১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চার দেশের সঙ্গে সংযুক্ত সড়কগুলো চার লেনে উন্নীতের কাজ শুরু

  • ডিসিসিআইর সেমিনারে ও কাদের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আগামী জানুয়ারিতে বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের মধ্যে সড়ক যোগাযোগ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এ লক্ষ্যে চার দেশের সঙ্গে সংযুক্ত সড়কগুলো চার লেনে উন্নীত করার কাজ শুরু হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, নবেম্বরের শেষ সপ্তাহে পদ্মা সেতুর মূল পাইলিংয়ের কাজ শুরু হবে এবং আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে মেট্রোরেলের অবকাঠামো স্থাপনের কাজ শুরু হবে। বিদেশী হত্যাকা-ের বিষয়টি ভারত স্বাভাবিকভাবে নিলেও অন্যরা যেভাবে রেড এ্যালার্ট জারি করেছে সেটি বাংলাদেশের জন্য অবিচার। মন্ত্রী বলেন, অস্ট্রেলিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটে। আমরা তো এতে রেড এ্যালার্ট জারি করি না।

শনিবার দুপুরে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ‘আঞ্চলিক যোগাযোগ সম্ভাবনা এবং চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে ডিসিসিআই। সংগঠনের সভাপতি হোসেন খালিদের সভাপত্বিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রিয়ার এ্যাডমিরাল (অব) মোঃ খুরশেদ আলম ও বাংলাদেশে নিযুক্ত নেপালের রাষ্ট্রদূত হরি কুমার শ্রেষ্ঠা।

মন্ত্রী বলেন, আগামী বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের মধ্যে সড়ক যোগাযোগ শুরু হবে। এ লক্ষ্যে চার দেশের সঙ্গে সংযুক্ত সড়কগুলো চার লেনে উন্নীত করার কাজ শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এক হাজার সাত শ’ বায়ান্ন কিলোমিটার সড়কে দুই লেনের রাস্তার সমীক্ষা কাজ শেষ করেছে। তিনি আরও বলেন, আগামী ১৪ নবেম্বর চার দেশে ‘কার র‌্যালি’ অনুষ্ঠিত হবে। ভারতের ভুবনেশ্বর থেকে র‌্যালি শুরু হয়ে প্রথমে নেপাল এরপর ভুটান হয়ে বাংলাদেশে আসবে। পরে বাংলাদেশ থেকে কলকাতা যাবে। র‌্যালির পর পরই জানুয়ারি থেকে চার দেশে ব্যক্তিগত যাত্রীবাহী ও মালবাহী যানবাহন চলাচল শুরু হবে। ওবায়দুল কাদের বলেন, নবেম্বরের শেষ সপ্তাহে পদ্মা সেতুর মূল পাইলিংয়ের কাজ শুরু হবে এবং আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে মেট্রোরেলের অবকাঠামো স্থাপনের কাজ শুরু করা হবে। এ ছাড়া জাইকার অর্থায়নে কাঁচপুর, মেঘনা, গোমতী সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে। তিনি জানান, ঢাকা-চট্রগ্রাম চার লেনে উন্নীত করার প্রকল্পের কাজ চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে এবং ইতোমধ্যে ১৪৩ কিলোমিটারের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, সাসেক রোড কানেক্টিটিভি প্রকল্পের আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা রুটটি চার লেনে উন্নীত করার কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, আশুলিয়া রোডে যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ঢাকা এয়ারপোর্ট হতে বাইপেল পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে স্থাপন করা হবে। আমাদের আঞ্চলিক হীনমানসিকতার দেয়াল ভাঙতে হবে। এ জন্য ভারতকে সবার আগে এগিয়ে আসতে হবে বলে তিনি জানান। দুই বিদেশি হত্যাকা- প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ভারত এ বিষয়টি খুব স্বাভাবিকভাবে নিয়েছে। কিন্তু অন্যরা যেভাবে রেড এ্যালার্ট জারি করেছে সেটি বাংলাদেশের জন্য অবিচার। অস্ট্রেলিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটে। আমরা তো এতে রেড এ্যালার্ট জারি করি না। মন্ত্রী বলেন, দেশ চালাতে খুব বেশি লেখাপড়ার প্রয়োজন হয় না। দরকার প্রচ- মেধাশক্তি ও জ্ঞান, যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আছে। এই কারণে তিনি দেশকে দক্ষভাবে পরিচালনা করছেন। আমি কারও চামচামি করি না। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে পরে পিএস দিয়ে তাদের কাছে টাকা চাই না। আমি কমিটমেন্টে বিশ্বাস করি এবং সব সময় তা মেনে চলার চেষ্টা করি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রিয়ার এ্যাডমিরাল (অব) খুরশেদ আলম বলেন, প্রস্তাবিত চুক্তি থেকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জনের সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, সুদূঢ় ভবিষ্যতে বাংলাদেশের এশিয়ান হাইওয়ের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি এ চুক্তির সফল বাস্তবায়নের জন্য ভারতের সরকারকে ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।