২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিচারপতি নিয়োগে সরকারী ভূমিকা খারিজ করল ভারতের সুপ্রীমকোর্ট

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ভারতে সুপ্রীমকোর্ট বিচারপতি নিয়োগে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত বাতিল করে দিয়েছে। দেশটির শীর্ষ আদালত জাতীয় বিচার বিভাগীয় নিয়োগ কমিশন বাতিল করে দু’দশকের পুরনো কলেজিয়াম ব্যবস্থাকেই বহাল রাখার কথা ঘোষণা করল।

কেন্দ্রীয় সরকার সুপ্রীমকোর্ট ও বিভিন্ন রাজ্যের হাইকোর্টগুলোর বিচারপতিদের নিয়োগে দীর্ঘ দুই দশকের কলেজিয়াম ব্যবস্থাকে পাল্টে দিয়েছিল। এ জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রিসভা জাতীয় বিচার বিভাগীয় নিয়োগ কমিশন (এনজেএসি) গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু কমিশন গঠনের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রীমকোর্টে একটি আর্জি দাখিল হওয়ায় বিষয়টি নতুন মোড় নেয়। খবর বাসসর।

প্রধান বিচারপতি এইচএল দাত্তু প্রধানমন্ত্রী মোদিকে চিঠি লিখে জানিয়ে দেন, কমিশনের বৈধতা নিয়ে সুপ্রীমকোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চ তাদের সিদ্ধান্ত না জানানো পর্যন্ত তার পক্ষে নিয়োগ কমিশনের বৈঠকে যোগ দেয়া সম্ভব নয়। এর পরেই সরকারপ্রধান বিচারপতির অবস্থান ঠিক করে দিতে সাংবিধানিক বেঞ্চের বরাবর আর্জি জানায়। মে মাসে সেই মামলার শুনানিতে নতুন ব্যবস্থার জবাবদিহিতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে আদালত। আর সেই ব্যবস্থাকেই একেবারে বাতিল ঘোষণা করল সুপ্রীমকোর্টের পাঁচ বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ।

নতুন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে গিয়ে দাবি করা হয়েছিল, এটি বিচার বিভাগের কাজকে অর্থবহ করে তুলবে এবং নিয়োগ কমিশনে বিখ্যাত ব্যক্তিদের উপস্থিতি জবাবদিহিতা বাড়াবে। পাশাপাশি, বাছাই প্রক্রিয়াতেও স্বচ্ছতা আনবে।

সুপ্রীমকোর্টের পর্যবেক্ষণ, দু’জন রাজনীতিক, তার মধ্যে ‘স্যান্ডুইচ’ হয়ে থাকা প্রধান বিচারপতি এবং দু’জন নিতান্ত আনকোরা ব্যক্তি কিভাবে বিচার বিভাগের নিয়োগ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন?

এদিন এনজেএসিকে অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করে ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে, এই কমিশন আদালতের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের সমান। বিচারপতিদের নিয়োগ করার অধিকার একমাত্র বিচারপতিদেরই রয়েছে।