১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্রিকেটার তালিকা আরও বড় হচ্ছে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল-টি২০) তৃতীয় আসরের খেলা শুরু হবে ২২ নবেম্বর। তবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ২০ নবেম্বর লীগের পর্দা উঠবে। এ লীগের ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েস’ পদ্ধতিতে ক্রিকেটাররা দল পাবেন। সেই ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েস’ পদ্ধতিতে ক্রিকেটার দলে ভেড়ানোর কাজ হবে ২৬ অক্টোবর। ১৯৫ বিদেশী ও ১২২ দেশী ক্রিকেটারের তালিকা এ পদ্ধতিতে থাকছে, তা আগেই প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। শনিবার জানা গেল, ক্রিকেটার তালিকা আরও লম্বা হচ্ছে। সেই সঙ্গে আইকন ক্রিকেটাররাও ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে’ই দলে যুক্ত হবেন।

বিসিবির পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুসই তা জানিয়েছেন। বলেছেন, ‘আরও ১৫-২০ জনের মতো খেলোয়াড় যুক্ত হচ্ছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ডের কিছু খেলোয়াড় আছে। নতুন কিছু নাম আসছে। তো ওদের নামগুলো যুক্ত করা হচ্ছে।’ সঙ্গে তালিকায় থাকা ১৫০ বিদেশী ক্রিকেটারের বিপিএলের ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে’ থাকার জন্য সম্মতি মিলে গেছে বলে জালাল যোগ করেন, ‘এখন পর্যন্ত আমরা যেটা জেনেছি, ১৫০ বিদেশী ক্রিকেটার রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করে ফেলেছে।’ শুধু বিদেশীই নয়, দেশীদের তালিকাতেও আরও কয়েকজন ক্রিকেটার বাড়ছে। সেই সঙ্গে অনুর্ধ-১৯ দলের ক্রিকেটারদের ব্যস্ত সূচী থাকায় তাদের নাম সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। এমনটিই জানালেন মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান, ‘দেশীয় ক্রিকেটারদের তালিকায় নয়জন অনুর্ধ-১৯ দলের ক্রিকেটার ছিল। কিন্তু সামনে ওদের অনেকগুলো খেলা আছে। কিছু আন্তর্জাতিক সিরিজ খেলবে তারা। এজন্য ওরা সময় দিতে পারবে না। সঙ্গে সামনে যেহেতু বিশ্বকাপ আছে, সবকিছু মিলিয়ে অনুর্ধ-১৯ ক্রিকেটারদের বিপিএলে রাখা হচ্ছে না। দেশীয় ক্রিকেটার আরও ৮-৯ জন বেড়েছে।’ টি২০ ফরমেটে খেলা হবে। অথচ নেই হার্টহিটার নাজিমউদ্দিন। তাই কথা উঠেছে তাকে নিয়েও। জালাল জানালেন, ‘নাজিমউদ্দিনের বিষয় আমি জানি না। আমি যেটা শুনেছি তাতে ৮-৯ জন খেলোয়াড় বেড়েছে।’ সেই বাড়তি তালিকায় নাজিমউদ্দিন এবার থাকতে পারেন। ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে’ কিভাবে ক্রিকেটার দলে যুক্ত হবে তা জানিয়ে দিলেন জালাল ইউনুস। বললেন, ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে যেটা থাকবে, এখানে যে এ, বি, সি, ডি ক্যাটাগরিগুলো আছে, এই ক্যাটাগরির মধ্যে কেউ যার প্রথম নাম উঠে আসবে লটারিতে, সে হয়ত এ ক্যাটাগরি না নিয়ে যদি মনে করে পাস করে দেবে, সে বি ক্যাটাগরি থেকেও নিতে পারে। এই সবকিছু এখনও আলোচনার মধ্যে রয়েছে। আমরা এখন বসছি। কিছুদিনের মধ্যে এগুলো চূড়ান্ত করব। ক্যাটাগরি অনুযায়ী খেলোয়াড় নিতে হবে এমন বাধ্যবাধকতা নেই। ১৩ জন লোকাল, ১২ জন বিদেশী নিতে পারবে। এই ২৫ জনের মধ্যে রাখতে হবে। সর্বোচ্চ ২৫ জন রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে। আমরা বিপিএল গবর্নিং কাউন্সিল, ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে বসতে পারি, যদি কিছু খেলোয়াড় বাড়ান যায়। তাহলে অবশ্যই ওই ভাবে চিন্তা-ভাবনা করা যায়। তবে এই মুহূর্তে সে রকম চিন্তা-ভাবনা নেই।’ আগেই জনকণ্ঠ পাঠকরা জেনে গেছেন ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে’র মাধ্যমে আইকন ক্রিকেটারদের ভাগ্যও নির্ধারণ হতে পারে। সেই ইঙ্গিত জালাল ইউনুসও দিলেন। বললেন, ‘এটা এখনও কিছুই হয়নি। এটা লটারির মাধ্যমেও হতে পারে।’

ডিসেম্বরের ১৫ তারিখ শেষ হবে বিপিএলের তৃতীয় আসর। এ আসরে দেশী ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ দাম পাবে আইকন ক্রিকেটাররা। তাদের মূল্য থাকছে ৩৫ লাখ টাকা। ‘এ’ গ্রেডের ক্রিকেটারদের ২৫ লাখ, ‘বি’ গ্রেডের ক্রিকেটারদের ১৮ লাখ, ‘সি’ গ্রেডের ক্রিকেটারদের ১২ লাখ ও ‘ডি’ গ্রেডের ক্রিকেটারদের পাঁচ লাখ টাকা মূল্য থাকছে। স্থানীয় ক্রিকেটারদের কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি সরাসরি নিতে পারবে না। ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েসে’ই নিতে হবে। বিদেশী ক্রিকেটারদের সর্বোচ্চ মূল্য থাকছে ‘এ’ গ্রেডের ৭০ হাজার ডলার, ‘বি’ গ্রেডের ৫০ হাজার ডলার, ‘সি’ গ্রেডের ৪০ হাজার ডলার ও ‘ডি’ গ্রেডের ৩০ হাজার ডলার। একটি দলকে সর্বোচ্চ চারজন বিদেশী খেলাতেই হবে।

নির্বাচিত সংবাদ