১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অবশেষে বন্দরের সর্ববৃহৎ টার্মিনাল এনসিটির যাত্রা শুরু

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ অবশেষে বহুল আলোচিত চট্টগ্রাম বন্দরের নিউমুরিং কন্টেনার টার্মিনালের (এনসিটি) যাত্রা শুরু হয়েছে। শনিবার বিকেলে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, এমপি এমএ লতিফ, বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ ও টার্মিনাল পরিচালনার দায়িত্ব লাভকারী সাইফ পাওয়ার টেকের এমডি তরফদার রুহুল আমিন, বন্দর ব্যবহারকারী, বিভিন্ন সংগঠন নেতৃবৃন্দ ও বন্দরের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন। এ উপলক্ষে এনসিটির ২ নম্বর জেটিতে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, এনসিটি চালু হওয়ায় এ বন্দরের কন্টেনার হ্যান্ডলিংয়ের ক্ষমতা প্রায় দ্বিগুণে উন্নীত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এ টার্মিনালের মোট ৫টি বার্থের মধ্যে ১টি বার্থ সংরক্ষিত থাকবে পানগাঁও টার্মিনালের পণ্য হ্যান্ডলিংয়ের জন্য।

অবশিষ্ট চারটি বার্থ পরিচালনায় অপারেটর নিয়োগ দেয়া হয়েছে। প্রায় ৬শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ টার্মিনাল পরিচালনা নিয়ে মামলা মোকদ্দমা থেকে শুরু করে অনেক ঘটনা ঘটেছে। এখনও আদালতে এ নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগের রুলনিশি জারি করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম বন্দরে কন্টেনার হ্যান্ডলিংয়ের জন্য এখন পর্যন্ত এটি হচ্ছে সবচেয়ে বড় টার্মিনাল। এ টার্মিনাল পরিচালনায় দায়িত্ব পেয়েছে সাইফ পাওয়ার টেক লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। উল্লেখ্য, এনসিটি নির্মাণ শুরু হয় ২০০৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে। ২০০৭ সালের ডিসেম্বরে এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়। এটি পরিপূর্ণভাবে পরিচালনা করতে প্রায় আট বছর সময় লেগে যায়।

পেপসিকোর কুড়কুড়ে এখন বাজারে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ‘মসলায় মাতামাতি, ফুর্তিতে ফাটাফাটি’ ক্যাম্পেইনকে সামনে রেখে উদ্বোধন করা হলো পেপসিকো’র জনপ্রিয় ব্রান্ড কুড়কুড়ের। ফলে এখন থেকে বাংলাদেশেও কুড়কুড়ে ক্রাঞ্চের ম্যাজিক ও মসলাদার স্বাদ পুরো পরিবারকে একসঙ্গে মাতিয়ে তুলবে।

শনিবার রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে প্রতিষ্ঠানটির ব্রান্ড এ্যাম্বাসেডর হিসেবে জনপ্রিয় অভিনেত্রী অপি করিমের নাম ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, কুড়কুড়ে বাংলাদেশের সংস্কৃতির সঙ্গে গভীরভাবে সম্পৃক্ত। মন মাতানো তিনটি ফ্লেভার এ দেশের যে কোন ক্রেতাকে আকর্ষণ করবে। বাংলাদেশে কুড়কুড়ের লঞ্চ প্রোগ্রামটি জমজমাট করে তুলতে টিভি বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি প্রেস ও রেডিওতে আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন ছাড়াও অনলাইনে নানারকম কার্যক্রমের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

কুড়কুড়ের ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডর অপি করিম বলেন, পেপসিকো’র ব্রান্ড কুড়কুড়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পেরে আনন্দিত ও সম্মানিত বোধ করছি। কুড়কুড়ের ইয়াম্মি টেস্ট আর ক্রাঞ্চ পরিবারের সবাইকে শুধু এক সঙ্গেই করে না, আনন্দেও মাতিয়ে তোলে।

ট্রান্সকম কনজ্যুমার প্রোডাক্টস লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও সিমিন হোসাইন বলেন, পুরো পরিবারকে একসঙ্গে নিয়ে উপভোগ্য সময় কাটাতে কুড়কুড়ে একটি পারফেক্ট স্ন্যাক হিসেবে সারাবিশ্বে জনপ্রিয়। ভোক্তাদের পছন্দের বিভিন্ন স্বাদের কথা মাথায় রেখে কুড়কুড়ে বাজারে আসছে তিনটি লোভনীয় স্বাদে।