১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানদের পছন্দের ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন

  • টেলিগ্রাফ অবলম্বনে

ক্ষমতাধর তাঁরা, বিশ্বনেতারা। আমাদের মতো যখন-তখন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারেন না। মোবাইল ফোন ব্যবহার করলেও খেয়াল রাখতে হয় নানা বিষয়, থাকতে হয় সতর্ক। মোবাইল ব্র্যান্ড বেছে নেয়ার ক্ষেত্রেও তাঁরা সতর্ক থাকেন, সহজে প্রকাশ করতে চান না। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই ফাঁস হয়ে যায় তাঁদের প্রিয় মোবাইল ফোনটির কথা।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা রীতিমতো ব্ল্যাকবেরির ভক্তই বলা চলে। প্রায় এক দশক ধরেই ব্ল্যাকবেরি ব্যবহারে অভ্যস্ত ওবামা। বিভিন্ন সময় ব্ল্যাকবেরি হাতে

দেখাও গেছে ক্ষমতাধর এই বিশ্বনেতাকে। তবে ব্ল্যাকবেরিতে নিরাপত্তা-ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় হোয়াইট হাউসের সিদ্ধান্তে ব্ল্যাকবেরি ব্যবহার ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। ব্ল্যাকবেরির পরিবর্তে ওবামার হাতে শিগগিরই দেখা যেতে পারে এ্যান্ড্রয়েডনির্ভর কোন স্মার্টফোন। বিখ্যাত টেলিগ্রাফ পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, ব্ল্যাকবেরি ছেড়ে বারাক ওবামা এ্যান্ড্রয়েডনির্ভর স্মার্টফোন ব্যবহার করতে পারেন। বারাক ওবামার ব্যবহারের জন্য এলজি ও স্যামসাংয়ের দুটি মডেলের

স্মার্টফোন পরীক্ষা করে দেখেছে হোয়াইট হাউস।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনেরও পছন্দ ব্ল্যাকবেরি ফোন। মোবাইল ফোনে গোয়েন্দাগিরির আশঙ্কার পরও ক্যামেরন তাঁর আস্থা রাখছেন ব্ল্যাকবেরিতেই।

ওবামা, ক্যামেরন ছাড়াও ব্ল্যাকবেরির আরেকজন বিখ্যাত ভক্ত জার্মানির চ্যান্সেলর এ্যাঙ্গেলা মের্কেল। মের্কেল ব্ল্যাকবেরি জেড১০ মডেলের মোবাইল ব্যবহার করেন। এতে ফোন ট্যাপিং ঠেকাতে সিকুসাইট এনক্রিপশন প্রযুক্তি যুক্ত করা আছে। অবশ্য এর আগে ২০০৯ সাল থেকে জার্মানির চ্যান্সেলর নকিয়া ৬২১০ সøাইড ফোন ব্যবহার করতেন। গত বছরের জুলাই মাসে ব্ল্যাকবেরি ব্যবহার শুরু করেছেন মের্কেল।

ব্ল্যাকবেরির আরেক ভক্ত হিলারি ক্লিনটন। ব্ল্যাকবেরি থেকে তাঁকে বিভিন্ন সময় বার্তা পাঠাতেও দেখা গেছে। সব মিলিয়ে ক্ষমতাধর বিশ্বনেতাদের অনেকের পছন্দের ব্র্যান্ড ব্ল্যাকবেরি।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কোস হল্যান্ড অবশ্য এ্যাপল ভক্ত। তিনি আইফোন-৫ নিয়েই বেশ সন্তুষ্ট। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন মোবাইল ফোন ব্যবহারের কথা দীর্ঘদিন ধরে অস্বীকার করে আসছেন। ২০১০ সালে তিনি একবার বলেছিলেন, ‘মোবাইল ফোন হচ্ছে একটা ঝামেলা, এই যন্ত্র কাছে থাকলে রিং বাজতেই থাকে।’

তবে ২০১২ সালে পুতিনকে এ্যান্ড্রয়েডনির্ভর একটি স্মার্টফোন ব্যবহার করতে দেখা যায়।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন পছন্দ করেন এইচটিসি বাটারফ্লাই ফোন। অবশ্য উত্তর কোরিয়ার তৈরি এ্যারিরাং স্মার্টফোন নিয়েও তাঁকে কথা বলতে শোনা যায়।

মোবাইল ফোন ব্যবহারের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছেন থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাত্রা। তিনি কমপক্ষে পাঁচটি ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। থাইল্যান্ডের বৃহত্তম মোবাইল ফোন অপারেটর এ্যাডভান্সড ইনফো সার্ভিসেসের প্রতিষ্ঠাতাও তিনি। এখানে প্রধান নির্বাহী হিসেবে দায়িত্বেও ছিলেন। তাঁর পছন্দের ফোন আইফোন-৫। এ ছাড়া লুমিয়া ৯২০ ও এ্যান্ড্রয়েডনির্ভর স্মার্টফোন রয়েছে তাঁর।