১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জামায়াতই দেশীয় জঙ্গীদের মদদ দিচ্ছে ॥ ইসলামী ঐক্যজোট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রকৌশলী খিজির হত্যা, মাওলানা ফারুকী হত্যা এবং দুই বিদেশী হত্যা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়, এসব হত্যাকা-ে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জামায়াতে ইসলামী জড়িত বলে মনে করে বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট। দলটির নেতারা বলেছেন, আইএসের সঙ্গে বাংলাদেশের কোন সম্পর্ক নেই। আন্তর্জাতিক কোন জঙ্গীগোষ্ঠীও দেশে সক্রিয় নয়। বিদেশী জঙ্গী নেই, তবে দেশীয় জঙ্গীদের পৃষ্ঠপোষক জামায়াত ষড়যন্ত্র করে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় বানচাল করার অপচেষ্টা করছে। শনিবার বিকেলে রাজধানীতে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে দলটির ঢাকা বিভাগীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে তারা এসব কথা বলেন। গুপ্তহত্যা, নৈরাজ্য, অপপ্রচারের মাধ্যমে জামায়াতে ইসলামী ও তাদের মিত্রদের দেশবিরোধী নানামুখী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী এ সম্মেলনের আয়োজন করা। ঢাকা বিভাগীয় সমন্বয়ক মুক্তিযোদ্ধা জুলকারনাঈনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন দলের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব আল্লামা মনিরুজ্জামান রাব্বানী, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা আবু হানিফ, ভাইস চেয়ারম্যান আল্লামা রুহুল আমিন খান খাজানী ও মাওলানা ইউসুফ সিদ্দিকী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেছবাহুর রহমান বলেন, জামায়াত ছদ্মনামে ও ছদ্মবেশে দেশে অপতৎপরতা চালাচ্ছে। অর্থের জোগান দিয়ে হরকাতুল জিহাদ, আনসারউল্লাহ বাংলা টিম, জেএমবি- এসব জঙ্গী সংগঠনের নেপথ্যে রয়েছে জামায়াত-শিবির।

জামায়াত জন্মলগ্ন থেকেই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ছিল উল্লেখ করে ইসলামপন্থী এই নেতা বলেন, ‘হুকুমতে এলাহি’ প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখা জামায়াতের গুরু সৈয়দ আবুল আলা মওদুদী ভারতের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিলেন। পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর উপাধি ‘কায়েদে আযম’কে ব্যঙ্গ করে তিনি ‘কুফুরে আযম’ বলতেন। প্রগতি ও ইসলাম একে অপরের পরিপূরক। অথচ দলটি সাম্প্রদায়িক উস্কানিকমূলক কাজের জন্য নিজেদের আঁতুরঘর পাকিস্তানেই দলটি দুইবার নিষিদ্ধ হয়েছিল। ভারতের শিবসেনা ও বাংলাদেশের জামায়াতের মধ্যে মৌলিক কোন পার্থক্য নেই। তারা মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ।

তিনি বলেন, জামায়াতের পাপাচারের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রকৃত ইসলামী চিন্তাবিদ, হাক্কানী আলেম ওলামাদের কোন সম্পর্ক নেই। তাদের সেøাগান সুন্দর কিন্তু মতলব খারাপ। তারা ইসলামের নাম ব্যবহার করে তরুণ মুসলিমদের বিভ্রান্ত করছে। রাষ্ট্রীয় বৈধ কর্তৃপক্ষ ছাড়া কোন ব্যক্তি বা দলের নির্দেশে কারও হত্যা বা মৃত্যুদ- ইসলাম সমর্থন করে না মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, ইসলাম প্রতিরোধে বিশ্বাসী, আগ্রাসনে নয়। মদিনায় অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে মহানবী (সা) তাঁর উম্মতদের এই শিক্ষাই দিয়েছেন। তিনি ছাত্রশিবিরের তরুণ কর্মীদের জামায়াত ত্যাগ করে সঠিক ইসলাম চর্চা করার আহ্বান জানান।