো মোদির বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন কেয়ার্নস। শুনানি শেষে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১ লাখ ৪৭ হাজার ডলার পান সাবেক কিউই তারকা। কিন্তু পরবর্তীতে কেয়ার্নসের বিরুদ্ধে আদালতে মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়ার অভিযোগ ওঠে। ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের তদন্তেই তা বেরিয়ে আসে। এরপর থেকেই তার বিরুদ্ধে নতুন করে তদন্ত শুরু হয়। যা এখন পর্যন্ত বিরাজ করছে। স্পট ফিক্সিং করার জন্য কেয়ার্নস ৭০ হাজার থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার ডলার পর্যন্ত দেয়ার প্রস্তাব করেছিলেন ম্যাককালামকে। এমন দাবিই করেন কিউই অধিনায়ক। তবে তাৎক্ষণিকভাবে কি কারণে তিনি বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আনেননি আইনজীবীর এমন প্রশ্নের জবাবে ম্যাককালামের উত্তর, ‘কেয়ার্নসের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তি করতে চাইনি বলেই বিষয়টি নিজের মধ্যেই রাখি। তাছাড়া আমি তো আর ওই পথে পা বাড়ায়নি।’